মানুষ হত্যা গুরুতর অপরাধ

Standard

এদিকে কথিত উন্নত ও সভ্য দেশগুলো মোড়লিপনা দেখাতে গিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আগ্রাসন চালিয়ে খুন করছে হাজার হাজার নিরপরাধ মানুষকে। যারা মুসলিম দেশগুলোকে মানবাধিকারের সবক দেয়, তারাই আবার মজলুম মুসলিম দেশগুলোয় প্রতিদিন নিষ্পাপ শিশু ও অসহায় নারী ও বৃদ্ধদের ওপর বোমা নিক্ষেপ করছে। পৃথিবীর মানচিত্রজুড়েই এখন মুসলিমের তপ্ত খুনের ছোপছোপ দাগ।

অতি সম্প্রতি বাংলাদেশে যোগ হয়েছে গুম নামের এক আতঙ্ক। সুস্থ-সবল মানুষকে চোখের সামনে পরিবার থেকে উঠিয়ে নিচ্ছে আর সে লোকটি ঘরে ফিরছে লাশ হয়ে। কখনো এ লাশটিও আর ফেরত পাচ্ছে না হতভাগা পরিবার। কে নিচ্ছে, কোথায় নিচ্ছে, কারা নিচ্ছে- কোনোটারই যেন হদিস নেই।

পৃথিবীর তাবৎ মানুষের মতো বাংলাদেশের নাগরিকরাও এ হত্যা-নৈরাজ্য থেকে পরিত্রাণ খুঁজে ফিরছে। মুক্তির অন্বেষায় তারাও যত্রতত্র ধর্ণা দিচ্ছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। লাশের মিছিল কেবল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতরই হচ্ছে। এমতাবস্থায় আর সব সমস্যার মতো এর সমাধানেও ইসলামই হতে পারে হতাশায় আলোকদিশা। উপায়হীনের অব্যর্থ উপায়। সেটি হলো, আমাদেরকে অবশ্যই ইসলামের শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে।তুলে ধরতে হবে ইসলামের অমলধবল আলোকশিখা।

পবিত্র কুরআন ও সুন্নাহের অমূল্য বাণীগুলো মানব হত্যাকে হারাম ঘোষণা করেছে।অন্যায়ভাবে অপরের প্রাণ হরণকেতালিকাভুক্ত করা হয়েছে বড় গুনাহসমূহের। শুধু তাই নয় পৃথিবীতে যত রকমের গুনাহের কাজ রয়েছে তার মধ্যে সবচেয়ে বড় মহান আল্লাহর সঙ্গে কাউকে অংশীদার বা শরীক সাব্যস্ত করা। এরপর সবচেয়ে বড় গুনাহ অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করা। হন্তারকের জন্য মহান আল্লাহ দুনিয়ায় বড় শাস্তি এবং আখেরাতে তীব্র আযাবের ঘোষণা দিয়েছেন। যেমন : আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

﴿ ۞قُلۡ تَعَالَوۡاْ أَتۡلُ مَا حَرَّمَ رَبُّكُمۡ عَلَيۡكُمۡۖ أَلَّا تُشۡرِكُواْ بِهِۦ شَيۡ‍ٔٗاۖ وَبِٱلۡوَٰلِدَيۡنِ إِحۡسَٰنٗاۖ وَلَا تَقۡتُلُوٓاْ أَوۡلَٰدَكُم مِّنۡ إِمۡلَٰقٖ نَّحۡنُ نَرۡزُقُكُمۡ وَإِيَّاهُمۡۖ وَلَا تَقۡرَبُواْ ٱلۡفَوَٰحِشَ مَا ظَهَرَ مِنۡهَا وَمَا بَطَنَۖ وَلَا تَقۡتُلُواْ ٱلنَّفۡسَ ٱلَّتِي حَرَّمَ ٱللَّهُ إِلَّا بِٱلۡحَقِّۚ ذَٰلِكُمۡ وَصَّىٰكُم بِهِۦ لَعَلَّكُمۡ تَعۡقِلُونَ ١٥١ ﴾ [الانعام: ١٥١]

‘বল, “এসো, তোমাদের ওপর তোমাদের রব যা হারাম করেছেন, তা তিলাওয়াত করি যে, তোমরা তার সাথে কোন কিছুকে শরীক করবে না এবং মা-বাবার প্রতি ইহসান করবে আর দারিদ্র্যের কারণে তোমাদের সন্তানদেরকে হত্যা করবে না। আমিই তোমাদেরকে রিয্ক দেই এবং তাদেরকেও। আর অশ্লীল কাজের নিকটবর্তী হবে না- তা থেকে যা প্রকাশ পায় এবং যা গোপন থাকে। আর বৈধ কারণ ছাড়া তোমরা সেই প্রাণকে হত্যা করো না, আল্লাহ যা হারাম করেছেন। এগুলো আল্লাহ তোমাদেরকে নির্দেশ দিয়েছেন, যাতে তোমরা বুঝতে পার।”’ {সূরা আল-আন‘আম, আয়াত : ১৫১}

তাফসীরকার বাগবী (রহ.) বলেন, এ আয়াতে আল্লাহ যে কোনো মুমিন ও মুসলিম রাষ্ট্রে ট্যাক্স প্রদানকারী অমুসলিম নাগরিককে অন্যায়ভাবে হত্যা হারাম ঘোষণা করেছেন। হত্যার ন্যায়সঙ্গত কারণের মধ্যে রয়েছে ইরতিদাদ তথা কোনো মুসলিমের ইসলাম ধর্মত্যাগ, কিসাস তথা হত্যার বদলে হত্যা এবং রজম তথা বিবাহিত ব্যক্তির জেনা-ব্যভিচারের দণ্ড। [মা‘আলিমুত তানযীল : ৩/২০৩]

আরেক আয়াতে আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

﴿ وَٱلَّذِينَ لَا يَدۡعُونَ مَعَ ٱللَّهِ إِلَٰهًا ءَاخَرَ وَلَا يَقۡتُلُونَ ٱلنَّفۡسَ ٱلَّتِي حَرَّمَ ٱللَّهُ إِلَّا بِٱلۡحَقِّ وَلَا يَزۡنُونَۚ وَمَن يَفۡعَلۡ ذَٰلِكَ يَلۡقَ أَثَامٗا ٦٨ يُضَٰعَفۡ لَهُ ٱلۡعَذَابُ يَوۡمَ ٱلۡقِيَٰمَةِ وَيَخۡلُدۡ فِيهِۦ مُهَانًا ٦٩ ﴾ [الفرقان: ٦٧، ٦٨]

‘আর যারা আল্লাহর সাথে অন্য ইলাহকে ডাকে না এবং যারা আল্লাহ যে নাফ্সকে হত্যা করা নিষেধ করেছেন যথার্থ কারণ ছাড়া তাকে হত্যা করে না। আর যারা ব্যভিচার করে না। আর যে তা করবে সে আযাবপ্রাপ্ত হবে। কিয়ামতের দিন তার আযাব বর্ধিত করা হবে এবং সেখানে সে অপমানিত অবস্থায় স্থায়ী হবে।’ [সূরা আল-ফুরকান, আয়াত : ৬৮-৬৯]

কাউকে অন্যায়ভাবে হত্যা করা হলে ইসলাম তার প্রতিকারের কার্যকর ব্যবস্থা নির্দেশ করেছে। আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

﴿ وَلَا تَقۡتُلُواْ ٱلنَّفۡسَ ٱلَّتِي حَرَّمَ ٱللَّهُ إِلَّا بِٱلۡحَقِّۗ وَمَن قُتِلَ مَظۡلُومٗا فَقَدۡ جَعَلۡنَا لِوَلِيِّهِۦ سُلۡطَٰنٗا فَلَا يُسۡرِف فِّي ٱلۡقَتۡلِۖ إِنَّهُۥ كَانَ مَنصُورٗا ٣٣ ﴾ [الاسراء: ٣٣]

‘আর তোমরা সেই নাফসকে হত্যা করো না, যা আল্লাহ হারাম করেছেন, সঙ্গত কারণ ছাড়া। যে অন্যায়ভাবে নিহত হয় আমি অবশ্যই তার অভিভাবককে ক্ষমতা দিয়েছি। সুতরাং হত্যার ব্যাপারে সে সীমালঙ্ঘন করবে না; নিশ্চয় সে হবে সাহায্যপ্রাপ্ত। [ সূরা বনী ইসরাইল, আয়াত : ৩৩]

এ আয়াতে কিসাস তথা হত্যার বদলা হিসেবে হত্যার বিধানের প্রতি ইঙ্গিত করা হয়েছে। অন্য সূরায় যেটি পরিষ্কার করে বলা হয়েছে।

আল্লাহ তা‘আলা যেমন বলেন,

﴿ وَكَتَبۡنَا عَلَيۡهِمۡ فِيهَآ أَنَّ ٱلنَّفۡسَ بِٱلنَّفۡسِ وَٱلۡعَيۡنَ بِٱلۡعَيۡنِ وَٱلۡأَنفَ بِٱلۡأَنفِ وَٱلۡأُذُنَ بِٱلۡأُذُنِ وَٱلسِّنَّ بِٱلسِّنِّ وَٱلۡجُرُوحَ قِصَاصٞۚ فَمَن تَصَدَّقَ بِهِۦ فَهُوَ كَفَّارَةٞ لَّهُۥۚ وَمَن لَّمۡ يَحۡكُم بِمَآ أَنزَلَ ٱللَّهُ فَأُوْلَٰٓئِكَ هُمُ ٱلظَّٰلِمُونَ ٤٥ ﴾ [المائ‍دة: ٤٥]

‘আর আমি এতে তাদের উপর অবধারিত করেছি যে, প্রাণের বিনিময়ে প্রাণ, চোখের বিনিময়ে চোখ, নাকের বিনিময়ে নাক, কানের বিনিময়ে কান ও দাঁতের বিনিময়ে দাঁত এবং জখমের বিনিময়ে সমপরিমাণ জখম। অতঃপর যে তা ক্ষমা করে দেবে, তার জন্য তা কাফ্ফারা হবে। আর আল্লাহ যা নাযিল করেছেন, তার মাধ্যমে যারা ফয়সালা করবে না, তারাই যালিম।’ [ সূরা আল-মায়িদা, আয়াত : ৪৫]

বর্তমান অন্যায় অবিচারে ভরা জগতের অনেক মানুষ ইসলামের এ বিধানটিকে অমানবিক আবার কোনো কোনো অবিশ্বাসী একে বর্বর পর্যন্তও বলে বসেন। অথচ বর্তমান পৃথিবীর বাস্তবচিত্রও সাক্ষ্য দেয় আপাতদৃষ্টিতে কঠোর মনে হলেও এর মাধ্যমেই মানবজাতির মুক্তি ও শান্তি নিশ্চিত করা হয়েছে। আমরা বুঝি না বলেই যত অমূলক সমালোচনা। কিসাসের আয়াতের শেষাংশে যেমন ‘বিবেকসম্পন্নগণ’ বলে ইঙ্গিত করা হয়েছে।

আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

﴿ يَٰٓأَيُّهَا ٱلَّذِينَ ءَامَنُواْ كُتِبَ عَلَيۡكُمُ ٱلۡقِصَاصُ فِي ٱلۡقَتۡلَىۖ ٱلۡحُرُّ بِٱلۡحُرِّ وَٱلۡعَبۡدُ بِٱلۡعَبۡدِ وَٱلۡأُنثَىٰ بِٱلۡأُنثَىٰۚ فَمَنۡ عُفِيَ لَهُۥ مِنۡ أَخِيهِ شَيۡءٞ فَٱتِّبَاعُۢ بِٱلۡمَعۡرُوفِ وَأَدَآءٌ إِلَيۡهِ بِإِحۡسَٰنٖۗ ذَٰلِكَ تَخۡفِيفٞ مِّن رَّبِّكُمۡ وَرَحۡمَةٞۗ فَمَنِ ٱعۡتَدَىٰ بَعۡدَ ذَٰلِكَ فَلَهُۥ عَذَابٌ أَلِيمٞ ١٧٨ وَلَكُمۡ فِي ٱلۡقِصَاصِ حَيَوٰةٞ يَٰٓأُوْلِي ٱلۡأَلۡبَٰبِ لَعَلَّكُمۡ تَتَّقُونَ ١٧٩ ﴾ [البقرة: ١٧٨، ١٧٩]

‘হে মুমিনগণ, নিহতদের ব্যাপারে তোমাদের উপর ‘কিসাস’ ফরয করা হয়েছে। স্বাধীনের বদলে স্বাধীন, দাসের বদলে দাস, নারীর বদলে নারী। তবে যাকে কিছুটা ক্ষমা করা হবে তার ভাইয়ের পক্ষ থেকে, তাহলে সততার অনুসরণ করবে এবং সুন্দরভাবে তাকে আদায় করে দেবে। এটি তোমাদের রবের পক্ষ থেকে হালকাকরণ ও রহমত। সুতরাং এরপর যে সীমালঙ্ঘন করবে, তার জন্য রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক আযাব। আর হে বিবেকসম্পন্নগণ, কিসাসে রয়েছে তোমাদের জন্য জীবন, আশা করা যায় তোমরা তাকওয়া অবলম্বন করবে।’ [ সূরা আল-বাকারা, আয়াত : ১৭৮-১৭৯]

পৃথিবীতে হত্যার পরিসংখ্যান দেখলে জানা যাবে, সৌদি আরব যেখানে একমাত্র এই কিসাস ব্যবস্থা এখনো বলবৎ রয়েছে, সবচেয়ে কম খুনোখুনির ঘটনা ঘটে। ইসলামকে যারা বর্বর বলে তারা শুধু জ্ঞানপাপীই নয়, মূর্খও বটে। কারণ, ইসলামই পৃথিবীর একমাত্র ধর্ম যেখানে যে কোনো নিরপরাধ মানুষের প্রাণসংহারকে মানবতাবিরোধী ও মানবজাতির হত্যার তুল্য অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

﴿ مِنۡ أَجۡلِ ذَٰلِكَ كَتَبۡنَا عَلَىٰ بَنِيٓ إِسۡرَٰٓءِيلَ أَنَّهُۥ مَن قَتَلَ نَفۡسَۢا بِغَيۡرِ نَفۡسٍ أَوۡ فَسَادٖ فِي ٱلۡأَرۡضِ فَكَأَنَّمَا قَتَلَ ٱلنَّاسَ جَمِيعٗا وَمَنۡ أَحۡيَاهَا فَكَأَنَّمَآ أَحۡيَا ٱلنَّاسَ جَمِيعٗاۚ وَلَقَدۡ جَآءَتۡهُمۡ رُسُلُنَا بِٱلۡبَيِّنَٰتِ ثُمَّ إِنَّ كَثِيرٗا مِّنۡهُم بَعۡدَ ذَٰلِكَ فِي ٱلۡأَرۡضِ لَمُسۡرِفُونَ ٣٢ ﴾ [المائ‍دة: ٣٢]

‘এ কারণেই, আমি বনী ইসরাঈলের ওপর এই হুকুম দিলাম যে, যে ব্যক্তি কাউকে হত্যা করা কিংবা যমীনে ফাসাদ সৃষ্টি করা ছাড়া যে কাউকে হত্যা করল, সে যেন সব মানুষকে হত্যা করল। আর যে তাকে বাঁচাল, সে যেন সব মানুষকে বাঁচাল। আর অবশ্যই তাদের কাছে আমার রাসূলগণ সুস্পষ্ট নিদর্শনসমূহ নিয়ে এসেছে। তা সত্ত্বেও এরপর জমিনে তাদের অনেকে অবশ্যই সীমালঙ্ঘনকারী।’ [সূরা মায়েদা, আয়াত : ৩২]

তেমনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামও হত্যাকাণ্ডকে গুরুতর অপরাধ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। আনাস বিন মালেক রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,

« أَكْبَرُ الْكَبَائِرِ الإِشْرَاكُ بِاللَّهِ وَقَتْلُ النَّفْسِ ، وَعُقُوقُ الْوَالِدَيْنِ ، وَقَوْلُ الزُّورِ » .

‘কবীরা গুনাহগুলোর মধ্যে সবচে বড় গুনাহ হলো আল্লাহর সঙ্গে শিরক করা, নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করা, পিতামাতার অবাধ্য হওয়া এবং মিথ্যা কথা বলা।’ [বুখারী : ৬৮৭১; মুসলিম : ৮৮]

আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,

« أَوَّلُ مَا يُقْضَى بَيْنَ النَّاسِ فِى الدِّمَاءِ » .

‘কিয়ামতের দিন মানুষের মধ্যে প্রথম বিচার করা হবে রক্তপাত সম্পর্কে।’[1] [বুখারী : ৬৩৫৭; মুসলিম : ৩১৭৮]

আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন :

« اجْتَنِبُوا السَّبْعَ الْمُوبِقَاتِ » . قَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ وَمَا هُنَّ قَالَ « الشِّرْكُ بِاللَّهِ ، وَالسِّحْرُ ، وَقَتْلُ النَّفْسِ الَّتِى حَرَّمَ اللَّهُ إِلاَّ بِالْحَقِّ ، وَأَكْلُ الرِّبَا ، وَأَكْلُ مَالِ الْيَتِيمِ ، وَالتَّوَلِّى يَوْمَ الزَّحْفِ ، وَقَذْفُ الْمُحْصَنَاتِ الْمُؤْمِنَاتِ الْغَافِلاَتِ » .

‘তোমরা সাতটি ধ্বংসাত্মক কাজ থেকে বিরত থাক।সাহাবীগণ জিজ্ঞেস করলেন, সেগুলো কী হে আল্লাহর রাসূল? তিনি বললেন, ১. আল্লাহর সাথে শরীক করা২. জাদু করা৩. অন্যায়ভাবে নিরপরাধ লোককে হত্যা করা৪. সুদ খাওয়া৫. এতিমের সম্পদ আত্মসাৎ করা৬. রণক্ষেত্র থেকে পলায়ন করা৭. সুরক্ষিত পবিত্রা নারীকে অপবাদ দেওয়া।’ [বুখারী : ৬৮৫৬; মুসলিম : ১২৯]

ইবন উমর রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন :

« لَنْ يَزَالَ الْمُؤْمِنُ فِى فُسْحَةٍ مِنْ دِينِهِ ، مَا لَمْ يُصِبْ دَمًا حَرَامًا » .

‘মুমিন তার দীনের ব্যাপারে সর্বদা অবকাশের মধ্যেই থাকে যাবৎ না সে নিষিদ্ধ রক্তপাত ঘটায়।’ [বুখারী : ৬৮৬২]

ইবন আব্বাস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন :

« يَجِىءُ الْمَقْتُولُ بِالْقَاتِلِ يَوْمَ الْقِيَامَةِ نَاصِيَتُهُ وَرَأْسُهُ بِيَدِهِ وَأَوْدَاجُهُ تَشْخُبُ دَمًا يَقُولُ يَا رَبِّ هَذَا قَتَلَنِى حَتَّى يُدْنِيَهُ مِنَ الْعَرْشِ ».

‘কিয়ামতের দিন নিহত ব্যক্তি হন্তারককে নিয়ে আসবে। হন্তারকের চুলের অগ্রভাগ ও মাথা নিহতের হাতের মুষ্ঠিতে থাকবে আর তার কণ্ঠনালী থেকে তখন রক্ত ঝরতে থাকবে। সে বলবে, হে রব, এ ব্যক্তি আমাকে হত্যা করেছে। এমনকি সে তাকে আরশের কাছে নিয়ে যাবে।’ [তিরমিযী : ২৯৫৫; মুসনাদ আহমদ : ২৫৫১, সহীহ, সিলসিলা সহীহা : ২৬৯৭]

আবূ সাঈদ খুদরী রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন :

يَخْرُجُ عُنُقٌ مِنَ النَّارِ يَتَكَلَّمُ يَقُولُ : وُكِّلْتُ الْيَوْمَ بِثَلاَثَةٍ : بِكُلِّ جَبَّارٍ ، وَبِمَنْ جَعَلَ مَعَ اللهِ إِلَهًا آخَرَ ، وَبِمَنْ قَتَلَ نَفْسًا بِغَيْرِ نَفْسٍ ، فَيَنْطَوِي عَلَيْهِمْ فَيَقْذِفُهُمْ فِي غَمَرَاتِ جَهَنَّمَ.

‘জাহান্নাম থেকে একটি গলা বের হয়ে কথা বলতে শুরু করবে। সে বলবে, আজ আমি তিন ব্যক্তির প্রতি ন্যস্ত হয়েছি : প্রত্যেক অত্যাচারী, যে আল্লাহর সঙ্গে অন্য কাউকে শরীক স্থির করে এবং ওই ব্যক্তি যে অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করে। অতপর সে তাদের থাবা দিয়ে কব্জা করবে এবং জাহান্নামের গহীনে তাদের নিক্ষেপ করবে।’ [মুসনাদ আহমদ : ১১৩৭২, সহীহ, সিলসিলা সহীহা : ২৬৯৯]

আবদুল্লাহ ইবন উমর রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন :

« إِنَّ مِنْ وَرْطَاتِ الأُمُورِ الَّتِى لاَ مَخْرَجَ لِمَنْ أَوْقَعَ نَفْسَهُ فِيهَا ، سَفْكَ الدَّمِ الْحَرَامِ بِغَيْرِ حِلِّهِ » .

