হজ্জ্ব ও ওমরার গুরুত্ব ও ফযীলত

Standard

জুমার খুতবা ########## ২য় জুমা, যুল ক্বা’দাহ, ১৪৩৮ হি: ০৪ আগষ্ট, ২০১৭সাল হজ্ব এবং ওমরার গুরুত্ব ও ফযীলত: ————————————– সৈয়দ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন আল আযহারী (বিএ. অনার্স, আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়, কায়রো, মিশর। এম.এ. এম.ফিল. কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়, মিশর। পিএইচ.ডি গবেষক,চ.বি.) সহকারী অধ্যাপক, সাদার্ন বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ. খতীব, মুসাফির খানা জামে মসজিদ, নন্দন কানন, চট্টগ্রাম ========================================= ইসলামের মূল স্তম্ভসমূহের পঞ্চমটি হল হজ্বে বায়তুল্লাহ। ঈমান, নামায, যাকাত ও রোযার পরই হজ্বের অবস্থান। হজ্ব মূলত কায়িক ও আর্থিক উভয়ের সমন্বিত একটি ইবাদত। তাই উভয় দিক থেকে সামর্থ্যবান মুসলিমের উপর হজ্ব পালন করা ফরয। অর্থাৎ হজ্ব আদায়ে সক্ষম এমন শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি নিত্যপ্রয়োজনীয় খরচাপাতি ও আসবাবপত্রের অতিরিক্ত হজ্বে যাওয়া-আসার ব্যয় এবং হজ্ব আদায়কালীন সাংসারিক ব্যয় নির্বাহে সক্ষম এমন সামর্থ্যবান ব্যক্তির উপর হজ্ব আদায় করা ফরয। যা সক্ষম ব্যক্তির জীবনে একবারই ফরজ। হজ্জ অস্বীকারকারী ইসলাম থেকে সম্পূর্ণরুপে খারিজ হয়ে যায়। আল্লাহ তা’লা বলেন, وَلِلَّهِ عَلَى ٱلنَّاسِ حِجُّ ٱلْبَيْتِ مَنِ ٱسْتَطَاعَ إِلَيْهِ سَبِيلًا ۚ وَمَن كَفَرَ فَإِنَّ ٱللَّهَ غَنِىٌّ عَنِ ٱلْعَٰلَمِينَ এবং সামর্থ্যবান মানুষের উপর আল্লাহর জন্য বায়তুল্লাহর হজ্জ করা ফরয। আর যে কুফরী করে, তবে আল্লাহ তো নিশ্চয় সৃষ্টিকুল থেকে অমুখাপেক্ষী। ( সূরা আলে ইমরান,আয়াতঃ ৯৭) হজ্জ ও ওমরার আভিধানিক ও পারিভাষিক সংজ্ঞাঃ —————————————————– হজ্জ শব্দটি ح বর্ণে যবরযুক্ত করে حَجٌّ(হাজ্জুন) কিংবা যেরযুক্ত করে حِجٌّ (হিজ্জুন) উভয়ভাবেই পড়া যায়। ইমাম নব্বী রহমাতুল্লাহ আলাইহি বলেন, হাজ্জুন যবরযুক্ত হলে মাসদার অর্থে হজ্জ করা অর্থে ব্যবহ্রত হবে। হজ্জকে আরবিতে মানাসিকও (مناسك)বলা হয়। পবিত্র কুরআন ও হাদিসে একাধিক স্থানে মানাসিক বলে হজ্জকে বুঝানো হয়েছে। আভিধানিকঃ হজ্জ শব্দের অর্থ হলো ইচ্চা করা, সংকল্প করা ইত্যাদি। নিহায়া অভিধানে আছে যে, কোনো জিনিসের উদ্দেশ্যে সংকল্প করাকেই হজ্জ বলা হয়। তবে মুহাক্কিকগণের মতে, কোনো মহৎ জিনিসের উদ্দেশ্যে সংকল্প করাকে হজ্জ বলা হয়। যারা হজ্জ করেন তারা সাধারণত একটি বিশেষ পর্যায়ের সংকল্প, আকাঙ্ক্ষা ও মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে হজ্জ করে থাকেন বিধায় একে হজ্জ বলে। হজ্জ আরবি শব্দ। অর্থ নিয়ত করা, দর্শন করা, সঙ্কল্প করা, এরাদা করা, গমন করা, ইচ্ছা করা, প্রতিজ্ঞা করাসহ , কোনো মহৎ কাজে ইচ্ছা করা। আর শরিয়তের পরিভাষায় নির্দিষ্ট দিনে নিয়তসহ ইহরামরত অবস্থায় আরাফার ময়দানে অবস্থান করা এবং বায়তুল্লাহ শরীফ তাওয়াফ করা। পারিভাষিক সংজ্ঞাঃ আল্লামা ইবনে হাজার আসকালানী রহমাতুল্লাহ আলাইহি বলেন, هوالقصد إلى البيت الحرام باعمال مخصوصة অর্থাৎ বিশেষ কিছু আমল সম্পাদনসহ পবিত্র কা’বাগৃহের উদ্দেশ্যে গমন করাকে হজ্জ বলে। আবার কেউ কেউ বলেন, নির্দিষ্ট আমলসহ নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট স্থানে গমন করাকে হজ্জ বলে। হজ্জের প্রধান লক্ষ্য হলো বায়তুল্লাহ শরিফের যিয়ারত- ইরশাদ হচ্ছে- إِنَّ أَوَّلَ بَيْتٍ وُضِعَ لِلنَّاسِ لَلَّذِى بِبَكَّةَ مُبَارَكًا وَهُدًى لِّلْعَٰلَمِينَ নিশ্চয় প্রথম ঘর, যা মানুষে জন্য স্থাপন করা হয়েছে, তা