লা-মাযহাবীদের শায়েখুল ইসলাম ইবনু তাইমিয়্যাহ এর মৃত্যুঃ শিরক বেদ’আতের আড্ডা

Standard

নুরোধঃ
শেয়ার করবেন পোস্টটি।
____________________________________________________________
হাফিয ইবনু কাসীর (ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ছাত্র) ঘটনা উল্লেখ করে বলেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহ দিমাশকে ইন্তেকাল করেন। গোসল দেয়ার পূর্বে একদল লোক মৃতদেহের পাশে বসলেন এবং কোর’আন তেলাওয়াত করলেন। (উল্লেখ্য, লা-মাযহাবীরা মৃত ব্যক্তির পাশে কোর’আন তেলাওয়াতকে বেদ’আত বলে থাকে) এবং তারা মৃতদেহ দর্শন করে এবং মৃতদেহ চুম্বন করে বরকত হাসিল করলেন। অতঃপর তারা সেখান থেকে চলে গেলেন। এরপর একদল মহিলা এসে উপস্থিত হলেন। তারাও একইভাবে কোর’আন তেলাওয়াত, দর্শন, এবং চুম্বন করে বরকত হাসিল করলেন এবং চলে গেলেন। (উল্লেখ্য, এগুলো লামাযহাবীদের নিকট চরম বেদ’আত)
অনেক আলোচনা। আগ্রহী ব্যক্তি আরবী এবারত পড়ে নেবেন।
অতঃপর যখন তাঁর জানাযা শেষ হলো, তখন তাঁকে (মাকবারাতুস সুফিয়্যাহ) সুফীদের কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া হলো এবং তাঁর ভাই শরফুদ্দীন আব্দুল্লাহ এর পাশে দাফন করা হলো।
(উল্লেখ্য, লা-মাযহাবীরা সুফীদেরকে মুশরিক বলে থাকে। তারমানে তাদের কথা মত, তাদের শায়েখুল ইসলামকে মুশরিকদের কবরস্থানে দাফন করা হলো। শায়খুল ইসলামের শেষ ঠিকানা হলো মুশরিকদের কবরস্থানে!)
ইবনু কাসীর বলছেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ইন্তেকাল উপলক্ষে ১৫ হাজার মহিলা এবং প্রায় ২লক্ষ পুরুষ উপস্থিত হয়েছিল। মহিলারা অনেক কান্নাকাটি ও করেছিল।
এরপর ইবনু কাসীর বলেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহকে গোসল দেয়ার পর যে পানি অবশিষ্ট ছিল, একদল লোক তা পান করলো। আরেকদল লোক বরই পাতাগুলো ভাগাভাগি করে নিয়ে গেল যা গোসলের পর অবশিষ্ট রয়েছিল। (অবশ্যই এ কাজ গুলো করা হয়েছিল বরকত হাসিলের নিয়ত করে। আর লা-মাযহাবীরা বলে এটা বেদ’আত, হারাম)
এরপর ইবনু কাসীর বলছেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহর মাথায় উকুন ছিল বিধায় তিনি গলায় তাগা ব্যবহার করতেন।
(খাইছে, লা-মাযহাবীরা বলে থাকে, তাবিজ, তাগা ঝুলানো স্পষ্ট শিরক। তারমানে তাদের শায়খুল ইসলাম উকুনের ভয়ে ঐ শিরক কাজ তাঁর জীবনে করলেন! উকুনের যদি এতই ভয়, তো আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন, তাগা ঝুলাবেন কেন, তাই না?)
ইবনু কাসীর বলছেন, ঐ তাগাকে ১৫০ দিরহামে বিক্রয় করা হলো। আর তাঁর মাথায় ব্যবহৃত টুপিটি ৫০০ দিরহামে বিক্রয় করা হলো।
(অবশ্যই যারা কিনেছিলেন, তারা বরকত হাসিলের জন্য এত দাম দিয়ে এগুলো কিনেছিলেন, তাই নয় কি?)
এরপর ইবনু কাসীর বলছেন,
ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ইনতেকাল উপলক্ষে অনেক খতম আদায় করা হলো। আর অনেকদিন পর্যন্ত ইবনু তাইমিয়্যাহ এর কবরের পাশে লোকজন দিন রাত (২৪ ঘন্টা) অবস্থান করেছিল। তারা সেখানে ঘুমাতো এবং ভোর করতো।
( হায় আল্লাহ, এ তো দেখি, রীতিমত উরস আর কবরপূজা। তারমানে, অনেকদিন পর্যন্ত ইবনু তাইমিয়্যাহ এর কবরের পূজা অর্চনা করা হলো, তাও আবার দিন রাত একই সমান্তরাল গতিতে! লাগাও এবার ফতোয়া।)
_____________________________________
এ হলো তোমাদের শায়খুল ইসলাম ইবনু তাইমিয়্যাহ এর ঘটনা, লিখেছেন তারই ছাত্র হাফিয ইবনু কাসীর তাঁর আল বিদায়াহ ওয়ান নেহায়াহ নামক কিতাবে।
ব্যাটারা,
তোমরা তো মুখে শিরক আর বেদ’আতের ফতোয়া দিয়ে থাক, এবার কী বলবে? তাই বলি, ধর্ম নিয়ে ব্যাবসা ছাড় আর চুপ থাক, নইলে তোমাদের আরো যা কিছু কুকীর্তি আছে, সব একে একে প্রকাশ করা হবে।

image

image

image

image

Advertisements

সাহাবাকেরাম কি মিলাদুন্নবী পালন করেছিলেন?

Standard

মূল: সুফফাহ ফাউন্ডেশন
অনুবাদ: কাজী সাইফুদ্দীন হোসেন
[Bengali translation of Suffah Foundation’s Online article “Did the Sahaba celebrate Mawlid?” Translator: Kazi Saifuddin Hossain]

আল্লাহর নামে অরম্ভ, যিনি অত্যন্ত দয়ালু, দাতা।
আমাদের আকা ও মওলা হযরত রাসূলুল্লাহ (দ:), তাঁর আহলে বায়ত (রা:) ও আসহাবে কেরাম (রা:)-এর প্রতি সালাত ও সালাম।

সাহাবা (রা:)-বৃন্দের আমলের আলোকে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপনের শরয়ী বৈধতা 

আমাদের মধ্যে একটি সংখ্যালঘু দল সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) কর্তৃক মীলাদুন্নবী (দ:) পালনের প্রমাণ প্রদর্শনের জন্যে প্রায়ই আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতকে চ্যালেন্জ করে থাকে। এসব সংকীর্ণ মস্তিষ্কের লোক যা উপলব্ধি করে না তা হলো, প্রতিটি এবাদত-বন্দেগী, প্রতিটি পুণ্যদায়ক কর্ম যা আমরা অনুশীলন করি, তা প্রকৃতপক্ষে মীলাদেরই উদযাপন তথা যিকর-তাযকিরাহ। কেননা, প্রিয়নবী (দ:)-এর বেলাদত তথা মীলাদ না হলে আমরা এমন কি মুসলমানও হতে পারতাম না। ইসলামের পথে আমরা যদি এমন কি মুসলমান-ই না হতে পারি, তাহলে আমাদের হৃদস্পন্দনের কী-ই বা মূল্য থাকবে? আমাদের নেয়া প্রতিটি নিঃশ্বাস যে মহানবী (দ:)-এর মীলাদ (ধরাধামে শুভাগমন)-এর কারণে আল্লাহতা’লার দানকৃত এক রহমত (করুণা)-বিশেষ, সে কথা যারা বুঝতে পারে না, আল্লাহতা’লা যেন তাদেরকে হেদায়াত দান করেন।