‘যেসব পরিত্রাণঅযোগ্য ধ্বংসে মানুষ পতিত হয় তার অন্যতম হলো বৈধ কারণ ছাড়া নিষিদ্ধ রক্ত ঝরানো।’ [বুখারী : ৬৮৬৩]

বলাবাহুল্য, এসব গেল হত্যা ও খুনোখুনির আইনী প্রতিকারের দিক। সত্যিকারার্থে পরিত্রাণ চাইলে আমাদেরকে এর নৈতিক দিকগুলোও বিবেচনায় নিতে হবে। ক্রমবর্ধমান মূল্যবোধের অবক্ষয় ও মানবিক গুণাবলির অধোঃপাতের কথাও চিন্তা করতে হবে। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

﴿ ظَهَرَ ٱلۡفَسَادُ فِي ٱلۡبَرِّ وَٱلۡبَحۡرِ بِمَا كَسَبَتۡ أَيۡدِي ٱلنَّاسِ لِيُذِيقَهُم بَعۡضَ ٱلَّذِي عَمِلُواْ لَعَلَّهُمۡ يَرۡجِعُونَ ٤١ ﴾ [الروم: ٤١]

‘মানুষের কৃতকর্মের দরুন স্থলে ও সমুদ্রে ফাসাদ প্রকাশ পায়। যার ফলে আল্লাহ তাদের কতিপয় কৃতকর্মের স্বাদ তাদেরকে আস্বাদন করান, যাতে তারা ফিরে আসে।’ [সূরা আর-রূম, আয়াত : ৪১]

সত্যিই তো আজ যেসব সামাজিক ব্যধি ও সমস্যায় আমরা নাকাল, এর দায় তো আমাদেরই। আমাদের ব্যক্তিগত আমল ও আচরণের দিকে তাকালেই সেটা পরিষ্কার দেখা যায়। কিয়ামত যত ঘনিয়ে আসছে অবস্থার যেন ততই অবনতি ঘটছে। আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন :

لَا تَقُومُ السَّاعَةُ حَتَّى يَكْثُرَ الْهَرْجُ قَالُوا وَمَا الْهَرْجُ يَا رَسُولَ اللَّهِ قَالَ الْقَتْلُ الْقَتْلُ

‘কিয়ামত ততক্ষণ সংঘটিত হবে না যতক্ষণ না হারাজ বেশি হবে। সাহাবায়ে কিরাম জিজ্ঞাসা করলেন, ‘হারাজ’ কী হে আল্লাহর রাসূল? তিনি বললেন হত্যা, হত্যা।’ [মুসলিম : ৫১৪৩]

হত্যাকাণ্ডের এ রাহুগ্রাস থেকে মুক্তি পেতে আমাদের যেমন আল্লাহর আইনের সুফল অনুধাবন জরুরী, আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার জরুরী, তেমনি প্রয়োজন নিজেদের সব ধরনের অন্যায়, অবিচার ও যাবতীয় পাপাচার থেকে একনিষ্ঠভাবে তাওবা করা। নিজেদের সন্তান তথা ভবিষ্যত প্রজন্মকে আল্লাহভীতি ও নৈতিকতার বলে বলীয়ান হিসেবে গড়ে তোলা। সব ধরনের অশ্লীলতা ও বেহায়পনা থেকে তাদেরকে যে কোনো মূল্যে দূরে রাখা। বলিউড হলিউডের সিনেমা আর স্যাটেলাইট কালচার আমাদের সন্তানদের মানবিক বিকাশকে শুধু বাধাগ্রস্তই করছে না, তাদেরকে হিংস্র ও নরপশু বানিয়ে ছাড়ছে। পার্থিব ভোগ লালসা মানুষকে অন্ধ ও বধির বানিয়ে ছাড়ছে। আল্লাহ আমাদের অনুধাবন ও সংশোধনের তাওফীক দান করুন। আমীন।

[1].ইমাম নববী (রহ.) বলেন, এ হাদীসে রক্তপাতের অপরাধের গুরুতরতা তুলে ধরা হয়েছে। আর তা হলো কিয়ামতের দিন মানুষের মধ্যে যত বিষয়ে বিচারাচার হবে রক্তপাত তার মধ্যে প্রথম। এ হাদীসটি সুনানগুলোয় বর্ণিত, أَوَّلُ مَا يُحَاسَبُ بِهِ الْعَبْدُ الصَّلاَةُ‘প্রথম যে বিষয়ে বিচার করা হবে তা হলো সালাত’ হাদীসের সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়। [তিরমিযী : ৩৯৯১] কারণ, সালাতের হাদীসের বিষয়টি বান্দা ও আল্লাহর হকের সঙ্গে সম্পৃক্ত। পক্ষান্তরে আলোচ্য হাদীসটি বান্দার হক সংক্রান্ত। [শরহু সহীহ মুসলিম : ১১/১৬৭]

চার মাযহাব যারা মানে না তারা নিজেরাই বিভিন্ন দলে বিভক্ত

Standard

image

যারা বলে চার মাযহাব হারাম। এ চার মাযহাব মুসলমানদেরকে বিভক্ত করছে। সুতরাং চার মাযহাব ছেড়ে দিয়ে কোরাআন হাদিস মানতে হবে।তাদের জন্য এ আলোচনা। দেখুন-
আপনারা বলছেন, চার মাযহাব মুসলমানদেরকে চারভাগে বিভক্ত করছে। কিন্তু আপনার জানা প্রয়োজন নামধারী আহলে হাদিসরা যারা একথা বলে বেড়াচ্ছে, তারাই শত শত ভাগে বিভক্ত।
মজার ভিডিওটি দেখুন,

আপনারা বলছেন, মাযহাব মুসলমানদেরকে বিভক্ত করছে তাদের বিভিন্ন ভিন্নধর্মী পরস্পর বিরোধী ফতোয়ার কারণে।
অথচ দেখুন, আপনারা সউদী আরবের যাদেরকে সহীহ আকীদার আলেম বলে মানেন, আপনারা যাদের ব্যাপারে বলেন যে, তারা সহীহ হাদীস ছাড়া কথা বলেন না। তাদের মধ্যে ও কিন্তু রয়েছে একই রকম পরস্পর বিরোধী ফতোয়া। এখন প্রশ্ন হলো, মাযহাব মানলে যদি বিভক্তি আসে, তবে এই সকল সউদী আলেমদের পরস্পর বিরোধী ফতোয়া দ্বারা কেন বিভক্তি আসবেনা?
এখানে সেরকম কিছু মাস’আলা উল্লেখ করবো-

মাস’আলাঃ১
_____________________
স্বর্ণ ও রৌপ্যের পাত্র ব্যবহার
বিন বাযের মাযহাবঃ
খাবার হোক অথবা পান ক রা হোক, বা অন্য কোন কিছুর জন্য হোক, কোন কিছুর জন্যই স্বর্ণ ও রৌপ্যের পাত্র ব্যবহার হারাম।
মাজমু উ ফাতাওয়া- ২৯/১০-৯

আলবানীর মাযহাবঃ
স্বর্ণের পাত্র ব্যবহার হারাম, তবে রৌপ্যের পাত্র খাবার এবং পান ক রা ছাড়া অন্য কাজে ব্যবহার জায়েয।
আছা ছামারুল মুসতাতাব-১/৭

বিন উছাইমিনের মাযহাবঃ
খাবার এবং পান ক রা ছাড়া অন্য যে কোন কাজের জন্য স্বর্ণ এবং রৌপ্যের পাত্র ব্যবহার ক রা জায়েয।
আশ শারহুল মুমাত্তা- ১/৮৬-৮৭
_____________________
ওরে বাপ্পুসরে!
একজন বলে হারাম, আরেকজন বলে জায়েয!!!!!
এমন পরস্পরবিরোধী ফতোয়ায় বিভক্তি নির্মূল হয়ে সুন্দর ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে, তাই না ভাইয়া?

মাস’আলাঃ২
______________________
মোজার উপর মাসেহ করে খোলে ফেললে অযু থাকবে কী না?
বিন বাযের মাযহাবঃ
মোজার উপর মাসেহ করে পরে যদি কেউ তা খুলে ফেলে তবে অযু বাতিল হয়ে যাবে।
মাজমু উ ফাতাওয়া- ২৯/৬৯
আলবানীর মাযহাবঃ
মোজার উপর মাসেহ করে পরে তা খোলে ফেললে অযু বাতিল হবেনা। বিশুদ্ধ থাকবে।
তামামুল মান্নাহ-১১৪-১১৫
_____________________
তাহলে কী বুঝা গেল?
এ অবস্থায় কেউ নামাজে দাড়ালে—
একজনের ফতোয়ায় তার নামাজ হচ্ছেনা। আবার অন্যজনের ফতোয়ায় নামাজ হবে।
ভাবুন, কী অবস্থা!!!
এমন পরস্পরবিরোধী ফতোয়ায় বিভক্তি নির্মূল হয়ে সুন্দর ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে, তাই না ভাইয়া?
মাস’আলাঃ৩
_____________________
জুতার উপর মাসেহ করা
আলবানীর মাযহাবঃ
জুতার উপর মাসেহ ক রা জায়েয। সহীহ হাদীসে আছে।
তামামুল মান্নাহ-১১৩-১১৪

বিন উসাইমিনের মাযহাবঃ
জুতার উপর মাসেহ করা জায়েয নেই।
লিকা আতুল বাবিল মাফতুহ-১/১৮৪
_______________________
বিষয়টি নামাজের সাথে সম্পর্কিত। তো এ অবস্থায় একজনের ফতোয়া নামাজ হবে, আবার অন্যজনের ফতোয়ায় নামাজই হচ্ছে না!!!!
সহীহ আকীদার হুজুরদের এ কেমন পরস্পর বিরোধী ফতোয়া!!!!!
এমন পরস্পরবিরোধী ফতোয়ায় বিভক্তি নির্মূল হয়ে সুন্দর ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে, তাই না ভাইয়া?
মাস’আলাঃ৪
_________________
গুপ্তাঙ্গ স্পর্শ করলে অযু ভঙ্গ হবে কী না?

বিন বাযের মাযহাবঃ
সামনের অথবা পেছনের গুপ্তাঙ্গ হাত দিয়ে স্পর্শ করলে অযু ভেঙ্গে যাবে। সেটা উত্তেজনায় হোক অথবা এমনিই হোক।
আদ দুরূসুল মুহিম্মাহ-৩/২৯৪
আলবানীর মাযহাবঃ
উত্তেজনা বশতঃ স্পর্শ করলে অযু ভেঙ্গে যাবে। অন্যথায় অযু থাকবে।
তামামুল মান্নাহ-১০৩
_____________________
তাহলে কী দাঁড়ালো?
বিন বাযের ফতোয়ায়- অযু করে কেউ যদি এমনিতেই গুপ্তাঙ্গ হাত দিয়ে স্পর্শ করে নামাজে দাড়ালে নামাজ হবে না। আবার আলবানীর ফতোয়া মতে নামাজ হবে।
এ কেমন ঝগড়া? সহীহ আকীদার হুজুরদের?
এমন পরস্পরবিরোধী ফতোয়ায় বিভক্তি নির্মূল হয়ে সুন্দর ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে, তাই না ভাইয়া?
মাস’আলাঃ৫
জুম’আর গোসল করলে কি ফরয গোসল আদায় হয়ে যাবে?
বিন বাযের মাযহাবঃ
জুম’আর দিন গোসল ফরয হলে জুম’আর জন্য দিনে গোসল ক রা হলে ফরয গোসল আদায় হয়ে যাবে। উভয়টির নিয়্যত ক রা হোক কিংবা না হোক। তবে উভয়টির নিয়্যাত ক রা উত্তম।
মাজমু উ ফাতাওয়া- ১২/৪০৬