মক্কায়। যা বরকতময় ও হিদায়াত বিশ্ববাসীর জন্য। (সূরা আলে ইমরান,আয়াতঃ৯৬) আবার কেউ বলেন, জিলহজ্বের ৯ তারিখ ইহরাম বেঁধে আরাফাতের মাঠে অবস্থানসহ কয়েকটি নির্দিষ্ট স্থানে নির্ধারিত কয়েকটি আমল যথাযথভাবে আদায় করে কাবা গৃহ তাওয়াফ করাকে হজ্ব বলে। শরহে বিকায়া গ্রন্থাগার বলেন, “নির্দিষ্ট সময়ে সুনির্দিষ্ট স্থান যিয়ারত করার নাম হল হাজ্জ”। উমরার আভিধানিক অর্থ: ——————————- যিয়ারত করা। শরীয়তের পরিভাষায় উমরা অর্থ, নির্দিষ্ট কিছু কর্ম অর্থাৎ ইহরাম, তাওয়াফ, সাঈ ও মাথা মুণ্ডন বা চুল ছোট করার মাধ্যমে বায়তুল্লাহ শরীফের যিয়ারত করা।[ড. সাঈদ আল-কাহতানী, আল-উমরাতু ওয়াল হাজ্জ ওয়ায যিয়ারাহ, পৃ. ৯। হজ্ব ও ওমরার ফযিলত: ———————————– হজ্জ পালন উত্তম ইবাদাত: عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ سُئِلَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم أَيُّ الأَعْمَالِ أَفْضَلُ قَالَ إِيمَانٌ بِاللهِ وَرَسُولِهِ قِيلَ ثُمَّ مَاذَا قَالَ جِهَادٌ فِي سَبِيلِ اللهِ قِيلَ ثُمَّ مَاذَا قَالَ حَجٌّ مَبْرُورٌ হযরত আবূ হুরাইরাহ্ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞেস করা হলো, সর্বোত্তম আমল কোনটি? তিনি বললেনঃ আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রতি ঈমান আনা। জিজ্ঞেস করা হলো, অতঃপর কোনটি? তিনি বললেনঃ আল্লাহর পথে জিহাদ করা। জিজ্ঞেস করা হলো, অতঃপর কোনটি? তিনি বলেনঃ হাজ্জ-ই-মাবরূর (মাকবূল হাজ্জ)। (বুখারী,হাদিস নং-১৫১৯) অন্য রেওয়াতে রয়েছে: عَنْ عَائِشَةَ أُمِّ الْمُؤْمِنِينَ أَنَّهَا قَالَتْ يَا رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم نَرَى الْجِهَادَ أَفْضَلَ الْعَمَلِ أَفَلاَ نُجَاهِدُ قَالَ لاَ لَكِنَّ أَفْضَلَ الْجِهَادِ حَجٌّ مَبْرُورٌ উম্মুল মু‘মিনীন ‘আয়িশাহ্ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, হে আল্লাহর রাসূল! জিহাদকে আমরা সর্বোত্তম ‘আমল মনে করি। কাজেই আমরা কি জিহাদ করবো না? তিনি বললেনঃ না, বরং তোমাদের জন্য সর্বোত্তম জিহাদ হল, হাজ্জে মাবরূর। (সহীহ বুখারী,হাদিস নং-১৫২০) عن أبي هريرة رضي الله عنه أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال : العمرة إلى العمرة كفارة لما بينهما ، والحج المبرور ليس له جزاء إلا الجنة ،، আবু হুরায়রা থেকে বর্ণিত এক হাদিসে এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘এক উমরা হতে অন্য উমরা, এ দুয়ের মাঝে যা কিছু (পাপ) ঘটবে তার জন্য কাফফারা। আর মাবরুর হজের বিনিময় জান্নাত ভিন্ন অন্য কিছু নয়।”(বোখারি : হাদিস নং ১৬৫০) হাদিসে আরো এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, إن الإسلام يهدم ما كان قبله ، و أن الهجرة تهدم ما كان قبلها ، وأن الحج يهدم ما كان قبله ،، ‘কারো ইসলাম-গ্রহণ পূর্বকৃত সকল পাপকে মুছে দেয়। হিজরত তার পূর্বের সকল গুনাহ মুছে দেয়, ও হজ তার পূর্বের সকল পাপ মুছে দেয়। (মুসলিম : হাদিস নং১৭৩) ইবনে মাসউদ হতে বর্ণিত এক হাদিসে এসেছে, تابعوا بين الحج والعمرة ، فإنهما ينفيان الفقر والذنوب كما ينفي الكير خبث الحديد والذهب والفضة وليس للحج المبرور ثواب إلا الجنة ‘তোমরা পর পর হজ ও উমরা আদায় করো। কেননা তা দারিদ্র্য ও পাপকে সরিয়ে দেয় যেমন সরিয়ে দেয় কামারের হাপর লোহা-স্বর্ণ-রুপার ময়লাকে। আর হজ্জে মাবরুরের ছোয়াব তো জান্নাত ভিন্ন অন্য কিছু নয়।