সাহাবা (রা:)-বৃন্দ এই বিষয়ে যে আমল পালন করেছেন, এ দলটি তার সপক্ষে প্রামাণ্য দলিল দেখতে চায়। আমরা মীলাদের বিষয়টি আপাততঃ স্থগিত রেখে এই সংখ্যালঘু দলকে জিজ্ঞেস করতে চাই, আপনারা পালন করেন এমন যে কোনো একটিমাত্র আমল দেখান, যেটি মহানবী (দ:)-এর সাহাবী (রা:)-বৃন্দের আমলের মতো একই জযবাত, শক্তি ও মহিমা ধারণ করে? সত্যি, তারা এর জবাব কখনোই দিতে সক্ষম হবে না; কারণ সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) শ্রেষ্ঠত্বের আসনে ছিলেন আসীন, যাঁদের এবাদত ও আমল সরাসরি মহানবী (দ:)-এর শিক্ষা দ্বারা পূর্ণতাপ্রাপ্ত হয়েছিল।

হয়তো এসব লোক অনুধাবন করতে পারে না যে মহানবী (দ:)-এর বেলাদত না হলে হযরত আবূ বকর (রা:) নবী দাবিদার ভণ্ডদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ-ই করতেন না; হযরত উমর ফারূক (রা:) আফ্রিকা ও ইউরোপে মুসলিম সাম্রাজ্যের গোড়াপত্তন-ও করতেন না; হযরত উসমান (রা:) তাঁর সমস্ত সম্পদ মুসলমানদের জন্যে দান-ও করতেন না; আর হযরত আলী (ক:)-ও খারেজী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে লড়তেন না।

আজকে কেউই বাস্তবিকভাবে শীর্ষস্থানীয় সাহাবা-এ-কেরাম (রা:)-এর আমল অনুসরণের দাবি করতে পারে না, কেননা ইসলামের জন্যে তাঁদের খেদমত ও ত্যাগ অতুলনীয় ছিল। তবে আমরা কুরআন ও সুন্নাহ অনুযায়ী আমাদের আমলকে নিশ্চিত করতে পারি। অতএব চলুন, আমরা সত্যকে মিথ্যে দাবি হতে এক্ষণে পৃথক করি; মীলাদ-সংক্রান্ত যাবতীয় আমলকে আমরা যাচাই করি এবং পর্যবেক্ষণ করি সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) কখনো এগুলো পালন করেছিলেন কি না।

জরুরি জ্ঞাতব্য: প্রামাণ্য দলিল উপস্থাপনের আগে পাঠকদের অনুরোধ করা হচ্ছে শরীয়তের বিধানের এই বিষয়টির দিকে খেয়াল রাখতে যে, মহানবী (দ:)-এর সামনে কোনো ঘটনা বা কর্ম সংঘটিত হওয়ার সময় তাঁর মৌনতা-ই ওই বিষয়ের প্রতি তাঁর সমর্থন বলে বিবেচিত হবে (যদি না তিনি তাতে বাধা দেন বা স্পষ্টভাবে নিষেধ করেন); অার সেটি তাঁর অনুমোদিত আমল (সুন্নাতে তাকরিরী) হিসেবেও সাব্যস্ত হবে। বর্তমানকালে এটি খুবই হতাশাব্যঞ্জক যে মীলাদ মাহফিলে বা মজলিশে মুসলমানদেরকে শেরেক (অংশীবাদ) সংঘটনের দোষারোপ করা হচ্ছে। এই দোষারোপ একেবারেই বৃথা, কেননা মুসলমান হওয়ার মানেই হলো এক আল্লাহর এবাদত-বন্দেগী করা, যিনি সর্বশক্তিমান।

উদাহরণস্বরূপ, শায়খুল ইসলাম ইমাম ইবনে হাজর হায়তামী মক্কী (রহ:)-এর বক্তব্য উদ্ধৃত করা যায়। তিনি বলেন:

আমাদের সময় মওলিদ বা মীলাদের যে সমাবেশ হয়, সেগুলো মূলতঃ নেক আমল। যেমন, এতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে দান-সদকাহ, যিকর-আযকার, মহানবী (দ:)-এর প্রতি দরুদ-সালাম পাঠ ও তাঁর প্রশংসা……আর মীলাদের দ্বিতীয় ধরনের মজলিশ হলো সুন্নাত, যা যিকর-আযকার সংক্রান্ত হাদীসসমূহে বর্ণিত হয়েছে। ইমাম মুসলিম বর্ণিত একটি হাদীসে রাসূলুল্লাহ (দ:) এরশাদ ফরমান: মানুষেরা আল্লাহর যিকির-তাযকেরায় উপবিষ্ট থাকাকালীন ফেরেশতাকুল তাদের ঘিরে রাখে এবং তাদের ওপর শান্তি নেমে আসে। [ফাতাওয়া অাল-হাদিসীয়্যা, ২০২ পৃষ্ঠা; এই ফতোওয়ায় নিষিদ্ধ কাজগুলো সম্পর্কেও সতর্ক করা হয়েছে, তবে ওপরের এ বক্তব্য সারা বছর ওই হারাম কাজ থেকে বাঁচার এক মানদণ্ড বটে]

মীলাদুন্নবী (দ:)-এর সংজ্ঞা

মীলাদ শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে (আরবী) ‘বেলাদত’ শব্দটি থেকে। সুতরাং আরবী ভাষায় মীলাদ শব্দটির অর্থ জন্মের স্থান ও সময়। শরীয়তের অালোকে আমরা বুঝি, মহানবী (দ:)-এর ধরাধামে শুভাগমনের সময় যেসব ঘটনা ঘটেছিল, তা-ই হচ্ছে মীলাদ; আর আমরা এই শুভলগ্নে তাঁর সীরাহ (জীবন ও কর্ম) আলোচনার সুযোগও পেয়ে থাকি। এছাড়াও মীলাদে আমরা মহানবী (দ:)-এর প্রতি হাদীয়া হিসেবে দরুদ ও সালাম পেশ করে থাকি। মানুষের কাছে প্রিয়নবী (দ:)-এর অনুপম বৈশিষ্ট্যাবলী বর্ণনা এবং তাঁর প্রশংসাও করা হয়। আমরা বিশ্বাস করি না যে মীলাদ মাহফিল কোনো নির্দিষ্ট দিনে সীমাবদ্ধ রাখা চাই, বরং রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর যিকর-তাযকেরা (স্মরণ) প্রতিটি মিনিট ও প্রতিটি সেকেন্ডেই করা চাই। মীলাদুন্নবী (দ:) হচ্ছে ধর্মপ্রচারের এক মহা উৎস। এটি দাওয়াহ কার্যক্রমের একটি মোক্ষম সুযোগ এবং এই শুভলগ্নে উলামাবৃন্দ মুসলমানদেরকে ধর্মশিক্ষা দিতে পারেন; মহানবী (দ:)-এর নৈতিক আচার-ব্যবহার, সৌজন্য, তাঁর বিষয়াদি ও সীরাত, তাঁর লেনদেন ও শামায়েল সম্পর্কেও তাঁরা শেখাতে পারেন।