আলবানী মাযহাবঃ
উভয়টির নিয়ত করলে ও কাজ হবেনা। ফরয গোসল আলাদা করে করতে হবে।
আল হাওয়ী মিন ফাতাওয়াল আলবানী-৪১৪
_________________
তো, আলবানী বলছেন, বিন বাযের ফতোয়া মানলে লোকটার জুম’আর নামাজই আদায় হবে না। কারণ সে এখনো নাপাক রয়ে গেছে। ফরজ গোসল আদায় হয়নি।
কী বলবেন এখন?
এমন পরস্পরবিরোধী ফতোয়ায় বিভক্তি নির্মূল হয়ে সুন্দর মিষ্টি মিষ্টি ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে, তাই না ভাইয়া?
মাস’আলাঃ৫
____________________
মসজিদে মেহরাব বানানোঃ
বিন বাযের মাযহাবঃ
মসজিদে মেহরাব বানানো বেদ’আত নয়, বরং এটা সালাফে সালিহীনের আমল। তাছাড়া এর মধ্যে অনেক ফায়েদা ও রয়েছে।
ফাতাওয়া নুরুন আলাদ দারব- ২/৭১৬
বিন উসাইমীনের মাযহাবঃ
মসজিদে মেহরাব বানানো সরাসরি সুন্নাহ নয়, তবে মুসতাহাব বলা যাবে। যেহেতু এর পক্ষে শরয়ী দলীল রয়েছে।
তবে বিশুদ্ধ কথা হচ্ছে, এটা মুবাহ। আদেশ নিষেধ কিছুই করা যাবে না।
আশ শারহুল মুমাত্তা’-২/৩৩২-৩৩৩
আমি অবাক হলাম, বিন উসাইমীনের কিয়াস দেখে। তারা তো বলেন, সহীহ হাদীসের আমল করবেন। কিন্তু এই মাস’আলায় তিনি করলেন কিয়াস।
কীভাবে?
তিনি বললেন,
হাদীসে নিষেধ এসেছে খ্রীস্টানদের মেহরাবের মত মেহরাব না বানাতে। তবে মেহরাব বানাতে গিয়ে তাদের অনুকুরন না করে অন্য পন্থায় বানালে তা মাকরূহ হবেনা।
কেননা মুল কথা হচ্ছে খ্রীস্টানদের সাথে সাদৃশ্য না রাখা। এখন যদি কোনভাবে সাদৃশ্য না হয়, তবে তা মাকরূহ হবে না।
আশ শারহুল মুমাত্তা’-২/৩৩২-৩৩৩

আলবানীর মাযহাবঃ
আলবানী ফতোয়া দিলেন, মসজিদে মাযহাব বানান বিদ’আহ। কিন্তু অবাক, তিনি ঐ দলীল দিলেন, যে দলিল থেকে কিয়াস করে বিন উসাইমীন মুসতাহাব ফতোয়া দিলেন!
এটা ছাড়াও আলবানী অন্য হাদীস দিয়ে দলীল দিয়েছেন,
১/তোমরা মসজিদে মেহরাব বানিওনা। (আলবানীর মতে , সনদ সহীহ)
২/ ইবনু মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু মসজিদের মেহরাবে নামাজ পড়া পছন্দ করতেন না।
সিলসিলাতুল আহাদীসিদ দায়ীফাহ- ১/৬৪১-৬৪৭
আছ ছামারুল মুসতাতাব-১/৪৭২-৪৭৮
(উল্লেখ্য, এ মাস’আলা নিয়ে আমাদের কোন দৃষ্টিভঙ্গি আলোচনা করছিনা)
প্রশ্নঃ
______________________
(কথা বলছি তাদের কথার স্টাইলে)
কেন ভাই?
হাদীসে স্পষ্ট বলা হয়ছে খ্রীস্টানদের মত মেহরাব না বানাতে। আলবানী এ স্পষ্ট হাদীস দিয়েই তো বেদ’আত ফতোয়া দিলেন। তো অন্যান্যরা এ বিষয়ে একমত না হয়ে কিয়াস ক রা শুরু করলেন কেন?
সহীহ হাদীস পাওয়া গেছে, তো ব্যাস। মামলা খালাস। এখানে কিয়াস এর কী প্রয়োজন ছিল?
প্রবলেমটা কী?

নেক টাই এর ইতিহাস

Standard

নেক টাই (গলায় টাই পরিধান, গলাবন্ধনী) এর ইতিহাসঃ
বিশেষ অনুরোধঃ পোস্টটি শেয়ার/ কপি করুন।
_________________________________
আধুনিক স্টাইলের টাই পরিধান করা মূলত শুরু হয়েছে (Thirty Years’ War) ’৩০ বছরের যুদ্ধ’ থেকে, যা স্থায়ী হয়েছিল ১৬১৮ থেকে ১৬৪৮ সন পর্যন্ত।
Thirty Years’ War বা ৩০ বছরের যুদ্ধ কী?
এটা ছিল মূলত সেন্ট্রাল ইউরোপে একের পর এক চলমান যুদ্ধ যা ইউরোপের ইতিহাসে সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক দ্বন্দ্ব হিসেবে রেকর্ড লাভ করে।
“Thirty Years War”. http://www.infoplease.com. Retrieved 24 May 2008.
প্রথমে এ যুদ্ধটি ছিল খ্রীস্টানদের দু দল প্রটেস্টান এবং ক্যাথোলিক এর মধ্যে। পরবর্তীতে এ যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে ইউরোপের বিভিন্ন শক্তি।
“::The Thirty Years War 1621 to 1626:”. historylearningsite.co.uk. Retrieved 22 May 2008.
তখন ক্রোয়েশিয়ান সৈন্যবাহিনীর কিছু সৈন্য গলায় ছোট্ট কাপড় নট করে বেঁধে প্যারিসীয়দের স্বার্থ বিষয়ক প্রশ্ন উত্থাপন করেছিল।
পরবর্তীতে এটা একটি আন্তর্জাতিক বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। এখন প্রতি বছর ১৮ ই অক্টোবর ক্রোয়েশিয়া সহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে যেমন টোকিও, সিডনি, কোমো, ডাবলিন সহ বিভিন্ন শহরে International Necktie Day অর্থাৎ আন্তর্জাতিক গলাবন্ধনী দিবস পালন করা হয়।
18TH OCTOBER – THE CRAVAT DAY!. Academia-cravatica.hr (October 18, 2003). Retrieved on 2013-08-08.
• Tie Talk. Tietalk.vpweb.com.au (June 30, 2010). Retrieved on 2013-08-08.
https://www.google.com.bd/url?sa=t&rct=j&q&esrc=s&source=web&cd=1&cad=rja&uact=8&ved=0CDUQFjAAahUKEwietNCAxJ3HAhUFKYgKHTqOB0c&url=https%3A%2F%2Fen.wikipedia.org%2Fwiki%2FNecktie&ei=2BTIVZ7oHIXSoAS6nJ64BA&usg=AFQjCNEH79ynxIb7dOok9jLcIaCTfnP_sQ

টাই এর রকমাদিঃ
_____________
বিভিন্ন রকমের টাই রয়েছে। এর মধ্যে নেক টাই, এস্কট টাই, বো টাই, বোলো টাই, যিপার টাই অন্যতম।

ইউনিফর্মঃ
_________________
ইউনাইটেড কিংডম, অস্ট্রেলিয়ায়, নিউজিল্যান্ড, সহ বিভিন্ন দেশের স্কুলের ইউনিফর্ম হিসেবে নেকটাই বা গলাবন্ধনী ব্যবহার করার প্রচলন রয়েছে।

নারীদের পোশাকঃ
_______________
অনেক দেশে এই নেক টাই বা গলাবন্ধনী নারীরা পরিধান করে থাকে, বিশেষ করে রেস্টুরেন্টে এবং পুলিশি চাকুরীতে।
প্রথমদিকে মহিলা সমাজে এটা তেমন চালু ছিলনা। কিন্তু পরবর্তীতে ডেনি কিটন নামক এক খ্রীস্টান অভিনেত্রী ১৯৭৭ সনে এ্যানি হল নামক একটি কমেডিতে অভিনয় কালে পরিধান করেন,আর তখন থেকেই এটা নারীদের মাঝে চালু হয়ে যায়।
• “Calender.” Seventeen Nov. 2002: 24.
• Pendergast, Sara; Tom Pendergast; Sarah Hermsen (2004). Fashion, Costume, and Culture. Clothing, Headwear, Body Decorations, and Footwear Through the Ages. Detroit: UXL. pp. 950–951. ISBN 0-7876-5422-1.
১৯৯৩ ইংরেজীতে ইউরোপ এবং আমেরিকাতে নারীদের নেক টাই পরিধান করাটা অন্যতম এক ফ্যাশনে পরিণত হয়ে যায়।
Kirkham, Pat (1999). The Gendered Object (2nd ed.). Manchester University Press. p. 164. ISBN 0-7190-4475-8.

নেক টাই স্বাস্থ্য সমস্যার কারণঃ
______________________
২০০৩ ইংরেজীতে British Journal of Ophthalmology তে বলা হয়েছে, সাস্থ্য গবেষণায় দেখা গেছে যে, নেক টাই পরিধান করলে ব্লাড প্রেসার বেড়ে যায়।
২০১১ ইংরেজীতে কোরিয়ানদের একটি রিসার্চ দল প্রকাশ করেছে যে, নেক টাই শক্তভাবে বাঁধার কারণে ঘাড় এবং কাঁধে ব্যাথা অনুভব হয়।
২০১২ ইংরেজীতে the Journal of Hospital Infection তে প্রকাশ ক রা হয়, নেক টাই পরিদাহ্ন ক রার কারণে ডাক্তারদের টাই এর ভেতরে বিভিন্ন ধরণের ব্যকটেরিয়া প্রবেশ করে চতুর্দিকে ছড়ায়।
https://www.google.com.bd/url?sa=t&rct=j&q&esrc=s&source=web&cd=3&cad=rja&uact=8&ved=0CDAQFjACahUKEwj6te7W1J3HAhXGMYgKHXZ3AMw&url=http%3A%2F%2Fwww.realmenrealstyle.com%2Fneckties-health-myths-truths%2F&ei=VCbIVfq7EcbjoAT27oHgDA&usg=AFQjCNFzU3yxFrAj5DG0nRgQYINOBZsvqA
বিবিসির এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, শক্তভাবে টাই পরলে অন্ধ হবার ঝুঁকি থাকে।
Professor Neville Osborne বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে বলেন, টাই দেহের রক্ত প্রবাহকে বাঁধা প্রদান করে।
https://www.google.com.bd/url?sa=t&rct=j&q&esrc=s&source=web&cd=9&cad=rja&uact=8&ved=0CGAQFjAIahUKEwj6te7W1J3HAhXGMYgKHXZ3AMw&url=http%3A%2F%2Fnews.bbc.co.uk%2F2%2Fhi%2Fhealth%2F3104093.stm&ei=VCbIVfq7EcbjoAT27oHgDA&usg=AFQjCNF9DmP_adG8xegY1rRDPeEuYL2Y7g

সারকথাঃ
___________________
মোট কথা-উপরের আলোচনায় দেখা গেল, নেক টাই-
১/ এক বিজাতীয় সংস্কৃতি। খ্রীস্টানদের দ্বারা এটার প্রচলন হয়েছে।
২/ নারীদের বিশেষ ফ্যাশন
৩/ স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকির কারণ।
৪/ প্রতি বছর বিধর্মীদের দ্বারা International Necktie Day অর্থাৎ আন্তর্জাতিক গলাবন্ধনী দিবস পালন ।

নেক টাইয়ের পক্ষে কিছু হুজুরদের উকালতি!!
________________________
এই যখন অবস্থা, তখন এই টাই এর পক্ষে মানে এটাকে জায়েয করার পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন আমাদের দেশের তথাকথিত নামধারী আহলে হাদীসের হুজুরেরা। পেছনে একটাই কারণ, যাকির নায়েক টাই পরেন, তাই এটাকে যে কোনভাবে জায়েয বানাতে হবে। হোক না এটা মহিলাদের ফ্যাশন। হোক না এটা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকির কারণ। তাতে কিছু যায় আসেনা।
আর নামধারী আহলে হাদীস হুজুর কাজী ইব্রাহীম তো ফতোয়া দিয়েই দিয়েছেন যে, নেক টাই শুরু হয়েছে মুসলমানদের দ্বারা। তাই এটা মুসলমানদের পোশাক।

কী অবাক!!