–(সহিহুন্নাসায়ি : ২/৫৫৮) উপরে উল্লেখিত হাদিসসমূহের বক্তব্য অত্যন্ত স্পষ্ট। তাই হজ পালনেচ্ছু প্রতিটি ব্যক্তিরই উচিত পবিত্র হজের এই ফজিলতসমূহ ভরপুরভাবে পাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে চেষ্টা করে যাওয়া। হজ কবুল হওয়ার সকল শর্ত পূর্ণ করে সমস্ত পাপ ও গুনাহ থেকে মুক্ত থেকে কঠিনভাবে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করা। হাজ্ব ও ওমরা পালনকারীগন আল্লাহর মেহমান: হাদিস শরীফে এসেছে,عَنِ ابْنِ عُمَرَ، عَنِ النَّبِيِّ ـ صلى الله عليه وسلم ـ قَالَ ‏ “‏ الْغَازِي فِي سَبِيلِ اللَّهِ وَالْحَاجُّ وَالْمُعْتَمِرُ وَفْدُ اللَّهِ دَعَاهُمْ فَأَجَابُوهُ وَسَأَلُوهُ فَأَعْطَاهُمْ হযরক ইবনে উমার রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা থেকে বর্ণিত। নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন: আল্লাহর পথের সৈনিক, হজ্জযাত্রী ও উমরা যাত্রীগণ আল্লাহর প্রতিনিধি। তারা আল্লাহর নিকট দোয়া করলে তিনি তা কবুল করেন এবং কিছু চাইলে তা তাদের দান করেন। (ইবনু মাজাহ,হাদিস নং-২৮৯৩) অন্য রেওয়াতে রয়েছে: عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، عَنْ رَسُولِ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ أَنَّهُ قَالَ ‏ “‏ الْحُجَّاجُ وَالْعُمَّارُ وَفْدُ اللَّهِ إِنْ دَعَوْهُ أَجَابَهُمْ وَإِنِ اسْتَغْفَرُوهُ غَفَرَ لَهُمْ হযরত আবূ হুরায়রা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন: হজ্জযাত্রীগণ ও উমরার যাত্রীগণ আল্লাহর প্রতিনিধিদল। তারা তাঁর নিকট দোয়া করলে তিনি তাদের দোয়া কবুল করেন এবং তাঁর নিকট মাফ চাইলে তিনি তাদের ক্ষমা করেন। (ইবনু মাজাহ, হাদিস নং-২৮৯২) মাবরুর হজের প্রতিদান: মাবরুর হজের প্রতিদান জান্নাত ভিন্ন অন্য কিছু নয়। যে হজ করল ও শরিয়ত অনুমতি দেয় না এমন কাজ থেকে বিরত রইল, যৌন-স্পর্শ রয়েছে এমন কাজ ও কথা থেকে বিরত থাকল, সে তার মাতৃ-গর্ভ হতে ভূমিষ্ট ‘হওয়ার দিনের মতো পবিত্র হয়ে ফিরে এল। حَدَّثَنَا عَبْدُ الْعَزِيزِ بْنُ عَبْدِ اللَّهِ، حَدَّثَنَا إِبْرَاهِيمُ بْنُ سَعْدٍ، عَنِ الزُّهْرِيِّ، عَنْ سَعِيدِ بْنِ الْمُسَيَّبِ، عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ ـ رضى الله عنه ـ قَالَ سُئِلَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم أَىُّ الأَعْمَالِ أَفْضَلُ قَالَ ‏”‏ إِيمَانٌ بِاللَّهِ وَرَسُولِهِ ‏”‏‏.‏ قِيلَ ثُمَّ مَاذَا قَالَ ‏”‏ جِهَادٌ فِي سَبِيلِ اللَّهِ ‏”‏‏.‏ قِيلَ ثُمَّ مَاذَا قَالَ ‏”‏ حَجٌّ مَبْرُورٌ ‏”‏‏.‏ হযরত আবূ হুরাইরাহ্ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞেস করা হলো, সর্বোত্তম আমল কোনটি? তিনি বললেনঃ আল্লাহ ও তাঁর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রতি ঈমান আনা। জিজ্ঞাসা করা হল, তারপর কোন্‌টি? তিনি বললেনঃ আল্লাহর পথে জিহাদ করা। জিজ্ঞাসা করা হল, তারপর কোন্‌টি? তিনি বলেনঃ হাজ্জ-ই-মাবরূর (মাকবূল হাজ্জ (হজ্জ)।(বুখারী, পরিচ্ছদঃ ৯৬৪. হজ্জে মাবরুর (মাকবুল হজ্জ) এর ফযীলত, হাদীস নং-১৪২৯) حَدَّثَنَا آدَمُ، حَدَّثَنَا شُعْبَةُ، حَدَّثَنَا سَيَّارٌ أَبُو الْحَكَمِ، قَالَ سَمِعْتُ أَبَا حَازِمٍ، قَالَ سَمِعْتُ أَبَا هُرَيْرَةَ ـ رضى الله عنه ـ قَالَ سَمِعْتُ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم يَقُولُ ‏ “‏ مَنْ حَجَّ لِلَّهِ فَلَمْ يَرْفُثْ وَلَمْ يَفْسُقْ رَجَعَ كَيَوْمِ وَلَدَتْهُ أُمُّهُ ‏ হযরত আবূ হুরাইরাহ্ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে বলতে শুনেছিঃ যে ব্যাক্তি আল্লাহর উদ্দেশ্যে হাজ্জ (হজ্জ) করলো এবং অশালীন কথাবার্তা ও গুনাহ থেকে বিরত রইল, সে নবজাতক শিশু, যাকে তাঁর মা এ মুহূর্তেই প্রসব করেছে, তার ন্যায় নিষ্পাপ হয়ে ফিরবে।