১/ – ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে কোনো নির্দিষ্ট দিন-তারিখ নির্ধারণ

মুসলিম উম্মাহ (জাতি) ১২ই রবিউল আউয়াল তারিখ যেভাবে উদযাপন করে থাকেন, সাহাবা-এ-কেরাম (রা:)-ও কি ইসলাম প্রচারের জন্যে এরকম দিন-তারিখ ঠিক করতেন? সহীহ বোখারী শরীফের উদ্ধৃতিটি দেখুন:

আবূ ওয়াইল বর্ণনা করেন যে হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা:) প্রতি বৃহষ্পতিবার মানুষের কাছে ধর্মীয় ওয়ায-নসীহত করতেন। একবার এক ব্যক্তি আরয করেন, “এয়া আবা আবদ্ আর্ রাহমান, আল্লাহর কসম! আমি চাই আপনি যদি আমাদের মাঝে প্রতিদিনই ধর্মের বাণী প্রচার করতেন।” তিনি উত্তর দেন, “আমাকে এ কাজে বাধা দিচ্ছে একমাত্র যে জিনিসটি, তা হলো আমি তোমাদের বিরক্তির কারণ হওয়াকে অপছন্দ করি; আর নিঃসন্দেহে আমি তোমাদের মাঝে ধর্মের বাণী প্রচারে যত্নবান বিধায় এমন উপযুক্ত সময়ই বেছে নিয়েছি, যেমনটি একই বিরক্তির আশঙ্কায় মহানবী (দ:) আমাদের (সাহাবীদের) মাঝে ধর্মপ্রচারের সময়-ক্ষণ বেছে নিয়েছিলেন।” [সহীহ বোখারী, ১ম খণ্ড, ৩য় বই, হাদীস নং ৭০]

অবশ্যঅবশ্য মীলাদুন্নবী (দ:)-এর উদযাপন কেবল ১২ই রবিউল আউয়াল তারিখেই সীমাবদ্ধ রাখা উচিত নয়, বরং সর্বদা আল্লাহতা’লা ও তাঁর রাসূল (দ:)-এর যিকর-তাযকেরায় আমাদের প্রতিটি নিঃশ্বাসে স্মরণ করা উচিত।

২/ – আল্লাহতা’লা ও তাঁর রাসূল (দ:)-এর যিকর-তাযকেরার উদ্দেশ্যে সমাবেশ

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা:) হতে বর্ণিত যে, একবার একদল সাহাবী (রা:) সমবেত হয়ে মজলিশে বসেছিলেন এবং রাসূলুল্লাহ (দ:) তাঁদের দিকে আসার সময় তাঁদেরকে বলাবলি করতে শুনতে পান। তাঁদের কেউ কেউ বলছিলেন যে আল্লাহতা’লা হযরত ইব্রাহীম (আ:)-কে বন্ধু (খলীলউল্লাহ) হিসেবে গ্রহণ করেন; আবার অন্য সাহাবী (রা:)-বৃন্দ বলাবলি করছিলেন যে আল্লাহ পাক হযরত মূসা (আ:)-কে কালীমউল্লাহ (আল্লাহর সাথে সরাসরি আলাপকারী) হিসেবে গ্রহণ করেন; আরো কিছু সাহাবী (রা:) বলেন যে অাল্লাহ সোবহানাহু ওয়া তা’লা হযরত ঈসা (আ:)-কে ‘আল্লাহর বাক্য’ হিসেবে গ্রহণ করে নেন; অপর কিছু সাহাবী (রা:) মতামত ব্যক্ত করেন যে আল্লাহতা’লা হযরত আদম (আ:)-কে পছন্দ করে নেন। অতঃপর রাসূলুল্লাহ (দ:) তাঁদেরকে বলেন, “আমি তোমাদের এ আলাপ শুনতে পেয়েছি। তোমরা আশ্চর্যান্বিত হচ্ছো হযরত ইব্রাহীম (আ:)-এর খলীলউল্লাহ হওয়ার বিষয়ে, এবং এটি সত্য; আর হযরত মূসা (আ:)-এর নাজীউল্লাহ (আল্লাহ কর্তৃক নাজাতপ্রাপ্ত) হওয়ার বিষয়েও, এবং এটিও সত্য; আর হযরত ঈসা (আ:)-এর রূহুল্লাহ হওয়ার বিষয়েও, এবং এটিও সত্য; আর হযরত আদম (আ:)-এর আল্লাহ কর্তৃক পছন্দকৃত হওয়ার বিষয়েও, এবং এটিও সত্য; কিন্তু আমি হলাম হাবীবউল্লাহ (আল্লাহর বন্ধু), এবং আমি এ কথা গর্ব না করেই বলছি (হাবীবুল্লাহ ওয়া লা ফাখর); আর শেষ বিচার দিবসে আমি-ই হবো প্রশংসার পতাকাবাহক; আর হযরত আদম (আ:) ও তাঁর বংশের (অর্থাৎ, মানবকুলের) সবাই ওই দিন আমার পতাকাতলে থাকবেন, এবং আমি এ কথা গর্ব না করেই বলছি; শেষ বিচার দিবসে আমি-ই হবো প্রথম শাফায়াত তথা সুপারিশকারী এবং সর্বপ্রথম সুপারিশ আমি-ই করবো, এবং আমি এ কথা গর্ব না করেই বলছি; আর আমি-ই সর্বপ্রথম বেহেশতের দরজার চাবি খুলবো এবং আল্লাহ আমার জন্যে বেহেশত উন্মুক্ত করবেন, আর আমি-ই সর্বপ্রথম তাতে প্রবেশ করবো; আর আমার সাথে থাকবে আমারই উম্মতের গরিব ও বিনয়ী ঈমানদারবৃন্দ, এবং আমি এ কথা গর্ব না করেই বলছি; আর সৃষ্টিকুলের মাঝে প্রথম হতে শেষ জনের মধ্যে আমাকেই সর্বপ্রথম সম্মানিত করা হবে, এবং আমি এ কথা গর্ব না করেই বলছি।” [তিরমিযী শরীফ: কিতাবুল মানাকিব; বাবুন্ ফী ফযল আন্ নবী (অনুপম বৈশিষ্ট্যাবলী অধ্যায়); ইমাম দারিমী, হাফেয ইবনে কাসীর, ইমাম সৈয়ুতী ও অন্যান্য উলামাও এ হাদীস বর্ণনা করেন]

