লা-মাযহাবীদের শায়েখুল ইসলাম ইবনু তাইমিয়্যাহ এর মৃত্যুঃ শিরক বেদ’আতের আড্ডা

Standard

নুরোধঃ
শেয়ার করবেন পোস্টটি।
____________________________________________________________
হাফিয ইবনু কাসীর (ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ছাত্র) ঘটনা উল্লেখ করে বলেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহ দিমাশকে ইন্তেকাল করেন। গোসল দেয়ার পূর্বে একদল লোক মৃতদেহের পাশে বসলেন এবং কোর’আন তেলাওয়াত করলেন। (উল্লেখ্য, লা-মাযহাবীরা মৃত ব্যক্তির পাশে কোর’আন তেলাওয়াতকে বেদ’আত বলে থাকে) এবং তারা মৃতদেহ দর্শন করে এবং মৃতদেহ চুম্বন করে বরকত হাসিল করলেন। অতঃপর তারা সেখান থেকে চলে গেলেন। এরপর একদল মহিলা এসে উপস্থিত হলেন। তারাও একইভাবে কোর’আন তেলাওয়াত, দর্শন, এবং চুম্বন করে বরকত হাসিল করলেন এবং চলে গেলেন। (উল্লেখ্য, এগুলো লামাযহাবীদের নিকট চরম বেদ’আত)
অনেক আলোচনা। আগ্রহী ব্যক্তি আরবী এবারত পড়ে নেবেন।
অতঃপর যখন তাঁর জানাযা শেষ হলো, তখন তাঁকে (মাকবারাতুস সুফিয়্যাহ) সুফীদের কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া হলো এবং তাঁর ভাই শরফুদ্দীন আব্দুল্লাহ এর পাশে দাফন করা হলো।
(উল্লেখ্য, লা-মাযহাবীরা সুফীদেরকে মুশরিক বলে থাকে। তারমানে তাদের কথা মত, তাদের শায়েখুল ইসলামকে মুশরিকদের কবরস্থানে দাফন করা হলো। শায়খুল ইসলামের শেষ ঠিকানা হলো মুশরিকদের কবরস্থানে!)
ইবনু কাসীর বলছেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ইন্তেকাল উপলক্ষে ১৫ হাজার মহিলা এবং প্রায় ২লক্ষ পুরুষ উপস্থিত হয়েছিল। মহিলারা অনেক কান্নাকাটি ও করেছিল।
এরপর ইবনু কাসীর বলেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহকে গোসল দেয়ার পর যে পানি অবশিষ্ট ছিল, একদল লোক তা পান করলো। আরেকদল লোক বরই পাতাগুলো ভাগাভাগি করে নিয়ে গেল যা গোসলের পর অবশিষ্ট রয়েছিল। (অবশ্যই এ কাজ গুলো করা হয়েছিল বরকত হাসিলের নিয়ত করে। আর লা-মাযহাবীরা বলে এটা বেদ’আত, হারাম)
এরপর ইবনু কাসীর বলছেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহর মাথায় উকুন ছিল বিধায় তিনি গলায় তাগা ব্যবহার করতেন।
(খাইছে, লা-মাযহাবীরা বলে থাকে, তাবিজ, তাগা ঝুলানো স্পষ্ট শিরক। তারমানে তাদের শায়খুল ইসলাম উকুনের ভয়ে ঐ শিরক কাজ তাঁর জীবনে করলেন! উকুনের যদি এতই ভয়, তো আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন, তাগা ঝুলাবেন কেন, তাই না?)
ইবনু কাসীর বলছেন, ঐ তাগাকে ১৫০ দিরহামে বিক্রয় করা হলো। আর তাঁর মাথায় ব্যবহৃত টুপিটি ৫০০ দিরহামে বিক্রয় করা হলো।
(অবশ্যই যারা কিনেছিলেন, তারা বরকত হাসিলের জন্য এত দাম দিয়ে এগুলো কিনেছিলেন, তাই নয় কি?)
এরপর ইবনু কাসীর বলছেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ইনতেকাল উপলক্ষে অনেক খতম আদায় করা হলো। আর অনেকদিন পর্যন্ত ইবনু তাইমিয়্যাহ এর কবরের পাশে লোকজন দিন রাত (২৪ ঘন্টা) অবস্থান করেছিল। তারা সেখানে ঘুমাতো এবং ভোর করতো।
( হায় আল্লাহ, এ তো দেখি, রীতিমত উরস আর কবরপূজা। তারমানে, অনেকদিন পর্যন্ত ইবনু তাইমিয়্যাহ এর কবরের পূজা অর্চনা করা হলো, তাও আবার দিন রাত একই সমান্তরাল গতিতে! লাগাও এবার ফতোয়া।)
_____________________________________
এ হলো তোমাদের শায়খুল ইসলাম ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ঘটনা, লিখেছেন তারই ছাত্র হাফিয ইবনু কাসীর তাঁর আল বিদায়াহ ওয়ান নেহায়াহ নামক কিতাবে।
ব্যাটারা,
তোমরা তো মুখে শিরক আর বেদ’আতের ফতোয়া দিয়ে থাক, এবার কী বলবে? তাই বলি, ধর্ম নিয়ে ব্যাবসা ছাড় আর চুপ থাক, নইলে তোমাদের আরো যা কিছু কুকীর্তি আছে, সব একে একে প্রকাশ করা হবে।

image

image

image

image

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s