(বুখারী, হাদীস নং-১৪৩১)পরিচ্ছদঃ ৯৬৪.) হজ্বের প্রত্যেকটি কাজে আল্লাহর যিকর বিদ্যমান: —————————————————— হজ্জ এমন একটি ইবাদাত যার প্রত্যেকটি কাজে আল্লাহর যিকর করা হয়। তাওয়াফ, সাঈ, রমঈল জিমার (পাথর নিক্ষেপ), মিনা,মুযদালিফাহ, আরাফাহসহ প্রত্যেকটি নির্দেশনায় আল্লাহর যিকরে ধ্বনিত, প্রতিধ্বনিত হচ্ছে। আল্লাহ তায়ালা বলেন,فَإِذَا قَضَيْتُم مَّنَٰسِكَكُمْ فَٱذْكُرُوا۟ ٱللَّهَ كَذِكْرِكُمْ ءَابَآءَكُمْ أَوْ أَشَدَّ ذِكْرًا ۗ فَمِنَ ٱلنَّاسِ مَن يَقُولُ رَبَّنَآ ءَاتِنَا فِى ٱلدُّنْيَا وَمَا لَهُۥ فِى ٱلْءَاخِرَةِ مِنْ خَلَٰقٍ‘তারপর যখন তোমরা তোমাদের হজের কাজসমূহ শেষ করবে, তখন আল্লাহকে স্মরণ কর, যেভাবে তোমরা স্মরণ করতে তোমাদের বাপ-দাদাদেরকে, এমনকি তার চেয়ে অধিক স্মরণ। আর মানুষের মধ্যে এমনও আছে যে বলে, হে আমাদের রব, আমাদেরকে দুনিয়াতেই দিয়ে দিন। বস্ত্তত আখিরাতে তার জন্য কোন অংশ নেই। (সূরা আল বাকারাহ,আয়াতঃ২০০) আল্লাহ আরো বলেন,لَيْسَ عَلَيْكُمْ جُنَاحٌ أَن تَبْتَغُوا۟ فَضْلًا مِّن رَّبِّكُمْ ۚ فَإِذَآ أَفَضْتُم مِّنْ عَرَفَٰتٍ فَٱذْكُرُوا۟ ٱللَّهَ عِندَ ٱلْمَشْعَرِ ٱلْحَرَامِ ۖ وَٱذْكُرُوهُ كَمَا هَدَىٰكُمْ وَإِن كُنتُم مِّن قَبْلِهِۦ لَمِنَ ٱلضَّآلِّينَ তোমাদের উপর কোন পাপ নেই যে, তোমরা তোমাদের রবের পক্ষ থেকে অনুগ্রহ অনুসন্ধান করবে। সুতরাং যখন তোমরা আরাফা থেকে বের হয়ে আসবে, তখন মাশআরে হারামের নিকট আল্লাহকে স্মরণ কর এবং তাকে স্মরণ কর যেভাবে তিনি তোমাদেরকে দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। যদিও তোমরা এর পূর্বে অবশ্যই পথভ্রষ্টদের অন্তর্ভুক্ত ছিলে। (সূরা আল-বাকারাহ,আয়াতঃ-১৯৮) হজ্জের প্রকারভেদ: ——————- হজ্জ তিন প্রকার। যথাঃ ১. তামাত্তু, ২. কিরান, ৩. ইফরাদ। হজ্জে তামাত্তু: হজ্জের মাসগুলোতে (শাওয়াল, যিলকদ ও যিলহজ্জ) শুধু ওমরার নিয়ত করে ইহরাম বেঁধে মক্কায় পৌছার পর ওমরার ফরয ও ওয়াজিবসমূহ আদায় করে ইহরাম খুলে ফেলা এবং উকূফে আরাফার পূর্বে শুধুমাত্র হজ্জের নিয়ত করে পুনরায় ইহরাম বাঁধার নাম হজ্জে তামাত্তু। হজ্জে তামাত্তু ও হজ্জে কেরান-এ শোকরানা স্বরূপ হজ্জের দম ওয়াজিব হয় এবং এ কুরবনি ধনী হওয়ার কারণে যে কুরবানি আসে তা থেকে ভিন্ন। হজ্জে কেরানঃ একই ইহরামে ওমরা ও হজ্জ কার্য সম্পাদন করাকে হজ্জে কেরান বা কেরান হজ্জ বলে। মিকাতের বাইর থেকে আগত ব্যক্তিই কেরান হজ্জ করতে পারবে। কেউ কেরান হজ্জ করতে চাইলে মিকাতে প্রবেশের পূর্বেই একসাথে ওমরা ও হজ্জের নিয়তে ইহরাম ধারন করে মক্কা মুকাররামায় এসে ইযতিবা ও রমল সহকারে তাওয়াফ ও সায়ী। হজ্জে ইফরাদঃ শুধূমাত্র হজ্জের নিয়ত করে ইহরাম বেঁধে হজ্জ করার নাম ইফরাদ হজ্জ। ইফরাদ হজ্জের এ ইহরাম সম্পূর্ণ হজ্জ শেষ হওয়া পর্যন্ত থাকবে। এ হজ্জে কুরবানি ওয়াজিব নয়। কেউ ইচ্ছা করলে করতে পারে। তা নফল হবে। এই তিন প্রকারের হাজ্জের মধ্যে কিরান হাজ্জ সবচেয়ে ফযীলতপূর্ণ একটি হাজ্জ। হাজ্জ যাদের উপর ফরয: ——————————— (১) মুসলিম হওয়া (২) বালিগ হওয়া (৩) স্বাধীন হওয়া (৪) বিবেকবান হওয়া (৫) নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক যে ব্যক্তির এ পরিমাণ ধনসম্পদ আছে যে, সে হজের সফর (পথ খরচ) বহন করতে সক্ষম এবং তার অনুপস্থিতিকালীন তার পরিবারবর্গের প্রয়োজন মেটানোর মতো খরচও রেখে যেতে সক্ষম, এমন ব্যক্তির ওপর হজ ফরজ। (৬) যাতায়াতে নিরাপত্তা (৭) মহিলাদের সাথে মুহরিম থাকা। আইয়্যামে হজ্বের বিভিন্ন নামসমূহ: ১. যিলহজ্বের আট তারিখকে ‘ইয়াউমুত তারউইয়্যাহ’। ২.