সন্দেহ পোষণকারীদের বোঝা উচিত, মীলাদুন্নবী (দ:)-এর প্রকৃত মজলিশ হলো মসজিদে (বা অন্যত্র) সমবেত হয়ে সাইয়্যেদুনা মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের যিকর-তাযকেরা করা, ঠিক যেমনটি সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) অন্যান্য নবী-রাসূল (আ:)-বৃন্দের যিকর-তাযকেরা করেছিলেন। 

হযরত আবূ হোরায়রা (রা:) বর্ণনা করেন মহানবী (দ:)-এর বাণী, যিনি বলেন: “আল্লাহ পাক ঘোষণা করেন, ‘আমার (প্রিয়) বান্দা আমার প্রতি যে আকাঙ্ক্ষা রাখে, আমি তা পূরণ করি; সে আমার যিকর করলে আমি তার সাথে থাকি; সে নিভৃতে আমায় স্মরণ করলে আমিও তাকে নিভৃতে স্মরণ করি; অার দলবদ্ধভাবে স্মরণ করলে অামি তার চেয়েও উত্তম এক দলে তাকে স্মরণ করি…।” [একটি বড় বর্ণনার অংশ এটি; সহীহ বোখারী, ৯ম খণ্ড, ৯৩তম বই, হাদীস নং ৫০২]

হযরত আবূ সাঈদ খুদরী (রা:) বর্ণনা করেন যে হযরত মোয়াবিয়া (রা:) মসজিদে অনুষ্ঠিত একটি হালাকায় (যিকরের সমাবেশে) উপস্থিত হয়ে জিজ্ঞেস করেন, “তোমরা কী কারণে এই মজলিশে বসেছো?” তারা উত্তর দেন, “আমরা আল্লাহতা’লার যিকর করতেই এখানে উপবিষ্ট।” তিনি বলেন, “আমি তোমাদের শপথ করেই বলতে বলছি (তোমরা এই উদ্দেশ্যেই এখানে বসেছো কি)?” তারা উত্তর দেন, “আল্লাহর নামে শপথ, আমরা এই বিশেষ উদ্দেশ্যেই বসেছি।” এমতাবস্থায় হযরত মোয়াবিয়া (রা:) বলেন, “আমি এ কারণে তোমাদেরকে শপথ করতে বলিনি যে তোমাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আছে, বা রাসুলুল্লাহ (দ:)-এর দৃষ্টিতে হাদীস বর্ণনাকারী হিসেবে আমার কোনো মর্যাদার খাতিরেও তা দাবি করিনি, যেহেতু আমি এতো স্বল্প সংখ্যক হাদীসের রাবী। (কিন্তু) সত্য হলো রাসূলুল্লাহ (দ:) একবার তাঁর সাহাবী (রা:)-বৃন্দের হালাকায় উপস্থিত হয়ে তাঁদের জিজ্ঞেস করেন, ‘তোমরা কেন এখানে বসেছো?’ তাঁরা উত্তর দেন, ‘আমরা এখানে আল্লাহতা’লার যিকর ও প্রশংসা করতে জমায়েত হয়েছি, কেননা তিনি-ই আমাদেরকে ইসলামের দিকে হেদায়াত দিয়েছেন এবং আমাদের প্রতি রহমত তথা করুণা বর্ষণ করেছেন।’ এমতাবস্থায় হুযূর পাক (দ:) আল্লাহর নামে শপথ করে তাঁদেরকে বলতে বলেন তাঁরা সত্যি ওই উদ্দেশ্যে সেখানে উপবিষ্ট হয়েছেন কি না। তাঁরা শপথ করে বলেন, ‘আমরা আল্লাহর নামে কসম করছি, এছাড়া আর কোনো উদ্দেশ্যে এখানে বসিনি।’ অতঃপর মহানবী (দ:) বলেন, ‘আমি শপথ করতে বলেছি এ কারণে নয় যে তোমাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আছে; বরং এ কারণে যে জিবরীল (আ:) আমার কাছে এসে আমাকে জানিয়েছেন, মহান আল্লাহ পাক ফেরেশতাদের কাছে তোমাদের (অর্থাৎ, সাহাবীদের) শ্রেষ্ঠত্ব ও মাহাত্ম্য সম্পর্কে আলোচনা করছিলেন’।” [সহীহ মুসলিম, ৩৫তম বই, হাদীস নং ৬৫৩১] 

ভালোভাবে লক্ষ্য করুন যে সাহাবা (আ:)-বৃন্দ আল্লাহর যিকর, হেদায়াত, ইসলাম ও রহমত তথা করুণার কথা উল্লেখ করেছিলেন; আর এতে কোনো সন্দেহ নেই যে প্রিয়নবী (দ:) হলেন আল্লাহতা’লার সর্বশ্রেষ্ঠ করুণা (রহমত) এবং যে ব্যক্তি আল্লাহ পাকের এই করুণাপ্রাপ্তিতে তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ হয়, তিনিও তার প্রতি সন্তুষ্ট হন। এটি নিশ্চিত যে ওই সাহাবা (রা:)-বৃন্দকে এই ধরনের যিকরের দল গঠনের কোনো সুনির্দিষ্ট নির্দেশ দেয়া হয়নি – আর তাঁদের সাক্ষী ছিলেন স্বয়ং মহানবী (দ:) যিনি তাঁদেরকে এই নেক আমলের ব্যাপারে (নেয়ামতের) সুসংবাদ দিয়েছিলেন। আল্লাহ পাক আমাদেরকেও (অর্থাৎ, মুসলমানদেরকেও) অনুরূপ জ্ঞান-প্রজ্ঞা মঞ্জুর করুন, আমীন।

যিকরের সমাবেশ সম্পর্কে ইবনে তাইমিয়ার অভিমত

ইবনে তাইমিয়াকে জিজ্ঞেস করা হয় সেসব মানুষ সম্পর্কে যারা মসজিদে সমবেত হয়ে যিকর করেন এবং কুরআন তেলাওয়াত করেন; আর আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করে প্রার্থনা করার সময় মাথা থেকে পাগড়ী অপসারণ করেন (খালি মাথায় থাকেন)। এ সময় তাঁদের নিয়্যত অহঙ্কার নয়, বা রিয়া তথা প্রদর্শনীও নয়, বরঞ্চ আল্লাহর নৈকট্য হাসিল করাই একমাত্র ধ্যান-জ্ঞান। এটি গ্রহণযোগ্য কি না?