নামাজে রফে’ইয়াদাইন বারবার হাত উত্তোলন

Standard

নামাজের শুরুতে তাকবীরে তাহরীমার সময় কান পর্যন্ত হাত উঠানো সুন্নাত । নামাযের মধ্যে অন্য সময় রফে’ ইয়াদাইন বা হাত উঠানো জায়েজ নয় (সুন্নাত নয়) । নিম্নে এর দলীল পেশ করা হলোঃ

১. আলকামা রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্নিত –

قَالَ عَبْدُ اللَّهِ بْنُ مَسْعُودٍ أَلاَ أُصَلِّى بِكُمْ صَلاَةَ رَسُولِ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- قَالَ فَصَلَّى فَلَمْ يَرْفَعْ يَدَيْهِ إِلاَّ في أول مَرَّة. أخرجه أبو داود (٧٤٨) والترمذي (٢٥٧) والنسائي (١٠٥٨) وقال الترمذي : حديث حسن وصححه ابن حزم في المحلى ٤/٨٨ وقال أحمد شاكر في تعليقه على الترمذي : هذا الحديث صححه ابن حزم وغيره من الحفاظ وهو حديث صحيح وما قالوا في تعليقه ليس بعلة.

অর্থ: আব্দল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বলেছেন, আমি কি তোমাদেরকে নিয়ে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নামাযের মত নামায পড়বনা? একথা বলে তিনি নামায পড়লেন, এবং তাতে শুধু প্রথম বারই হাত তুলেছিলেন আর কখনো হাত উঠান নি।

Reference :-
★আবূ দাউদ শরীফ- ৭৪৮,
★তিরমিযী শরীফ-২৫৭,
★নাসায়ী শরীফ-১০৫৮,
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা- ২৪৫৬,
★মুসনাদে আহমদ, ১খ, ৩৮৮পৃ।
★জামউল মাসানীদ

হাদিসের আরো রেফারেন্স সহ মান ও সনদ বিশ্লেষন :-

♦ইমাম তিরমিযি (রহ) একে হাসান বলেছেন।তিনি বলেন,”
‘হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. এর (রাফয়ে ইয়াদাইন না করা সংক্রান্ত) হাদীস ‘হাসান’ পর্যায়ে উত্তীর্ণ এবং অনেক আহলে ইলম সাহাবা-তাবেয়ীন এই মত পোষন করতেন। ইমাম সুফিয়ান ছাওরী রহ. ও কুফাবাসী ফকীহগণ এই ফতোয়া দিয়েছেন।
(জামে তিরমিযী : ১/৩৫)

♦মুহাদ্দিস আহমদ শাকির এ হাদীস সম্পর্কে বলেন-
“ইবনে হাযম ও অন্যান্য হাফিজুল হাদীস উপরের হাদীসটিকে ‘সহীহ’ বলেছেন।”
(জামে তিরমিযী, তাহক্বীক আহমদ শাকির ২/৪১)

♦আল্লামা ইবনুত তুরকামানী (রহ) বলেন,
“এই হাদীসের সকল রাবী সহীহ মুসলিমের রাবী”
(আল-জাওহারুন নাকী : ২/৭৮)

♦ইবনে মাসউদ (রা) একদল সাহাবীর সামনে হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর নামায পেশ করেছেন, আর কোন সাহাবী তা অস্বীকার করেননি । বুঝা গেলো, সকলেই তাঁকে সমর্থন করেছেন। যদি হাত উত্তোলন সুন্নাত হতো, তাহলে  সাহাবায়ে কেরাম এর উপর অবশ্যই আপত্তি করতেন। কেননা তাঁরা সকলেই হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলা ইহি ওয়াসাল্লাম)এর নামায দেখেছিলেন ।

♦ ইমাম তিরমীযি বলেন, অনেক ওলামায়ে সাহাবা ও তাবেয়ীন উভয় হাত তুলতেন না। তাদের আমলের দ্বারা এ হাদিছের সর্মথন হলো ।

♦আবূ দাঊদ হযরত সুফয়ান থেকে বর্ণনা করেছেন –
হযরত সুফয়ান এ সনদে বলেন যে, হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাদ্বি.) প্রথমবার হাত তুলেছেন। কোন কোন রাবী বলেন একবারই হাত তুলেছেন।

♦ ইবরাহীম নাখায়ী রহঃ হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে।
রেফারেন্স :-
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৪৫৮;
★তাহাবী শরীফ, ১খ, ১১১পৃ;
★মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাক, ২খ, ৭১পৃ। এটির সনদ সহীহ।

♦ ইমাম  আবু হানিফা (রাদিঃ) যিনি যুগের জলীলুল কদর এবং আযীমুশশান মুজতাহিদ ছিলেন- তিনি এ হাদিসকে কবুল করেছেন এবং এর উপর আমল করেছেন।
★ফতহুল ক্বাদীর
★মিশকাত শরহে মিরকাত)

♦ইমাম মুহাম্মদ ‘কিতাবুল আছারে’ ইমাম আবু হানিফা (রাদি.) হাম্মাদ থেকে তিনি ইবরাহীম নাখঈ থেকে এ ভাবে বর্ণনা করেন-

اِنَّهُ قَالَ لَاتَرْفَعُ الْاَيْدِىْ فِيْ شَىْئٍ مِنْ صَلوتِكَ بَعْدَ الْمَرَّةِ الْاُوْلى

অর্থাৎ, তিনি বলেন, নামাযের মধ্যে প্রথমবার ছাড়া হাত  উত্তোলন করো না।

♦আবূ ইসহাক সাবিয়ী রহঃ উক্ত সনদে বর্ননা করেছেন
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৪৬১। এর সনদ অত্যন্ত সহীহ।

২. হযরত বারা ইবনে আযিব রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত:-

أن رسول الله صلى الله عليه وسلم كان إذا افتتح الصلاة رفع يديه إلى قريب من أذنيه ثم لا يعود. أخرجه أبو داود (٧٥٢) وابن أبي شيبة (٢٤٥٥) والطحاوي ١/ — وعبد الرزاق في المصنف (٢٥٣٠) والدارقطني (٢٢) فرواه عن البراء ثقتان عدي ين ثابت عند الدارقطني وعبد الرحمن بن أبي ليلى عند غيره وعنهما يزيد بن أبي زياد والحكم بن عتيبة وعيسى والحكم وعيسى ثقتان ويزيد صدوق عند البخاري ومسلم وصحح حديثه الترمذي رقم ( ) وعن يزيد ابن أبي ليلى والسفيانان وشريك و اسرائيل واسماعيل بن زكريا والإمام أبو حنيفة وغيرهم.

অর্থ (সংক্ষেপে) : রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নামায শুরু করার সময় কানের কাছাকাছি হাত তুলতেন। এরপর আর কোথাও হাত তুলতেন না।

Reference :-
★আবূ দাউদ শরীফ-৭৫২,
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা-২৪৫৫,
★তাহাবী শরীফ, ১ম খন্ড
★তানযীমুল আশতাত, ১ম খন্ড (ঊর্দূ), পৃঃ ২৯৩

হাদিসের মান :-

♦বারা ইবনে আযিব (রাদ্বি.) এর হাদিছটি ইমাম তিরমিযী এভাবে বর্ণনা করেছেন- فِى الْبَابِ عَنِ البَرَاءِ

♦ইমাম আবু দাউদ হযরত বারা ইবনে আযিব(রাদ্বি.) থেকে বর্ণনা বরেনঃ

قَالَ رَأيْتُ رَسُوْلَ اللهِ صَلَّى عَلَيْهِ وَسَلَّمَ رَفَعَ يَدَيْهِ حِيْنَ اِفْتَتَحَ الصَّلَوةَ ثُمَّ لَمْ يَرْفَعُهُمَا حَتَّى اِنْصَرَفَ

অর্থাৎ,‘তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কে দেখেছি যখন তিনি নামায আরম্ভ করেছেন, তখন উভয় হাত উত্তোলন করেছেন। পুনরায় নামায থেকে অবসর হওয়ার পূর্বে হাত তোলেননি।

♦দারে কুত্বনী হযরত বারা ইবনে আযিব (রাদ্বি.) থেকে বর্ণনা  করেছেন-
অর্থাৎ, ‘তিনি নবী করীম  (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে দেখেছেন, যখন হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নামায শুরু করেন উভয় হাত এ পরিমাণ তুললেন যে, তা কানদ্বয়ের সমান্তরাল হয়ে গেলে। অতঃপর নামায থেকে অবসর হওয়ার পূর্বে আর কোন ক্ষেত্রেই হাত উত্তোলন করেননি ।

৩. হযরত ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত: –

قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : ترفع الأيدي في سبعة مواطن، افتتاح الصلاة واستقبال البيت والصفا والمروة والموقفين وعند الحجر، أخرجه ابن أبي شيبة (٢٤٦٥) موقوفا والطبراني (١٢٠٧٢) مرفوعا.

অর্থ: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, সাতটি জায়গায় হাত তুলতে হবে। ১. নামাযের শুরুতে, ২. কাবা শরীফের সামনে আসলে, ৩. সাফা পাহাড়ে উঠলে, ৪. মারওয়া পাহাড়ে উঠলে। ৫. আরাফায় ৬. মুযাদালিফায় ৭. হাজরে আসওয়াদের সামনে।

Reference :-
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা-২৪৬৫ (সাহাবীর বক্তব্যরূপে)।
★তাবারানী, মুজামে কাবীর(রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বক্তব্যরূপে) নং ১২০৭২।
★সুনানে বায়হবাকী, ৫খ, ৭২-৭৩ পৃ।
★ হায়ছামী র. হযরত ইবনে উমর রা. থেকেও মারফূরূপে এটি উল্লেখ করেছেন।(দ্র, ২খ, ২২২ পৃ)

হাদিসের সনদ:-

♦হাকিম ও বায়হাক্বী হযরত আবদুল্লাহ  ইবনে  আব্বাস ও আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রাদিয়াল্লাহু আনহু) থেকে বণর্না করেন-

‘হুযুর  (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) ইরশাদ করেছেন, সাত জায়গায় হাত উঠাতে হবে- নামায শুরু করার সময়, কা’বার দিকে মুখ করার সময়, সাফা ও মারওয়া পাহাড়ে, দুইমাওকিফ তথা মিনা ও মুযদালিফায় এবং দু’জুমরা’র সামনে।

♦এ হাদীসটি বাযার হযরত ইবনে ওমর (রাদিঃ) থেকে,

♦হাফিজুল হাদিস ইবনে আবি শায়বাহ হযরত ইবনে আব্বাস (রাদ্বি) থেকে,

♦ইমাম বায়হাকী হযরত ইবনে আব্বাস (রাদ্বি.) থেকে,

♦তাবরানী এবং বুখারী কিতাবুল মুফরাদে হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাদিঃ) থেকে কিছুটা পার্থক্যের সাথে উল্লেখ করেছেন।

♦কোন কোন রেওয়ায়াতে” দু’ঈদের নামাযেরও উল্লেখ রয়েছে ।

৪. হযরত জাবির ইবনে সামুরা রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত:-

خَرَجَ عَلَيْنَا رَسُولُ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- فَقَالَ مَا لِى أَرَاكُمْ رَافِعِى أَيْدِيكُمْ كَأَنَّهَا أَذْنَابُ خَيْلٍ شُمْسٍ اسْكُنُوا فِى الصَّلاَةِ গ্ধ. أخرجه مسلم (٤٣٠)

অর্থ: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের নিকট এসে বললেন, ব্যাপার কি? তোমাদেরকে দেখছি বেয়াড়া ঘোড়ার লেজের মতো করে হাত ওঠাও। নামাযে স্থির থাক।

Reference :-
★মুসলিম শরীফ-হাদীস নং ৪৩০
★আবু দাউদ ১;১০৯
★সুনানে নাসায়ী ১;১১৭

৫. হযরত ইবনে উমর রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বলেছেনঃ –

رأيت رسول الله صلى الله عليه وسلم إذا أفتتح الصلاة رفع يديه حذو منكبيه وإذا أراد أن يركع وبعد ما يرفع رأسه من الركوع فلا يرفع ولابين السجدتين. أخرجه الحميدي في مسنده من طريق سفيان قال ثنا الزهري قال أخبرني سالم بن عبد الله عن أبيه. وسنده صحيح. ٢/٢٧٧ رقم ٦١٤.