নয় তারিখকে ‘ইয়াউমুল আরাফাহ’। ৩. দশ তারিখকে ‘ইয়াউমুন নাহর। ৪. এগারো তারিখকে ‘ইয়াউমুল ওকুফ’। ৫. বারো তারিখকে ‘ইয়াউমুল নাফরিল আওয়াল’ এবং ৬. তেরো তারিখকে ‘ইয়াউমুল নাফরিস সানি’ বলে। হজ্জের ফরজ ৩টি: ——————– ১। ইহরাম বাধা ২। উ’কুফে আ’রাফা (আরাফাতের ময়দানে অবস্থান) ৩। তাওয়াফুয্ যিয়ারাত। হজ্জের ওয়াজিব ৬টি : ——————— (১) ‘সাফা ও মারওয়া’ পাহাড় দ্বয়ের মাঝে ৭ বার সায়ী করা। (২) অকুফে মুযদালিফায় (৯ই জিলহজ্জ) অর্থাৎ সুবহে সাদিক থেকে সুর্যদয় পর্যন্ত একমুহুর্তের জন্য হলেও অবস্থান করা। (৩) মিনায় তিন শয়তান (জামারাত) সমূহকে পাথর নিপে করা। (৪) ‘হজ্জে তামাত্তু’ ও ‘কি্বরান’ কারীগণ ‘হজ্জ’ সমাপনের জন্য দমে শোকর করা। (৫) এহরাম খোলার পূর্বে মাথার চুল মুন্ডানো বা ছাটা। (৬) মক্কার বাইরের লোকদের জন্য তাওয়াফে বিদা অর্থাৎ মক্কা থেকে বিদায়কালীন তাওয়াফ করা। এছাড়া আর যে সমস্ত আমল রয়েছে সব সুন্নাত অথবা মুস্তাহাব। ওমরার ফরজ, ওয়াজিব: —————————————– দুইটি ফরজ: (১) ইহরাম পরিধান করা (২) তাওয়াফ দুইটি ওয়াজিব: (১) সাফা ও মারওয়া মধ্যবর্তী (সবুজ বাতি) স্থানে সাতবার সায়ী করা (২) মাথার চুল মুন্ডানো বা ছাটা। ইহরাম অবস্থায় নিষিদ্ধ কাজ : ——————————— (১) সেলাইযুক্ত যে কোন কাপড় ব্যবহার করা। (২) মস্তক ও মুখমন্ডল (ইহরামের কাপড়সহ যে কোন কাপড় দ্বারা) ঢাকা, (৩) পায়ের পিঠ ঢেকে যায় এমন জুতা পরা। (৪) চুলকাটা বা ছিড়ে ফেলা, (৫) নখকাটা, (৬) ঘ্রানযুক্ত তৈল বা আতর লাগানো। (৭) স্ত্রীর সঙ্গে সংগম করা। (৮) যৌন উত্তেজনামূলক কোন আচরণ বা কোন কথা বলা। (৯) শিকার করা। (১০) ঝগড়া বিবাদ বা যুদ্ধ করা। (১১) চুল দাড়িতে এমনভাবে চিরুনী বা আঙ্গুলী চালনা করা, যাতে ছিড়ার আশংকা থাকে। (১২) শরীরে সাবান লাগানো। (১৩) উকুন, ছারপোকা, মশা ও মাছিসহ কোন জীবজন্তু হত্যা করা বা মারা। (১৪) কোন গুনাহের কাজ করা, ইত্যাদি। তাওয়াফের ওয়াজিব সমূহ : ——————————— (১) শরীর পাক-সাফ রাখা, ওজু করা। মহিলাদের হায়েজ নেফাছ অবস্থায় তাওয়াফ করা জায়েজ নাই। (২) ছতর ঢাকা। অর্থাৎ যেটুকু ঢাকা প্রত্যেক পুরুষ-নারীর জন্য ফরজ। (৩) ‘হাতীমে কা’বার’ বাইরে থেকে ‘তাওয়াফ’ করা। (৪) পায়ে হেঁটে ‘তাওয়াফ’ করা। অক্ষম ব্যক্তি খাটিয়ার মাধ্যমে ‘তাওয়াফ’ করতে পারেন। (৫) ‘হাজরে আস্ওয়াদ’ থেকে শুরু করে ডানদিক দিয়ে ‘তাওয়াফ’ শুরু করা। (৬) এক নাগাড়ে বিরতিহীন ভাবে ‘সাতবার চক্কর’ দিয়ে ‘তাওয়াফ’ পূর্ণ করা। (৭) ‘সাত চক্করে’ এক ‘তাওয়াফ’, এটা পূর্ণ হলেই ‘তাওয়াফের’ নামাজ পড়া। তাওয়াফের সুন্নত কার্যাবলী : —————————- (১) ‘তাওয়াফে’র শুরুতে ‘হাজারে আসওয়াদ’ এর দিকে মুখ করা। (২) সম্ভব হলে ‘হাজরে আস্ওয়াদ’ চুম্বন করা। নতুবা হাত দ্বারা দূর থেকে ইশারা করা, এবং মুখে ‘বিসমিল্লাহি আল্লাহু আক্বার ওয়ালিল্লাহিল হামদ বলা। (৩) ‘হাজরে অস্ওয়াদ’ বরাবর দাঁড়িয়ে তাকবীরে তাহরিমা’র ন্যায় উভয় হাত সিনা পর্যন্ত উঠান। (৪) যে ‘তাওয়াফে’র পরে ‘সাঈ’ আছে তাতে ‘এযতেবা’ করা। অর্থাৎ ইহরামের চাদরের (উপরের অংশের) দুই মাথা ডান বগলের নিচ দিয়ে বাম কাঁধের উপর ফেলে দেওয়া। (৫) ‘সাঈ’ যুক্ত ‘তাওয়াফে’র প্রথম তিন চক্করে ‘রমল’ করা। তথা বীরের মত হেলে দুলে জোর ক্বদমে (একের পর এক পা ফেলে) চলা। (৬) বাকী চার চক্কর সাধারণ গতিতে (ধীরে ধীরে) সম্পন্ন করা। (৭) প্রত্যেক চক্কর তাওয়াফ শেষ করে এবং শেষ চক্করেরও পরে ‘হাজরে অস্ওয়াদ’কে চুম্বন করা। সম্ভব না হলে দূর থেকে ইশারা করে বিসমিল্লাহে আল্লাহ আকবর ওয়ালিল্লাহিল হামদ্” দোয়াটি পাঠ করা এবং ৩ নং নিয়মের ন্যায় দাড়িয়ে ইশারা করে ‘তাওয়াফ’ শেষ করা। তালবিয়া : ———– ”লাব্বাঈক আল্লাহুম্মা লাব্বাঈক, লাব্বাঈক, লা-শারীকা-লাকা লাব্বাঈক, ইন্নাল হামদা