ইবনে তাইমিয়া উত্তর দেয়: এটি গ্রহণযোগ্যই শুধু নয়, বরং উত্তম ও প্রশংসনীয় (নেক) আমল। [মজমু’আয়ে ফাতাওয়ায়ে ইবনে তাইমিয়া, ২২তম খণ্ড, ২৫৩ পৃষ্ঠা, বাদশাহ খালেদ বিন আবদ্ আল-আযীয সংস্করণ]

৩/ – দান-সদকাহ

হযরত আসমা (রা:) বর্ণনা করেন রাসূলে পাক (দ:)-এর হাদীস, যিনি বলেন: “দান-সদকাহ করো এবং অনিচ্ছাসহ তা করো না, যাতে আল্লাহতা’লা তোমাদের প্রতি তাঁর দান সীমিত না করে দেন; আর তোমাদের অর্থ (দান-খয়রাত হতে) আটকে রেখো না, যাতে আল্লাহতা’লা তোমাদের কাছ থেকে তা আটকে না রাখেন।” [সহীহ বোখারী, ৩য় খণ্ড, ৪৭তম বই, হাদীস নং ৭৬৪]    

হযরত আবূ হোরায়রা (রা:) হতে বর্ণিত; একবার এক ব্যক্তি মহানবী (দ:)-কে প্রশ্ন করেন, “এয়া রাসূলাল্লাহ (দ:)! কোন্ ধরনের দান-সদকাহ সবচেয়ে ভালো?” তিনি উত্তর দেন, “দান-সদকাহ করা ঠিক ওই সময়ে, যখন তুমি স্বাস্থ্যবান এবং সম্পদ আহরণের উচ্চাকাঙ্ক্ষা রাখো, আর গরিব হওয়ার ব্যাপারে শঙ্কিত থাকো। দান-সদকাহ করায় বিলম্ব করো না যতোক্ষণ না তুমি মৃত্যু শয্যায় শায়িত হয়ে বলো, ‘অমুককে এইটুকু দেবে, তমুককে ওইটুকু দেবে’; কেননা ওই সময় সহায়-সম্পত্তি আর তোমার নেই, বরং তা অমুক-তমুকের হয়ে গিয়েছে (মানে উত্তরাধিকারীদের মালিকানাধীন হয়েছে)।” [সহীহ বোখারী, ৪র্থ খণ্ড, ৫১তম বই, হাদীস নং ১১]   

তাহলে দান-সদকাহ করা কি বেদআত? অবশ্যই নয়! আর এই দান করার জন্যে কোনো নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়নি যে কখন হালাল হবে আর কখন তা হারাম হবে। আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যে দান-সদকাহ করা বছরের প্রতিটি দিন-ই জায়েয। এই নেক তথা পুণ্যদায়ক কাজ হতে মানুষদেরকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করাই হলো খোদ এক বেদআত! অতএব, আপনারা নিজেরাই দেখুন কারা বেদআতী!

৪/ – মহানবী (দ:)-এর প্রতি দরূদ-সালাম পাঠ

আল্লাহতা’লা এরশাদ ফরমান: “নিশ্চয় আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতাবৃন্দ দরূদ প্রেরণ করেন ওই অদৃশ্য বক্তা (নবী)-এর প্রতি। হে ঈমানদার মুসলমান সকল! তোমরাও তাঁর প্রতি দরূদ ও (ভক্তিসহ) সালাম প্রেরণ করো।” [আল-কুরআন, ৩৩:৫৬; তাফসীরে কানযুল ঈমান বাংলা সংস্করণ]

হযরত আবদুল্লাহ বিন আমর বিন আল-’আস্ (রা:) বর্ণনা করেন যে তিনি মহানবী (দ:)-কে বলতে শুনেছেন, “কেউ আমার প্রতি একবার সালাওয়াত পাঠ করলে আল্লাহতা’লা তার প্রতি দশটি নেকী বর্ষণ করেন।” [সহীহ মুসলিম]

তাহলে মহানবী (দ:)-এর প্রতি দরূদ-সালাম পাঠ করা কি বেদআত? অবশ্যই নয়! আর এই সালাওয়াত পাঠ করার জন্যে কোনো নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়নি যে কখন হালাল হবে আর কখন তা হারাম হবে (কিছু নির্দিষ্ট সময় ছাড়া)। আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যে রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর প্রতি দরূদ-সালাম পাঠ করা বছরের প্রতিটি দিন-ই জায়েয। এই নেক তথা পুণ্যদায়ক কাজ হতে মানুষদেরকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করাই হলো খোদ এক বেদআত! অতএব, আপনারা নিজেরাই দেখুন কারা বেদআতী!

বস্তুতঃ কেউ যতো বেশি সালাত-সালাম পাঠ করবেন, তিনি ততোই পুরস্কৃত হবেন, যেমনটি বিবৃত হয়েছে নিচের হাদীসটিতে:

হযরত ইবনে মাসউদ (রা:) বর্ণনা করেন রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর বাণী, যিনি বলেন, “নিশ্চয় কেয়ামত ময়দানে আমার সবচেয়ে নৈকট্যপ্রাপ্ত হবে সে-ই, যে ব্যক্তি আমার প্রতি সর্বাধিক দুরূদ-সালাম প্রেরণ করেছে।” [তিরমিযী, ২য় খণ্ড, হাদীস নং ৪৮৪]

৫/ – পদ্য, নাশীদ ও না’ত আবৃত্তি

হযরত উবাই বিন কা’আব (রা:) বর্ণনা করেন নবী পাক (দ:)-এর হাদীস, যিনি বলেন: “কিছু কাব্য জ্ঞান ধারণ করে।” [সহীহ বোখারী, ৮ম খণ্ড, ৭৩তম বই, হাদীস নং ১৬৬]

সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) পারস্পরিক দেখা-সাক্ষাৎ করে একে অপরকে রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর শানে কবিতা (না’ত শরীফ) শোনানোর অনুরোধ করতেন। এতে প্রমাণিত হয় যে মীলাদ সাহাবা (রা:)-বৃন্দের সুন্নাত (রীতি)। সাইয়্যেদুনা আতা’ ইবনে এয়াসার (রা:) বলেন, “আমি আবদুল্লাহ ইবনে আমর ইবনে আ’স (রা:)-এর সাথে দেখা করে তাঁকে তৌরীত ঐশীগ্রন্থে পাওয়া যায় প্রিয়নবী (দ:)-এর শানে এমন একখানি না’ত শোনানোর অনুরোধ করি। তিনি আমাকে তা আবৃত্তি করে শোনান।” [মেশকাত, বাবু ফাদায়েলিস্ সাইয়্যেদিল মুরসালীন, ১ম অনুচ্ছেদ]

হযরত সালামা বিন আল-আকওয়া (রা:) হতে বর্ণিত; তিনি বলেন: আমরা রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর সাথে খায়বারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করি এবং রাতে ভ্রমণ করি। মানুষদের মধ্যে এক ব্যক্তি আমির বিন আল-আকওয়া (রা:)-কে বলেন, “আপনি কি আমাদের আপনার কবিতা আবৃত্তি করে শোনাবেন না?” আমির ছিলেন কবি, তাই তিনি (সওয়ার থেকে) নেমে মানুষের জন্যে হেদায়াতমূলক কবিতা আবৃত্তি করতে থাকেন; এই কাব্যের গতি উটের পা ফেলার সাথে তাল মিলিয়ে এগোতে থাকে আর বলতে থাকে, “হে আল্লাহ! আপনি ছাড়া আমরা সঠিক পথে পরিচালিত হতাম না, দান-সদকাও করতাম না, নামায-দোয়াও পড়তাম না। অতএব, অনুগ্রহ করে আমাদের কৃতকর্ম ক্ষমা করে দিন। আপনার উদ্দেশ্য সাধনে আমাদের উৎসর্গ করুন। আর আমরা যখন শত্রুর মোকাবেলা করবো, তখন আমাদের পাগুলোকে সুদৃঢ় রাখুন এবং আমাদের মাঝে শান্তি ও স্থিরতা মঞ্জুর করুন। আর যদি শত্রুরা আমাদেরকে অন্যায় কোনো কিছুর প্রতি আহ্বান করে, তবে আমরা তা প্রত্যাখ্যান করবো। কাফেররা আমাদের বিরুদ্ধে অন্যদের কাছে সাহায্য চাওয়ার বেলায় অনেক হৈচৈ করেছে।” এ কথা শুনে রাসূলুল্লাহ (দ:) জিজ্ঞেস করেন, “(উটের) ওই চালক কে?” সাহাবা (রা:)-বৃন্দ উত্তর দেন, “তিনি আমির বিন আল-আকওয়া।” এমতাবস্থায় রাসূল (দ:) বলেন, “আল্লাহ তার প্রতি রহমত বর্ষণ করুন।” [সহীহ বোখারী, ৮ম খণ্ড, ৭৩তম বই, হাদীস নং ১৬৯]  

রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর চাচা হযরত আব্বাস (রা:) একটি কবিতা রচনা করেন যা’তে তিনি হুযূর পূর নূর (দ:)-এর বেলাদত শরীফের ভূয়সী প্রশংসা করেন। ওই পদ্যে নিচের কয়েকটি চরণ পাওয়া যায় –
 
“(হে নবী) আপনার বেলাদত হয়েছিল যবে
ভুবন ও দিগন্ত আলোকিত হয়েছিল আপনারই নূরের বৈভবে
সেই নূরের আলোয় ও ন্যায়ের পথেই চলেছি আমরা সবে।”

[ইবনে সাইয়্যেদ আল-নাস নিজের এসনাদ-সহ আত্ তাবারানী ও আল-বাযযার হতে এটি বর্ণনা করেন তাঁরই ‘মিনাহ আল-মায’ গ্রন্থে (১৯২-৩ পৃষ্ঠা); এছাড়াও ইবনে কাসীর নিজের ‘আল-সীরাহ আন্ নাবাউইয়্যা’ (মোস্তফা আবদ্ আল-ওয়াহিদ সংস্করণ ৪:৫১) পুস্তকে এটি উদ্ধৃত করে; মোল্লা আলী কারী নিজ ‘শরহে শেফা’ গ্রন্থে (১:৩৬৪) বলেন যে এ বর্ণনা আবূ বকর শাফেঈ ও আত্ তাবারানীর; আর এটি উদ্ধৃত করেছেন আবদুল বর্র তাঁর ‘আল-এস্তে’য়াব’ পুস্তকে, ইবনে কাইয়্যেম নিজ ‘যাদ আল-মা’আদ’ বইয়ে এবং ইবনে হাজর তাঁর ‘ফাতহুল বারী’ গ্রন্থে]

ওপরোক্ত পদ্যে হযরত আব্বাস (রা:)-এর উল্লেখিত ‘নূর’ তথা জ্যোতি শব্দটি স্বয়ং নবী পাক (দ:) নিশ্চিত করেছেন তাঁরই বেলাদত-সম্পর্কিত একটি বিখ্যাত হাদীসে। হযরত এরবাদ ইবনে সারিয়্যা (রা:) ও আবূ উমামা (রা:) বলেন যে মহানবী (দ:) এরশাদ করেন: “আমি হলাম পিতা ইব্রাহীম (আ:)-এর দোয়া এবং আমার ভাই হযরত ঈসা (আ:)-এর প্রদত্ত শুভ সংবাদ। যে রাতে আমার বেলাদত হয়, সে সময় আমার মা একটি নূর দেখতে পান, যেটি দামেশকের প্রাসাদগুলোকে এমনভাবে আলোকিত করেছিল যে তিনি সেগুলো দেখতে পাচ্ছিলেন।” [এ হাদীস বর্ণনা করেন আল-হাকীম (২:৬১৬-১৭), ইমাম আহমদ নিজ ‘মুসনাদ’ গ্রন্থে; আরো বর্ণনা করেন আল-বায়হাকী তাঁর ‘দালাইল আন্ নবুওয়া’ পুস্তকে (১:১১০, ২:৮), ইবনে জাওযী উদ্ধৃত করেন নিজ ‘আল-ওয়াফা’ বইয়ে; আর ইবনে কাসীর উদ্ধৃত করেছে নিজ ‘মওলিদ-এ-রাসূল আল্লাহ’ এবং ‘তাফসীরে কাসীর’ গ্রন্থে (৪:৩৬০)। আল-হায়সামী (৮:২২১) বলেন যে আত্ তাবারানী ও ইমাম আহমদ এটি বর্ণনা করেছেন, যার মধ্যে ইমাম আহমদের এসনাদ তথা সনদ ‘হাসান’। এছাড়াও ইবনে হিশাম নিজ ‘সীরাতে রাসূল-আল্লাহ’ (দারুল উইফাক সংস্করণ ১/২:১৬৬) এবং আত্ তাবারী তাঁর ইতিহাস পুস্তকে এই রেওয়ায়াত উদ্ধৃত করেন]  

প্রিয়নবী (দ:) বিখ্যাত খন্দকের যুদ্ধের সময় হযরত আনাস (রা:) ও অন্যান্য সাহাবী (রা:)-দের নবী-বন্দনাসূচক কবিতা ও গান শোনেন, যা’তে তাঁরা বলছিলেন: “আমরাই জ্বেহাদের উদ্দেশ্যে মহানবী (দ:)-এর হাতে বায়াত হয়েছি – যতোদিন বেঁচে আছি।” [ইমাম বোখারী এবং ইবনে কাইয়্যেম আল-জাওযিয়্যা নিজ ‘মাদারিজ আস্ সালেকীন’ পুস্তকের ১ম খণ্ড]

ইবনে কাইয়্যেম আল-জাওযিয়্যা আরো উদ্ধৃত করে হযরত ইবনে রাওয়াহা (রা:)-এর দীর্ঘ কবিতা, যা তিনি মক্কায় প্রবেশের সময় মহানবী (দ:)-এর শানে আবৃত্তি করেন; এমতাবস্থায় রাসূলুল্লাহ (দ:) তাঁর জন্যে দোয়া করেন। তিনি অপর কবি ও সাহাবী হযরত হাসান বিন সাবেত (রা:)-এর জন্যেও দোয়া করেন, যাতে তিনি যতোদিন কবিতা দ্বারা মহানবী (দ:)-কে সাহায্য করবেন, ততোদিন তাঁকে আল্লাহতা’লা পবিত্র রূহ দ্বারা সমর্থন দেন। অনুরূপভাবে, তিনি হযরত কা’আব ইবনে যুবায়র (রা:)-কে তাঁর কবিতার জন্যে খুশি হয়ে নিজ চাদর মোবারক দান করেন। ইবনে কাইয়্যেম এ প্রসঙ্গে বলে, “হযরত আয়েশা (রা:) সব সময়ই তাঁর প্রশংসাসূচক কবিতা আবৃত্তি করতেন এবং তিনি তাঁর প্রতি রাজি ছিলেন।” [ইবনে কাইয়্যেম আল-জাওযিয়্যা কৃত ‘মাদারিজ আস্ সালেকীন’]

রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর কবি হযরত হাসান বিন সাবেত (রা:) বলেন: আল্লাহর কসম! কোনো নারী-ই জন্ম দেয় নি পয়গম্বর ও মানুষের হেদায়াতদাতা মহানবী (দ:)-এর মতো কাউকে; আর অাল্লাহতা’লা-ও তাঁর সৃষ্টিকুলের মাঝে সৃষ্টি করেননি মহানবী (দ:)-এর মতো আমাদের (হেদায়াতের) নূরের উৎসস্বরূপ আরেকজন বিশ্বাসীকে, যিনি তাঁরই সান্নিধ্যপ্রাপ্ত ও ওয়াদা (-এর বহিঃপ্রকাশ)।” [ইবনে হিশাম কর্তৃক তাঁর ‘সীরাতে রাসূল-আল্লাহ’ গ্রন্থের শেষ কয়েক লাইনে উদ্ধৃত] 

এর পরও কি আশীর্বাদধন্য রাজাধিরাজের (ধরাধামে) শুভাগমন উদযাপনে কবিতা আবৃত্তি করা বিদআত বলে মনে হয় এর বিরোধিতাকারীদের কাছে? তারা এই দালিলিক প্রমাণগুলো যখন হজম করতে ব্যস্ত, আমরা তখন সৃষ্টির সেরা মহান সত্তার প্রতি সালাওয়াত পাঠে নিজেদের প্রবৃত্ত করবো এবং সারা রাত-দিন তাঁরই নূরের বন্দনা করবো যেভাবে তাঁর আনসার সাহাবা (রা:)-বৃন্দ আদর্শ স্থাপন করেছেন নিচের পদ্যে:

“হেদায়াতের পূর্ণচন্দ্র আমাদের ভাগ্যাকাশে ‘আল-ওয়াদা’য় হয়েছেন উদিত
যতোদিন আল্লাহর কোনো এবাদতকারী থাকবেন আমরা শোকর করতে হবো বাধিত।” 

[এটি বর্ণনা করেন আত্ তাবারী তাঁর ‘আল-রিয়াদ আন্ নাদিরা’ (১:৪৮০) গ্রন্থে এবং ইবনে কাসীর নিজ ‘আল-বেদায়া ওয়ান্ নেহায়া’ (মা’আরিফ সংস্করণ, ৩:১৯৭, ৫:২৩) পুস্তকে]  

৬/ – প্রিয়নবী (দ:)-এর প্রতি মহব্বত প্রকাশ ও জশনে জলূস

হযরত সাইয়্যেদুনা আনাস বিন মালেক (রা:) বর্ণনা করেন: মহানবী (দ:) মদীনায় হিজরত করে এলে আবিসিনীয় (আফ্রিকী) লোকেরা এই খুশিতে বর্শা নিয়ে (ঐতিহ্যবাহী) খেলায় মেতে ওঠে। [সুনানে আবি দাউদ, ৪১তম বই, হাদীস নং ৪৯০৫]

হযরত আয়েশা (রা:) হতে বর্ণিত: ….মদীনার মুসলমানবৃন্দ (হিজরতের সময়) যখন রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর মক্কা ছেড়ে মদীনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হওয়ার সংবাদ পান, তখন তাঁরা প্রতিদিন সকালে হাররায় গমন করতে থাকেন। তাঁরা সেখানে অপেক্ষা করতেন যতোক্ষণ না মধ্যাহ্ন সূর্যের খরতাপ তাঁদেরকে ফেরত আসতে বাধ্য করতো। একদিন দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পর তাঁরা বাড়ি ফিরলে জনৈক ইহুদী কোনো জিনিস খুঁজতে তাঁর গোত্রের দুর্গের একটি ছাদে ওঠেন এবং দূরে মরু-মরীচিকার অন্তরাল থেকে বেরিয়ে আসা সাদা পোশাক পরিহিত আল্লাহর রাসূল (দ:) ও তাঁর সাহাবীদের দেখতে পান। ওই ইহুদী তাঁর সাধ্যানুযায়ী উচ্চস্বরে চিৎকার করে বলেন, “ওহে আরবকুল! তোমাদের সেই মহান ব্যক্তিত্ব এখানে উপস্থিত, যাঁর জন্যে তোমরা অপেক্ষা করছো।” এমতাবস্থায় সকল মুসলমান ব্যক্তি হাররার চূড়ায় ছুটে যান এবং সেখানে মহানবী (দ:)-কে স্বাগত জানান। রাসূলুল্লাহ (দ:) তাঁদের সাথে ডান দিকে ফেরেন এবং বনূ আমর বিন আউফ গোত্রের বসতস্থানে (সওয়ার হতে) নেমে যান; আর এটি ছিল রবিউল আউয়াল মাসের এক সোমবার দিন।…..(একটি দীর্ঘ হাদীসের অংশ এটি)। [সহীহ বোখারী, ৫ম খণ্ড, ৫৮তম বই, হাদীস নং ২৪৫] 

হযরত আনাস বিন মালেক (রা:) বর্ণনা করেন: ….হুযূর পাক (দ:)-এর মদীনায় আগমনের খবর প্রচার হয়ে যায়। মানুষেরা ঘর থেকে বেরিয়ে উৎসুক দৃষ্টিতে তাকাতে থাকেন এবং বলতে থাকেন, “আল্লাহর রাসূল (দ:) এসেছেন! আল্লাহর নবী এসেছেন!” এমতাবস্থায় মহানবী (দ:) চলতে থাকেন যতোক্ষণ না তিনি হযরত অাবূ আইয়্যুব আনসারী (রা:)-এর ঘরের সামনে (সওয়ার থেকে) নামেন।…(একটি দীর্ঘ হাদীসের অংশ এটি)। [সহীহ বোখারী, ৫ম খণ্ড, ৫৮তম বই, হাদীস নং ২৫০] 

হযরত আল-বারা’ বিন আযিব (রা:) বর্ণনা করেন: মদীনায় আমাদের কাছে সর্বপ্রথম যে ব্যক্তিবৃন্দ আসেন তাঁরা হলেন সর্ব-হযরত মুস’আব বিন উমর (রা:) ও ইবনে উম্মে মাকতুম (রা:); এঁরা মানুষদেরকে কুরআন মজীদ শিক্ষা দিচ্ছিলেন। এর পর এলেন হযরত বেলাল (রা:), সা’দ (রা:) ও আম্মার ইবনে এয়াসীর (রা:)। অতঃপর হযরত উমর ফারূক (রা:) তাঁর সাথে আরো বিশজন সাহাবী (রা:)-কে নিয়ে মদীনায় আসেন। এরই পরবর্তী পর্যায়ে মহানবী (দ:) মদীনায় তাশরীফ আনেন এবং তাঁর আগমন উপলক্ষে মদীনাবাসী মানুষ যতোখানি আনন্দে উদ্বেলিত হয়েছিলেন, অতোটুকু উৎফুল্ল হতে আমি তাঁদেরকে আগে কখনোই দেখিনি। এমন কি দাসী মেয়েরাও গান করছিল, “রাসূলুল্লাহ (দ:) আগমন করেছেন।” তাঁর তাশরীফ আনার আগেই আমি “আপন রবের নামের পবিত্রতা বর্ণনা করো, যিনি সবার ঊর্ধ্বে” (আল-কুরঅান, ৮৭:১)-সহ মুফাসসিলের অন্যান্য সূরা পাঠ করেছিলাম। [সহীহ বোখারী, ৫ম খণ্ড, ৫৮তম বই, হাদীস নং ২৬২]  