অর্থ: আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে দেখেছি, তিনি যখন নামায শুরু করতেন তখন কাঁধ বরাবর হাত ওঠাতেন। আর যখন রুকু করতে চাইতেন এবং রুকু থেকে উঠতেন, তখন হাত ওঠাতেন না, দুই সেজদার মাঝখানেও না।

Reference :-
★হুমায়দী (ইমাম বুখারীর উস্তাদ) তাঁর মুসনাদে এটি উদ্ধৃত করেছেন। ২খ, ২৭৭ পৃ,(হাদীস নং ৬১৪)। এর সনদ সহীহ।

হাদিসের সনদ বিশ্লেষণ :-

★হাফিজ মুগলতাঈ রহঃ বলেছেন, এর সনদে কোন সমস্যা নেই।
★শায়খ আবেদ সিন্ধী রহঃ বলেছেন, আমার দৃষ্টিতে এটি অবশ্যই সহীহ।
★ইমাম মালিক রহঃ থেকে ইবনুল কাসিম ও ইবনে ওয়াহব রহঃ একবার হাত ওঠানোর যে বর্ণনা পেশ করেছেন, যা আল মুদাওয়ানা’য় বিদ্ধৃত হয়েছে, তা এই বর্ণনার সমর্থন করে। এমনিভাবে হযরত ইবনে উমর রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত পূর্বের হাদীসটি এবং তাঁর আমলও এর সমর্থক।
★ইবনে আবী শায়বা রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু স্বীয় মুসান্নাফে ও
★তাহাবী রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু শরহে মাআনিল আছার গ্রন্থে
★ ইমাম মুহাম্মদ রহঃ ও ওনার মুয়াত্তায় হযরত ইবনে উমর রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু এর অনুরূপ আমলের কথা উদ্ধৃত করেছেন।
♦বিখ্যাত তাবেয়ী মুজাহিদ রহ. উকত সনদ বর্ননা করেছেন
Reference :-
★তাহাবী : ১/১৬৩,
★ইবনে আবী শাইবা : ২/৪১৮ হাদীছ নং ২৪৬৭ [শায়খ আওয়ামা দা.বা. তাহক্বীকৃত নুসখা)
সনদ বিশ্লেষণ :-
♦আল্লামা  তুরকুমানী রহ. বলেছেন, ‘এ বর্ণনার সনদ সহীহ’
(আল-জাওহারুন নাকী)

৬. হযরত আলী রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু এর আমল:

ক) আসিম ইবনে কুলায়ব রহঃ তার পিতার সূত্রে বর্ণনা করেছেনঃ –

عن عاصم بن كليب عن أبيه أن عليا رضـ كان يرفع يديه في أول تكبيرة من الصلاة ثم لا يرفع بعد. أخرجه ابن أبي شيبة ٢٤٥٧ والطحاوي ١/١١٠ والبيهقي ٢/٨٠ صححه الزيلعي وقال الحافظ في الدراية : رجاله كلهم ثقات وقال العيني : صحيح على شرط مسلم.

অর্থ: হযরত আলী রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু নামাযে শুধু প্রথম তাকবীরের সময় হাত তুলতেন। এরপর আর কোথাও তুলতেন না।

Reference :-
★সুনানে বায়হাকী : ২/৮০
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৪৫৭;
★তাহাবী শরীফ, ১খ, ১১০পৃ।
★মুয়াত্তা ইমাম মুহাম্মাদ (ঊর্দূ), পৃঃ ৫৫
★তানযীমুল আশতাত, ১ম খন্ড (ঊর্দূ), পৃঃ ২৯৫

সনদ বিশ্লেষণ :-

♦আল্লামা যায়লায়ী রহ. বর্ণনাটিকে ‘সহীহ’ বলেছেন।
♦সহীহ বুখারীর বিখ্যাত ভাষ্যকার আল্লামা ইবনে হাজর আসকালানী রহ. এই বর্ণনার সকল রাবীকে ‘ছিকাহ’ (নির্ভরযোগ্য) বলেছেন।
♦সহীহ বুখারীর অপর ভাষ্যকার আল্লামা আইনী রহ. বলেন, “এ সনদটি সহীহ মুসলিমের সনদের সমমানের।’
(নাসবুর রায়াহ : ১/৪০৬, উমদাতুল কারী :৫/২৭৪, দিরায়াহ : ১/১১৩)

খ) ইমাম বায়হাকি ও ইমাম তাহাবী বর্ননা করেন:-

أَنَّهُ كَانَ يَرْفَعُ يَدَيْهِ فِى التَّكْبِيْرَةِ الْاُوْلى مِنَ الصَّلوةِ ثُمَّ لَايَرْفَعُ فِى شَىْئٍ مِنْهَا

তিনি (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নামাযের প্রথম তাকবীরে তার উভয় হাত উত্তোলন করতেন। এরপর আর কোন অবস্থায়ই হাত উঠাতেন না।

Reference :
★ইমাম বায়হাকি : সুনানে বায়হাকি
★ইমাম তাহাবী : তাহাবী

৭. হযরত আসওয়াদ (রা.) বলেছেনঃ –

رأيت عمر بن خطاب رض يرفع يديه في أول تكبيرة ثم لا يعود. أخرجه ابن أبي شيبة (٢٤٦٩) والطحاوي ١/١١١ وصححه الزيلعي وقال الحافظ ابن حجر في الدراية : وهذا رجاله ثقات. وقال المارديني في الجوهر النقي ٢/٧٥: هذا سند صحيح على شرط مسلم.

অর্থ: আমি হযরত উমর ইবনুল খাত্তাব রা.কে দেখেছি, তিনি প্রথম তাকবীরের সময় হাত তুলতেন; পরে আর তুলতেন না।

Reference :-
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৪৬৯;
★তাহাবী: ১/১৬৪

সনদ বিশ্লেষণ :-

♦আল্লামা যায়লায়ী রহ. এই হাদীসকে ‘সহীহ’ বলেছেন।
♦সহীহ বুখারীর বিখ্যাত ভাষ্যকার আল্লামা ইবনে হাজর আসকালানী রহ. এই বর্ণনার সকল রাবীকে ‘ছিকাহ’ (নির্ভরযোগ্য) বলেছেন।
♦আলজাওহারুন নাকী গ্রন্থে বলা হয়েছে ‘এই হাদীসের সনদ সহীহ মুসলিমের সনদের মতো শক্তিশালী।’
♦ইমাম তাহাবী রহ. বলেন, ‘হযরত ওমর রা. এর আমল এবং এ বিষয়ে সাহাবায়ে কেরাম রা.-এর কোনরূপ বিরোধিতা না থাকায় প্রমাণ করে যে, সেই সঠিক পদ্ধতি এবং এ পদ্ধতির বিরোধিতা করা কারও জন্য উচিত নয়।’
(তাহাবী : ১/১৬৪)

৮. হযরত আব্বাস ইবনুয যুবায়র রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত: – أن رسول الله صلى الله عليه وسلم كان إذا افتتح الصلاة رفع يديه في أول الصلاة ثم لم يرفعهما في شيئ حتى يفرغ. أخرجه البيهقي في الخلافيات. كما في نصب الراية ١/٤٠٤

অর্থ: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন নামায শুরু করতেন, তখন শুধু নামাযের শুরুতেই উভয় হাত তুলতেন। এর পর নামায শেষ করা পর্যন্ত আর কোথাও হাত তুলতেননা।

Reference :-
★বায়হাকী তার ‘আল-খিলাফিয়াত’ গ্রন্থে এটি উদ্ধৃত করেছেন।এ হাদীসটির সনদ সম্পর্কে আল্লামা আনোয়ার শাহ কাশ্মীরী রহঃ বলেছেন, এর বর্ণনাকারীরা সকলেই বিশ্বস্ত।
★বুখারী শরীফের ১ম খণ্ডের টীকা, পৃঃ ১০

৯. আবূ দাঊদ হযরত সুফয়ান থেকে বর্ণনা করেছেন –

حَدَّثَنَا سُفْيَانُ اِسْنَادُهُ بِهَذَا قَالَ رَفَعَ يَدَيْهِ فِىْ اَوَّلِ مَرَّةٍ وَقَالَ بَعْضُهُمْ مَرَّةً وَاحِدَة

অর্থাৎ হযরত সুফয়ান এ সনদে বলেন যে, হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাদ্বি.) প্রথমবার হাত তুলেছেন। কোন কোন রাবী বলেন একবারই হাত তুলেছেন।

১০. ইবরাহীম নাখায়ী রহঃ হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু সম্পর্কে বর্ণনা করেনঃ –

أنه كان يرفع يديه في أول ما يفتتح ثم لا يرفعهما . أخرجه ابن أبي شيبة (٢٤٥٨) والطحاوي ١/١١١ وعبد الرزاق ٢/٧١ وإسناده صحيح.