ওয়ান্ নি’মাতা লাকা ওয়াল-মুল্ক, লা শারীকালাক।” অর্থ: আমি হাজির হে আল্লাহ! আমি উপস্থিত! আপনার ডাকে সাড়া দিতে আমি হাজির। আপনার কোন অংশীদার নেই। নিঃসন্দেহে সমস্ত প্রশংসা ও সম্পদরাজি আপনার এবং একচ্ছত্র আধিপত্য আপনার। আপনার কোন অংশীদার নেই। হজ্ব একবারই ফরয: —————————– হজ্ব প্রত্যেক মুসলমানের উপর সারা জীবনে একবারই ফরয হয়। একবার ফরয হজ্ব আদায়ের পর পরবর্তী হজ্বগুলো নফল হিসেবে গণ্য হবে। এ সম্পর্কে হাদীস শরীফে বর্ণিত হয়েছে, হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, একদা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দিলেন। তিনি বললেন- হে মানবসকল! আল্লাহ তাআলা তোমাদের উপর হজ্ব ফরয করেছেন। সুতরাং তোমরা হজ্ব করো। এক ব্যক্তি বলল, ইয়া রাসূলাল্লাহ! প্রতি বছর কি হজ্ব করতে হবে? তিনি চুপ রইলেন এবং লোকটি এভাবে তিনবার জিজ্ঞেস করল। অতপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আমি যদি হ্যাঁ বলতাম, তাহলে তা (প্রতি বছর হজ্ব করা) ফরয হয়ে যেতো, কিন্তু তোমাদের পক্ষে তা করা সম্ভব হতো না।(সহীহ মুসলিম, হাদীস : ১৩৩৭ (৪১২); মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ১০৬০৭; সহীহ ইবনে হিববান, হাদীস : ৩৭০৪; সহীহ ইবনে খুযাইমা, হাদীস : ২৫০৮; সুনানে নাসায়ী ৫/১১০; শরহে মুশকিলুল আছার, হাদীস : ১৪৭২; সুনানে দারাকুতনী ২/২৮১) ইবনে আববাস রাদিয়াল্লাহু আনহুমা হতে বর্ণিত অনুরূপ হাদীসে আরো বলা হয়েছে, হজ্ব (ফরয) হল একবার, এরপরে যে অতিরিক্ত আদায় করবে তা নফল হিসেবে গণ্য।(মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ২৩০৪; সুনানে দারিমী, হাদীস : ১৭৮৮; সুনানে নাসায়ী ৫/১১; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ১৭২১; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস : ২৮৮৬; মুসতাদরাকে হাকিম, হাদীস : ৩২০৯) বিনা ওজরে হজ্ব বিলম্ব না করা উত্তম: ———————————————- হজ্ব যেহেতু একবারই ফরয তাই যার উপর হজ্ব ফরয হয়েছে সে যদি মৃত্যুর আগে যে কোনো বছর হজ্ব আদায় করে, তবে তার ফরয আদায় হয়ে যাবে। কিন্তু হজ্ব বিধানের মৌলিক তাৎপর্য, তার যথার্থ দাবি ও আসল হুকুম হচ্ছে হজ্ব ফরয হওয়ার সাথে সাথে আদায় করা। বিনা ওজরে বিলম্ব না করা। কারণ বিনা ওজরে বিলম্ব করাও গুনাহ। আল্লাহ তাআলা ও তার রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ফরয হজ্ব আদায়ের প্রতি এমনভাবে গুরুত্বারোপ করেছেন যে, কেউ যদি এই হজ্বকে অস্বীকার করে বা এ বিষয়ে কোনো ধরনের অবহেলা প্রদর্শন করে তবে সে আল্লাহর জিম্মা থেকে মুক্ত ও হতভাগ্যরূপে বিবেচিত হবে। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন, মানুষের মধ্যে যারা সেখানে (বায়তুল্লাহ) পৌঁছার সামর্থ্য রাখে তাদের উপর আল্লাহর উদ্দেশ্যে এ গৃহের হজ্ব করা ফরয। আর কেউ যদি অস্বীকার করে তাহলে তোমাদের জেনে রাখা উচিত যে, আল্লাহ তাআলা সৃষ্টিজগতের প্রতি মুখাপেক্ষী নন।(সূরা আলে ইমরান: ৯৭) তাছাড়া যে কোনো ধরনের বিপদ-আপদ, অসুখ-বিসুখের সম্মুখীন হওয়া বা মৃত্যুর ডাক এসে যাওয়া তো অস্বাভাবিক নয়। তাই হজ্ব ফরয হওয়ার পর বিলম্ব করলে পরে সামর্থ্য হারিয়ে ফেললে বা মৃত্যুবরণ করলে আল্লাহ তাআলার নিকট অপরাধী হিসেবেই তাকে হাজির হতে হবে। এজন্যই হাদীস শরীফে হজ্ব ফরয হওয়ামাত্র আদায় করার তাগিদ ও হুকুম দেওয়া হয়েছে। ইবনে আববাস রা. বর্ণনা করেন, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন- যে ব্যক্তি হজ্ব করার ইচ্ছে করে, সে যেন তাড়াতাড়ি তা আদায় করে নেয়। কারণ যে কোনো সময় সে অসুস্থ হয়ে যেতে পারে বা বাহনের ব্যবস্থাও না থাকতে পারে অথবা