অর্থ: তিনি নামায শুরু করার সময় হাত তুলতেন। পরে আর কোথাও হাত তুলতেন না।

Reference :-
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৪৫৮;
★তাহাবী শরীফ, ১খ, ১১১পৃ;
★মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাক, ২খ, ৭১পৃ। এটির সনদ সহীহ।

১১. আবূ ইসহাক সাবিয়ী রহঃ বলেন,

كان أصحاب عبد الله رض وأصحاب علي رض لا يرفعون أيديهم إلا في افتتاح الصلاة. قال وكيع: ثم لا يعودون. أخرجه ابن أبي شيبة بسند صحيح جدا (٢٤٦١)

অর্থ: হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু এর শাগরেদগণ এবং হযরত আলী কাররামাল্লাহু ওয়াজহু উনার শাগরেদগণ কেবল মাত্র নামাযের শুরুতে হাত ওঠাতেন। ওয়াকী রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বলেন, এর পর আর হাত ওঠাতেন না।

Reference :-
★মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৪৬১। এর সনদ অত্যন্ত সহীহ।

এতএব এতসব দলিলাদ্বিল্লার পরো যদি কেউ উল্টো তর্ক করে না মেনে নিজে গুমরাহ হয় এবং অন্যজনকেও গুমরাহ করে তাহলে এর জন্যে সে নিজে সম্পূর্ণ দায়ি হবে।

১২) বিখ্যাত তাবেয়ী মুজাহিদ রহ. বলেন-

‘আমি আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা.-এর পিছনে নামায পড়েছি। তিনি প্রথম তাকবীর ছাড়া অন্য সময় রাফয়ে ইয়াদাইন করতেন না।’

Reference :-
★তাহাবী : ১/১৬৩,
★ইবনে আবী শাইবা : ২/৪১৮ হাদীছ নং ২৪৬৭ [শায়খ আওয়ামা দা.বা. তাহক্বীকৃত নুসখা)
সনদ বিশ্লেষণ :-
♦আল্লামা  তুরকুমানী রহ. বলেছেন, ‘এ বর্ণনার সনদ সহীহ’
(আল-জাওহারুন নাকী)

১৩) উস্তাযুল মুহাদ্দিসীন ইমাম মালিক রহ. (জন্ম ৯৩ হিজরীতে)। ইলমের অন্যতম কেন্দ্রভূমি মদীনা মুনাওয়ারায় তাঁর জীবন কেটেছে। সাহাবায়ে কেরামের আমল এবং হাদীস শরীফের বিশাল ভান্ডার তার সামনে ছিল। তিনি শরীয়তের বিধি-বিধানের ক্ষেত্রে মদীনাবাসীর কর্মকে বুনিয়াদী বিষয় বলে মনে করতেন।

★ইমাম মালেক (রহ) এর প্রসিদ্ধ সাগরিত আল্লামা ইবনুল কাসিম রহ. রাফয়ে ইয়াদাইন প্রসঙ্গে তাঁর যে সিদ্ধান্ত উল্লেখ করেছেন তা এই-
“ইমাম মালিক রহ. বলেছেন, “নামাযের সূচনা ছাড়া অন্য তাকবীরের সময়, নামায়ে ঝুঁকার সময় কিংবা সোজা হওয়ার সময় রাফয়ে ইয়াদাইন করার নিয়ম আমার জানা নাই।”

★ইবনুল কাসিম রহ. আরো বলেন,
“ইমাম মলিক নামাযের প্রথম তাকবীর ছাড়া অন্যান্য ক্ষেত্রে রাফয়ে ইয়াদাইন করার পদ্ধতিকে (দলীলের বিবেচনায়) দুর্বল মনে করতেন।”
(আল-মুদাওয়ানাতুল কুবরা)

১৪) ইমাম তাহাবী সাইয়িদুনা আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাদ্বি.) এবং আসেম ইবনে কুলাইব(রা) থেকে তিনি আলী (রা) থেকে বর্ণনা করেছেন:

عَنِ النَّبِىِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اَنَّهُ كَانَ يَرْفَعُ يَدَيْهِ فِىْ أَوَّلِ تَكْبِيْرَةٍ ثُمَّ لَايَعُوْد

অর্থাৎ, ‘হুযূর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) থেকে রেওয়ায়াত করেন যে, তিনি (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) প্রথম তাকবীরে উভয় হাত তুলতেন অতঃপর তা আর কখনো করতেন না।

Reference :-
★মুয়াত্তা ইমাম মুহাম্মাদ (ঊর্দূ), পৃঃ ৫৫
★তানযীমুল আশতাত, ১ম খন্ড (ঊর্দূ), পৃঃ ২৯৫

১৫) বুখারী শরীফের শরাহ ‘আইনী’ গ্রন্থের তৃতীয় খন্ডে লেখা হয়েছে যে,
হযরত ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্নিত হয়েছে যে, তিনি বলেছেন, আশারায়ে মুবাশশারাহ- যাদেরকে নবী করিম (সঃ) বেহেস্তের সুসংবাদ দিয়েছেন তারা নামায আরম্ভ করার সময় ব্যতীত দুই হাত উঠাতেন না । অর্থাৎ রফে’ ইয়াদাইন করতেন না ।
Reference :-
★শরহে বুখারী ইমাম বদরুদ্দীন আইনী গ্রন্থ, ৩য় খন্ড, পৃঃ ৭

১৬) হযরত হাম্মাদ ইব্রাহীম নাখয়ী (তাবীঈ) বলেছেন যে, তোমরা নামাযে তাকবীরে উ’লা ছাড়া অন্য কোন সময় হাত উঠাবে না ।
Reference :-
★মুয়াত্তা ইমাম মুহাম্মাদ (ঊর্দূ), পৃঃ ৫৫
★জামিউস মাসানীদ : ১/৩৫৩
★আছারুস সুনান

১৭) হযরত শাহ্‌ ওয়ালিউল্লাহ্‌ মুহাদ্দিস দেহলভী এবং তাঁর সুযোগ্য পুত্র ও পৌত্রগণ যারা এই উপমহাদেশে হাদিস শাস্ত্রের প্রচার ও
প্রসার ঘটিয়েছেন তারা নামাযে রফে’ ইয়াদাইন করেন নাই ।
★হানাফীদের কয়েকটি জরুরী মাসায়েল (লেখকঃ মাওলানা মোঃ আবু বকর সিদ্দীক)

১৮) আল্লামা ইবনে আবদুল বার রহ. রাফয়ে ইয়াদাইন সম্পর্কে সাহাবায়ে কেরামের অবস্থান বর্ণনা করেছেন-

“হযরত হাসান রা. সাহাবায়ে কেরামের কর্মনীতি সম্পর্কে বলেছেন, ‘তাদের মধ্যে যারা রাফয়ে ইয়াদাইন করতেন তারা রাফয়ে ইয়াদাইন পরিত্যাগকারীদের উপর আপত্তি করতেন না’।
এ থেকে বোঝা যায়, রাফয়ে ইয়াদাইন জরুরি কিছু নয়।”
Reference :-
আত-তামহীদ : ৯/২২৬

১৯) হযরত আবু বকর রা: ও হযরত উমর রা: সমস্ত নামাযে শুধু তাকবিরে তাহরিমার সময় রাফয়ে ইয়াদাইন করতেন।
Reference :-
★কিতাবুল মুজমা ইমাম ইসমাঈলী ২য় খন্ড

♦♦রাফউল ইয়াদাইন করা ও না করা এই ২ হাদিসের মধ্যে কোন হাদিসটা বেশি শক্তিশালী,শ্রেষ্ঠ এবং অধিক গ্রহনযোগ্য ?♦♦

♦পরিশেষে আমরা ইমামে আযম আবু হানীফার (রাদ্বি.)ঐ বিতর্ক উপস্থাপন করেছি, যা উভয় হাত উত্তোলন এর ব্যাপারে মক্কা মুয়াযযামায় ইমাম আওযাঈ (রাদ্বি.) এর সাথে হয়েছিল।

২০. ইমাম আবু মুহাম্মদ বোখারী মুহাদ্দিস (রাহ.) হযরত সুফয়ান ইবনে উয়াইনা (রাদ্বি.) থেকে বর্ণনা করেছেন যে,

একবার হযরত ইমামে আযম (রাদ্বি.) এবং ইমাম আওযাঈ (রাদ্বি) এর সাক্ষাত হলো মক্কা মুয়াযযামার ‘দারুল হানাতীন’ নামক স্থানে। এ দ’জন বুর্যুগের মধ্যে কিছু কথাবার্তা হল। বির্তকটি হুবহু নিম্নে উদ্ধৃত করা হলো।

ইমাম আওযাঈঃ আপনি রুকুতে যাওয়ার সময় এবং রুকু হতে উঠার সময় উভয় হাত উত্তোলন করেন না কেন?

ইমাম আবু হানিফা : এ জন্যই যে, এ সব জায়গায় উভয় হাত উত্তোলন হুযুর  (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) দ্বারা প্রমাণিত নয়।

ইমাম আওযাঈ : আপনি এটা কিভাবে বললেন? আমি আপনাকে উভয় হাত তোলার ব্যাপারে সহীহ হাদিস শুনাচ্ছি-

‘আমাকে যুহরী হাদিস বর্ণনা করেছেন

তিনি সালিম থেকে

সালিম নিজ পিতা থেকে

তিনি রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু   আলাইহি ওয়া সাল্লাম) থেকে বর্ণনা করেন

যে “রাসুলুল্লাহ  (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) উভয় হাত তুলতেন, যখন নামায শুরু করতেন এবং রুকুর সময় আর রুকু থেকে উঠার সময়।”

ইমামে আযম : আমার কাছে এর  চেয়ে বেশী শক্তিশালী হাদিস এর বিপরীতে বিদ্যমান।

ইমাম আওযাঈ : আচ্ছা! জলদি পেশ করুন।
ইমামে আযম : নিন। শুনুন ।

* আমার কাছে হযরত হাম্মাদ হাদীস বণর্না করেছেন

তিনি ইব্রাহিম নাখঈ থেকে

তিনি হযরত আলক্বামা এবং আসওয়াদ থেকে

তাঁরা হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসঊদ (রাদি:) থেকে বর্ণনা করেন

তিনি রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) থেকে নিজে দেখেছেন,

“নিশ্চিয়ই নবী করীম  (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) শুধু মাত্র নামাযের শুরুতে উভয় হাত উত্তোলন করতেন। এরপর আর কখনো পুনরাবৃত্তি করতেন না।”

ইমাম আওযাঈ: আমার পেশ কৃত হাদীসের উপর আপনার উপস্থাপিত হাদীসের শ্রেষ্ঠত্ব কি? যার কারণে এটা গ্রহন করলেন, আর আমার পেশকৃত হাদিস ছেড়ে দিলেন।

ইমামে আযম : এ, জন্যই যে,
★‘হাম্মদ’ ‘যুহরী’র চেয়ে বড় আলিম ও ফক্বীহ।
★আর ইব্রাহিম নাখঈ সালিম এর চেয়ে বড় আলিম ও ফক্বীহ।
★আলক্বামা ‘সালিমে’র পিতা অর্থাৎ, ‘আব্দুল্লাহ ইবনে ওমরের’ চেয়ে ইলমের ক্ষেত্রে কম নন।
★‘আসওয়াদ’ অনেক বড় খোদা ভিরু ফক্বীহ এবং উত্তম।
★আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাদি.) হলেন ফক্বীহ। কিরাআতের ক্ষেত্রে এবং হুযুর পাক (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)  এর সাহচর্যের ক্ষেত্রে হযরত ইবনে ওমর (রাদি.) থেকে অনেক বড় ছিলেন। শৈশব থেকে হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর সাথে থাকতেন। সুতরাং আমার হাদিসখানার রাবী আপনার হাদীসের রাবীদের চেয়ে ইলম ও মর্যাদার দিক থেকে শ্রেষ্ঠ। এ জন্যই আমার পেশকৃত হাদীস বেশী শক্তিশালী এবং গ্রহনযোগ্য। ইমাম আওযাঈ নিশ্চুপ হয়ে গেলেন।

Reference :
★মিশকাত শরহে মিরকাত
★ফতহুল কাদির

♦♦অনেক ইমামগন এই রাফে ইয়াদাইন সম্পর্কিত হাদিস রহিত হয়ে গিয়েছে বলে মত দিয়েছেন ♦♦