অন্য কোনো সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। (মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ১৮৩৩; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস : ২৮৮৩; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ১৭৩২; সুনানে দারিমী, হাদীস : ১৭৮৪; মুসতাদরাকে হাকেম, হাদীস : ১৬৮৭; তবারানী, হাদীস : ৭৩৮।) অন্য বর্ণনায় ইরশাদ হয়েছে, ইবনে আববাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ফরয হজ্ব আদায়ে তোমরা বিলম্ব করো না। কারণ তোমাদের কারো জানা নেই তোমাদের পরবর্তী জীবনে কী ঘটবে। (মুসনাদে আহমদ, হাদীস: ২৮৬৭; সুনানে কুবরা বায়হাকী ৪/৩৪০) উপরন্তু একটি হাদীসে কুদসীতে আল্লাহ তাআলা যে স্বচ্ছল সামর্থ্যবান ব্যক্তি হজ্ব আদায় করে না তাকে হতভাগা ও বঞ্চিত আখ্যায়িত করেছেন। আবু সাঈদ খুদরী রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, আল্লাহ তাআলা বলেন, আমি আমার বান্দার শরীরকে সুস্থ রাখলাম, তার রিযিক ও আয়-উপার্জনে প্রশস্ততা দান করলাম। পাঁচ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পরও যদি সে আমার গৃহের হজ্বের উদ্দেশ্যে আগমন না করে তবে সে হতভাগা, বঞ্চিত।(সহীহ ইবনে হিববান, হাদীস : ৩৬৯৫; মুসনাদে আবু ইয়ালা, হাদীস : ১০৩১; তবারানী, হাদীস : ৪৯০; সুনানে কুবরা বায়হাকী ৫/২৬২; মাজমাউয যাওয়াইদ, হাদীস : ৫২৫৯) হজ্ব করার শক্তি-সামর্থ্য ও অর্থ-বিত্ত থাকার পরও যে ব্যক্তি হজ্ব করে না তার সম্পর্কে হাদীস শরীফে কঠোর হুমকি প্রদান করা হয়েছে। ওমর ইবনুল খাত্তাব রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন- যে ব্যক্তি হজ্ব করার সামর্থ্য রাখে, তবুও হজ্ব করে না সে ইহুদী হয়ে মৃত্যুবরণ করল কি খৃস্টান হয়ে তার কোনো পরোয়া আল্লাহর নেই।(তাফসীরে ইবনে কাসীর ১/৫৭৮) তিনি আরো বলেন, আমার ইচ্ছে হয় কিছু লোককে বিভিন্ন শহরাঞ্চল ও লোকালয়ে পাঠিয়ে দিই, তারা সেখানে দেখবে, কারা সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও হজ্ব করছে না। তারা তাদের উপর কর আরোপ করবে। তারা মুসলমান নয়, তারা মুসলমান নয়।(তাফসীরে ইবনে কাসীর ১/৫৭৮) যারা হজ্ব-উমরা না করে সন্ন্যাসী হওয়ার চেষ্টা করে ইসলাম তা কখনো অনুমোদন করে না। ইবনে আববাস রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন- ইসলামে বৈরাগ্য নেই। অন্য বর্ণনায় রয়েছে, হজ্বের ক্ষেত্রে কোনো বৈরাগ্য নেই।(মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ৩১১৩, ৩১১৪; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ১৭২৯; মুসতাদরাকে হাকেম, হাদীস : ১৬৮৬; তবারানী, হাদীস : ১১৫৯৫; শরহু মুশকিলুল আছার, হাদীস : ১২৮২) ইকরামা রাদিয়াল্লাহু আনহুকে জিজ্ঞাসা করা হল, সারুরা কী? তিনি বলেন, যে ব্যক্তি হজ্ব-উমরাহ কিছুই করে না অথবা যে ব্যক্তি কুরবানী করে না।(শরহু মুশকিলুল আছার ২/২১৫-১৬) সুফিয়ান ইবনে উয়াইনা রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, জাহেলী যুগে যখন কোনো ব্যক্তি হজ্ব করত না তখন তারা বলত, সে সারুরা (বৈরাগী)। তখন আল্লাহর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ইসলামে বৈরাগ্য নেই।(শরহু মুশকিলুল আছার ২/২১৫-১৬) যারা হজ্বের সফরের সৌভাগ্য লাভ করেন তারা যেন আল্লাহর মেহমান। তাই প্রত্যেকের উচিত সর্বদা আল্লাহর আনুগত্য ও তার ইশক-মুহববতের অনুভূতি নিয়ে সেখানে অবস্থান করা। বায়তুল্লাহ ও আল্লাহর অন্যান্য শেআর ও নিদর্শনের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা। সকল প্রকার গুনাহ থেকে বেঁচে থাকা। দ্বন্দ-কলহ, ঝগঙা-বিবাদ এবং অন্যায়-অশ্লীলতা থেকে সর্বাত্মকভাবে দূরে থাকা। কুরআন-হাদীসে এ সম্পর্কে বিশেষ হুকুম নাযিল হয়েছে। হজ্বের প্রস্তুতি: —————- ১. হজ্বে গমনকারীর জন্য সর্বপ্রথম কাজ হলো নিজের নিয়তকে বিশুদ্ধ করা। কারণ বিশুদ্ধ নিয়ত ছাড়া আল্লাহ তাআলা বান্দার কোন ইবাদত কবুল করেন না। অন্তরে যেন বিন্দু পরিমান লৌকিকতা-লোক দেখানো, কারো কাছে প্রশংসিত হওয়ার মানসিকতা না থাকে বরং একমাত্র আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টিই যেন উদ্দেশ্য থাকে। ২. হজ্বের উদ্দেশ্যে বের হওয়া যেন দুনিয়া ত্যাগ করার মত হয়ে যায়, সুতরাং নিজের জীবনের অতীতের সমস্ত কবীরা-সগীরা গুনাহের কথা স্মরণ করে অনুতপ্ত এবং ভবিষ্যতে গোনাহ না করার দৃঢ় সংকল্প করে মহান আল্লাহর দরবারে তাওবা-এস্তেগফার করা এবং তাওবার নিয়তে দু’ রাকাত নামায আদায় করা। ৩. নিজের উপর কারো আর্থিক বা দৈহিক হক্ব থাকলে তা যথাসম্ভব পরিশোধ করা। অসামর্থবান হলে ক্ষমা চাওয়া এবং হকদার ব্যক্তি মৃত্যুবরণ করলে তার উত্তরাধিকারীদের সাথে আর্থিক বিষয়টি নিষ্পত্তি করা এবং তাও যদি সম্ভব না হয় তাহলে সমপরিমাণ অর্থ ঐ হকদারের জন্য (প্রাপ্যব্যক্তির) সওয়াবের নিয়তে সদকা করা। ৪. হজ্বে যাওয়ার পূর্বে পরিবার পরিজনের খোর-পোষের ব্যবস্থা করে যাওয়া। কোন বিষয়ে নির্দেশনা থাকলে ওয়ারিশদের ওসিয়ত করে যাওয়া। ৫. অবশ্যই হালাল উপার্জন নিয়ে হজ্বে যাওয়া উচিৎ। কেননা হারাম উপার্জন দিয়ে হজ্ব করলে তা কবুল হবে না, যদিও হজ্ব করার কারনে হজ্ব করার দায়িত্ব আদায় হয়ে যাবে। ইমাম গাজালী রহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, কেউ যদি হারাম উপার্জন দিয়ে হজ্ব করে তাহলে সে যেন হজ্বের সফরে নিজের খানা হালাল উপার্জন দিয়ে করে, তা যদি সম্ভব না হয় তাহলে ইহরাম অবস্থায় হারাম টাকা থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করবে। তাও যদি সম্ভব না হয় তাহলে কমপক্ষে আরাফার দিন হারাম খানা থেকে বিরত থাকবে। কোন ব্যক্তি যদি হজ্বের ইচ্ছা পোষণ করে আর তার কাছে হালাল উপার্জন না থাকে তাহলে সে হারাম সম্পদ ব্যবহার না করে ঋণ করে হজ্ব করবে এবং পরবর্তীতে তা পরিশোধ করে দিবে। ৬. সুদকে নিজের জীবনের জন্য সর্বাবস্থায় হারাম হিসেবে গণ্য করে সুদের উৎসমূল নির্মূলে সচেষ্ট হওয়া। ঘুষ, প্রতারণা, পরের সম্পদ আত্মসাৎ, যাদুবিদ্যা চর্চা ও বিশ্বাস এবং জুয়া ইত্যাদি যাবতীয় নিষিদ্ধ সকল গর্হিত কাজ থেকে সম্পূর্ণরূপে বিরত থাকার অঙ্গীকার করা। ৭. গীবত, অহংকার পরনিন্দা, হিংসা-বিদ্বেষ সম্পূর্ণ পরিহার করা এবং হজ্বের পরেও এর উপর সুপ্রতিষ্ঠিত থাকা। ৮. ঋণ থাকলে যথাসম্ভব তাড়াতাড়ি পরিশোধ করা এবং বিষয়টি সময়সাপেক্ষ হলে উত্তরাধিকারীদের তা অবগত করানো। যাতে যে কোন দুর্ঘটনায় তারা তা আদায় করতে পারে। ৯. নিজের স্ত্রীর মোহরানা বাকি থাকলে হজ্বের পূর্বেই তা আদায় করার চেষ্টা করা। অথবা স্ত্রীর স্বতঃস্ফূর্ত সম্মতি বা পারস্পরিক সমাঝতায় ব্যবস্থা করা ও স্ত্রী, পুত্র-কন্যা তথা পরিবার পরিজনকে তাকওয়ার নীতি অবলম্বনে ইসলামের উপর অটল থাকার জন্য কড়া নির্দেশ দেয়া। ১০. হজ্বে যাওয়ার পূর্বে জীবিত পিতা-মাতার খেদমতের সুব্যস্থা করা, তাদের মনে কষ্ট দিয়ে থাকলে ক্ষমা চেয়ে নেয়া এবং হজ্বে তাদের কথা স্মরণ করে বার বার দোয়া করা। ১১. অপ্রয়োজনীয় কথা না বলে বেশি বেশি জিকির, দোয়া, দুরূদ, ‍মুনাজাত ইত্যাদিতে ব্যাস্ত থাকা এবং সকল স্থানে নারী-পুরুষ সকলের উচিৎ দৃষ্টিকে সংযত করে রাখা এবং সর্বাবস্থায় আল্লাহর সাহায্য চাওয়া।

হজ্ব ও ওমরা বিষয়ক বিস্তারিত মাসআলা পড়ুন এখানে- হজ্ব ও ওমরার পূর্ণাঙ্গ গাইড লাইন

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s