১) বিশিষ্ট তাবেয়ী হযরত মুজাহিদ (রহ) হতে বর্নিত আছে- তিনি বলেছেন যে, আমি হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর (রাঃ) এর পশ্চাতে নামায পড়েছি । তিন শুধু প্রথম তাকবীরে তাহরীমার সময় নামাযের মধ্যে হাত উঠিয়েছেন । ইমাম তাহাবী বলেন যে, এই আব্দুল্লাহ ইবনে উমর (রাঃ) ই রাসূল (সঃ) কে প্রথম রফে’ ইয়াদাইন করতে দেখেছিলেন । কিন্তু (পরে কারনবশত রাসূল (সঃ) এর ইন্তিকালের পর হজরত ইবনে উমর রফে’ ইয়াদাইন পরিত্যাগ করেছিলেন । এর দ্বারা বুঝা যায় যে, রাসূল (সঃ) এর এই আমলটি মনসূখ বা রহিত হয়ে গেছে । এই জন্যেই হযরত ইবনে উমর পরবর্তী সময়ে এই আমল পরিত্যাগ করেছিলেন ।
Reference :-
★আনোয়ারুল মুকাল্লেদীণ, ইফাবা, পৃঃ ৫৫
★তাহাবী : ১/১৬৩,
★ইবনে আবী শাইবা : ২/৪১৮ হাদীছ নং ২৪৬৭ [শায়খ আওয়ামা দা.বা. তাহক্বীকৃত নুসখা)

২) হযরত ইবনে আব্বাস (রাঃ) বলেছিলেন- যে দশজন সাহাবীর বেহেশতী হওয়ার সংবাদ দেয়া হয়েছে, তারা নামায আরম্ভকালে একবার মাত্র রফে’ ইয়াদাইন ব্যতীত তাঁদের হাত উঠাতেন না ।
ইমাম তাহাবী ও আইনী প্রমাণ করেছেন যে, আবূ হুমায়দের রফে’ ইয়াদাইনের হাদীস কয়েকটি কারনে যয়ীফ সাব্যস্ত হয়েছে । সেই দশজন সাহাবা আবূ হুমায়দের সাক্ষাতে ছিলেন, কিন্তু তাঁদের রফে’ ইয়াদাইনের কথা প্রমাণিত হয় না । ইমাম বুখারী যে ১৭জন সাহাবার রফে’ ইয়াদাইনের হাদীস বর্ননা করেছিলেন, তাঁদের মধ্যে হযরত উমর, হযরত আলী, ইবনে উমার, আবূ সাইদ ইবনে যুবাইর রফে’ ইয়াদাইন ত্যাগ করেছিলেন। ইমাম তাহাবী হযরত আনাস ও হযরত আবূ হুরায়রায় হাদীস যয়ীফ সাব্যস্ত করেছেন । আল্লামা জায়লাঈ হজর আবূ সাইদ, হযরত ইবনে আব্বাস, হযরত ইবনে যোবায়ের ও হযরত আবূ হুরায়রার হাদিসকে যয়ীফ বলেছেন । সুতরাং ইমাম বুখারীর রফে’ ইয়ায়াদাইনের হাদীস গ্রহণযোগ্য নয় ।
Reference :-
★সাইফুল মুকাল্লেদীন, প্রণেতা মাওঃ ইব্রাহীম মহব্বতপুরী, পৃঃ ৩৫
★নিহায়া
★কিফায়া

৩) ইমাম আযম আবূ হানীফা (রহঃ) এর মতে রফে’ ইয়াদাইনের হাদীস মনসুখ (রহিত) হয়েছে । এটা হযরত আবুদল্লাহ ইবনে মাসঊদ, হজরত বারা ইবনে আযেব, হযরত জাবের ইবনে সামরা (রাঃ) প্রমুখ সাহাবায়ে কিরামের মত । হজরত উমর, হযরত আলী ও হযরত ইবনে উমর (রাঃ) উক্ত রফে’ ইয়াদাইন ত্যাগ করেছিলেন । কূফাবাসী মুহাদ্দিস, শ্রেষ্ঠ ইমাম সুফিয়ান সওরী, ইবরাহীম নাখয়ী, ইবনে আবী লাইলা, আলকামা, আসওয়াদ, শা’বী, আবূ ইসহাক, খায়ছমা, মুগীরা প্রমুখ মহাবিদ্বান গণের এই অভিমত।
Reference :-
★ কামিউল মুবতাদেয়ীন ফী রদ্দে ছিয়ানাতুল মু’মিনীন ,
৩য় খন্ড, প্রণেতা : মাওলানা রুহুল আমীন বসিরহাটী

৪)  ‘তানযীমুল আশ্‌তাত’ নামক গ্রন্থে বিশ্ববিখ্যাত দারুল উলূম দেওবন্দ মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস ফখরুল মুহাদ্দেসীন হযরত মাওলানা ফখরুদ্দীন মূরাদাবাদী উল্লেখ করেছেন যে,
১ম যুগে মুসলমানদের রাজধানী ছিল মদিনায় । তখন সেখানে অনেক অনেক সাহাবায়ে কিরাম ও তাব্যীনে এযাম অবস্থান করতেন । মদীনাবাসীদের আমল দেখে ইমাম মালেক (রহঃ) শেষ জীবনে রফে ইয়াদাইন ত্যাগ করেছিলেন । পরে যখন মদিনা হতে কুফায় রাজধানী স্থানান্তরিত হয়ে গেল, তখন লোকেরা সাহাবা ও তাবেঈগনের আমল দেখে রফে’ ইয়াদাইন করা ত্যাগ করেছিলেন । সুতরাং প্রমাণিত হয় যে, তৎকালীন মদিনা ও কুফাবাসীগন রফে’ ইয়াদাইন করতেন না ।
Reference :-
তানযীমুল আশতাত, ১ম খন্ড (ঊর্দূ), পৃঃ ২৯৬

৫) ইমাম তাহাবী হযরত মুগিরাহ (রাদিঃ) থেকে বর্ণনা করেছেন যে, আমি  ইবরাহীম নাখঈ (রাদ্বি) এর কাছে  আরজ করলাম যে, হযরত ওয়াইল (রাদি) হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে দেখেছেন যে, তিনি নামাযের প্রারম্ভে রুকুর সময় এবং রুকূ থেকে উঠার সময় হাত উত্তোলন করতেন। তখন  তিনি (ইবরাহীম নাখঈ ) উত্তর দিলেন-

اِنْ كَانَ وَائِلَّ رَاهُ مَرَّةً يَفْعَلُ ذلِكَ فَقَدْ رَاهُ عَبْدُ اللهِ خَمْسِيْنَ مَرَّةً لَا يَفْعَلُ ذلِكَ

অর্থাৎ ‘যদি হযরত ওয়াইল (রা:) হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে একবার হাত উত্তোলন করতে দেখেন, তো হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসঊদ (রাদ্বি.) হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে পঞ্চাশ বার হাত উত্তোলন না করতে দেখেছেন।

৬) বোখারী শরীফের ব্যাখ্যাকার বদরুদ্দীন আইনী (রাদ্বি.) হযরত আবদুল্লাহ ইবনে যুবাইর (রাদ্বি.) থেকে বর্ণনা করেন-
তিনি এক ব্যাক্তিকে রুকূতে যাওয়ার সময় এবং রুকু থেকে মাথা তোলার সময় উভয় হাত তুলতে দেখলেন। অতঃপর তাকে বললেন এরূপ করো না, কেননা  এমন  কাজ যা হুযুর  (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) প্রথমে করেছিলেন এরপর ছেড়ে দিয়েছেন ।
এ হাদিছ  থেকে বুঝা গেল যে,  রুকুর আগে ও পরে উভয় হাত উত্তোলন করা ‘মানসুখ’ তথা রহিত। যে সব সাহাবী থেকে কিংবা হুযুর  (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) থেকে উভয় হাত উত্তোলন প্রমানিত।

অতএব, বিস্তারিত বর্ননা দ্বারা বুঝা গেল রাসুল (সা) কখনো রাফউল ইয়াদাইন করেছিলেন আর সেটা পরবর্তীতে অসংখ্য সহীহ হাদিস দ্বারা মানসূখ বা রহিত হয়ে গেছে।

বুকের হাত বাঁধার হাদিসটা কি সহীহ!!!

Standard

image

️✔️ বুকের উপর হাত বাঁধা সংক্রান্ত আবু দাউদের হাদীসটি কি সহীহ?সুনানে আবু দাউদ (ইফাঃ), ২/ সালাত (নামায) ৭৫৯। আবূ তাওবা তাউস (রহঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নামাযরত অবস্হায় ডান হাত বাম হাতের উপর স্হাপন করে তা নিজের বুকের উপর বেঁধে রাখতেন।
হাদিসের মানঃ সহিহ – আলবানীحَدَّثَنَا أَبُو تَوْبَةَ، حَدَّثَنَا الْهَيْثَمُ،
– يَعْنِي ابْنَ حُمَيْدٍ – عَنْ ثَوْرٍ، عَنْ سُلَيْمَانَ بْنِ مُوسَى، عَنْ طَاوُسٍ، قَالَ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يَضَعُ يَدَهُ الْيُمْنَى عَلَى يَدِهِ الْيُسْرَى ثُمَّ يَشُدُّ بَيْنَهُمَا عَلَى صَدْرِهِ وَهُوَ فِي الصَّلاَةِ . صحيح (الألباني) حكمএটি মুরসাল হাদীস। কারণ এটি বর্ণনা করেছেন একজন তাবেয়ী। তিনি কোন সাহাবী থেকে শুনেছেন তা তিনি বলেননি। তাই এ হাদীসের সনদ রাসূল সাঃ পর্যন্ত পৌঁছেনি। যে হাদীসের সনদ রাসূল (দঃ) পর্যন্ত পৌঁছেনি। সেটি দিয়ে কথিত আহলে হাদীস ভাইয়েরা কি করে দলীল পেশ করেন?তাছাড়া এ হাদীসে সুলাইমান বিন মুসা নামে একজন বর্ণনাকারী রয়েছেন। তার সম্পর্কে
(১) ইমাম বুখারী (রহঃ) বলেছেন عنده مناكير তথা তার কাছে আপত্তিকর বর্ণনা রয়েছে।{আলকাশিফলিযযাহাবী}
(২) ইমাম নাসায়ী (রহঃ) বলেছেন, ليس بالقوى فى الحديث তথা তিনি হাদীসে মজবুত নন। {আলকাশিফ লিযযাহাবী}
(৩) আলী ইবনুল মাদিনী (রহঃ) বলেছেন مطعون عليه তথা সমালোচিত ও অভিযুক্ত রাবী।
(৪) আস সাজী (রহঃ) বলেছেন, عنده مناكير তথা তার কাছে আপত্তিকর বর্ণনা আছে।
(৫) হাকেম আবু আহমাদ (রহঃ) বলেছেন, فى حديثه بعض المناكير তথা তার হাদীসে কিছু কিছু আপত্তিকর বিষয়আছে।
(৬) ইবনুল জারূদ তাকে তার “যুআফা” গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন। মানে তার মতে সুলাইমান একজন দুর্বল রাবী।
(৭) আলবানী  বলেছেন, صدوق فى حديثه بعض لين তিনি সত্যবাদী তবে তার হাদীসে কিছু দূর্বলতা রয়েছে। {আসলু সিফাতিস সালাহ২/৫২৮}যে হাদীস একদিকে মারফূ তথা রাসূল (দঃ) পর্যন্ত সূত্রবদ্ধ নয়। অপরদিকে এমন একজন রাবী রয়েছেন, যাকে মুহাদ্দিসীনে কেরাম, এমনকি আহলে হাদীস ভ্রান্ত মতবাদের শায়েখ আলবানীও তার মাঝে দুর্বলতা আছে বলে স্বীকার করেছেন, সেই হাদীস কি করে কথিত আহলে হাদীস ভাইয়েরা দলীল হিসেবে উপস্থাপন করলেন?এটি আমাদের কিছুতেই বোধগম্য নয়।