সহীহ বোখারী শরীফ ও অন্যান্য সীরাহ-গ্রন্থে উদ্ধৃত এসব হাদীস থেকে আমরা জানতে পারি যে মহানবী (দ:) যখন মক্কা মোয়াযযমা হতে মদীনা মোনাওয়ারায় হিজরত করেন, তখন ওই নগরীর মানুষ তাঁকে মহা উৎসাহে স্বাগত জানান। মদীনায় এক আনন্দ-উৎসবের পরিবেশ সৃষ্টি হয়, যার নজির ইতিপূর্বে কখনোই দেখা যায়নি। তাঁকে অভ্যর্থনা জানানোর উদ্দেশ্যে সর্বসাধারণ রাস্তার দুই পাশে সারিবদ্ধভাবে জড়ো হন; নারী-পুরুষ ও শিশু সবাই উৎফুল্লচিত্তে তাঁকে সম্ভাষণ জানান। এই সময় অবিরাম দফ বাজিয়ে গান করা হয় –

“হেদায়াতের পূর্ণচন্দ্র আমাদের ভাগ্যাকাশে ‘আল-ওয়াদা’ এলাকায় হয়েছেন উদিত
যতোদিন আল্লাহর কোনো এবাদতকারী থাকবেন আমরা শোকর করতে হবো বাধিত
হে রাসূল, আপনি আমাদের মাঝেই হয়েছেন (খোদা কর্তৃক) লালিত, পালিত
এসেছেন নিয়ে এক কর্তব্য যা হতে হবে মান্যকৃত
আপনি এনেছেন এ নগরীর জন্যে মাহাত্ম্য
তাই স্বাগতম, আল্লাহর রাস্তার দিকে সেরা (ওই) আহ্বান, উদাত্ত।”  

ইনশা’আল্লাহ, পুনরুত্থান দিবসেও রাস্তাগুলো মহানবী (দ:)-এর প্রতি সাহাবা-এ-কেরাম (রা:)-এর ভালোবাসার সাক্ষ্য প্রদান করবে।

সোবহানাল্লাহ! আর ভেবে দেখুন কতো তারিখে মহানবী (দ:) মদীনায় প্রবেশ করেন এবং সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) উৎসবে মাতেন! এটি ছিল সোমবার, ১২ই রবিউল আউয়াল, ঠিক একই তারিখ যেদিন তাঁর ধরাধামে শুভাগমন হয়েছিল। রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর মাহাত্ম্যকে স্বীকার করার উদ্দেশ্যে এ দিনটিতে উৎসবের আয়োজন করাটা এই দলিলে সিদ্ধ ও জায়েয প্রমাণিত হয়।

সোবহানাল্লাহ! জুলূস তথা মিছিলসহ রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর প্রশংসাসূচক না’ত-পদ্য-নাশীদ ইত্যাদি করা যে জায়েয, তার অনুমতি হিজরতের সময় স্বয়ং হুযূর পাক (দ:)-ই দিয়েছেন (কেননা, মদীনার আনসার সাহাবীবৃন্দ খুশিতে মিছিল করছিলেন – অনুবাদক)। অধিকন্তু, মক্কা বিজয়ের সময়ও তিনি সেখানে প্রবেশ করলে সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) আনন্দে  তাঁরই প্রশংসাসূচক না’ত/পদ্য উচ্চস্বরে আবৃত্তি করেন। এই শুভলগ্নে হযরত আবদুল্লাহ বিন রওয়াহা (রা:) ইসলামী বাহিনীর অগ্রভাগে হাঁটছিলেন এবং উচ্চস্বরে না’ত-পদ্য গাইছিলেন। হযরত উমর তাঁর কাছে এসে জিজ্ঞেস করেন, “তুমি যে রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর সামনে এতো জোরে না’ত গাইছো, তা কি যথার্থ?” এমতাবস্থায় খোদ মহানবী (দ:) হযরত উমর (রা:)-কে থামিয়ে দিয়ে বলেন, “ওকে বাধা দেবে না। কেননা, তার পদ্যগুলো কাফেরদের অন্তরে তীরের মতো বিঁধছে।” [সর্ব-ইমাম তিরমিযী, নাসাঈ ও ‘সুনানে কুবরা’; ইমাম ইবনে হাজর আসকালানীও এটি উদ্ধৃত করেন]

৭/ – মসজিদ আলোকসজ্জা

বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে, বিশেষ করে রমজান মাস, লায়লাতুল কদর উপলক্ষে কুরআন খতম কিংবা ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-তে মসজিদগুলো উজ্জ্বল রাখা তথা আলোকসজ্জা করা একটি বড় এবাদত। এ সম্পর্কে অনেক প্রামাণ্য দলিল বিদ্যমান, যেগুলো এখানে আলোকপাত করা হলো।

সর্বশক্তিমান আল্লাহতা’লা এরশাদ ফরমান: “আল্লাহর মসজিদসমূহ তারাই আবাদ করে, যারা আল্লাহ ও কিয়ামতের প্রতি ঈমান আনে, নামায কায়েম রাখে, যাকাত প্রদান করে এবং আল্লাহ ভিন্ন অন্য কাউকেও ভয় করে না; সুতরাং এটাই সন্নিকটে যে এসব মানুষ সৎপথ প্রাপ্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে।” [আল-কুরআন, ৯:১৮; তাফসীরে নূরুল এরফান বাংলা সংস্করণ]

মুফাসসিরীনে কুরআন (ব্যাখ্যাকারীবৃন্দ) বিবৃত করেন যে মসজিদে (জামাআতে) সালাত আদায়, তা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা, উন্নতমানের ম্যাট বিছানো, আলোকসজ্জা করা ইত্যাদি কার্যক্রম মসজিদের উন্নয়নে সহায়ক। হযরত সোলা্য়মান (আ:) ‘কিবরীত-এ-আহমার’ (এক ধরনের দাহ্য পদার্থ) দ্বারা মসজিদে বায়তুল মোকাদ্দাস আলোকিত করে রাখতেন। এর এমনই উজ্জ্বলতা ছিল যে বহু দূরে অবস্থিত মহিলাবর্গ তাদের সুতো কাটতে পারতেন! [তাফসীরে রূহুল বয়ান] 

হযরত আবূ সাঈদ খুদরী (রা:) বলেন: “সাহাবী হযরত তামীম দারী (রা:)-ই ছিলেন সর্বপ্রথম ব্যক্তি, যিনি মসজিদগুলোতে চেরাগ জ্বালান।” [সুনানে ইবনে মাজাহ]

উম্মুল মো’মেনীন সাইয়্যেদাহ মায়মুনাহ (রা:) মহানবী (দ:)-কে জিজ্ঞেস করেন: “বায়তুল মোকাদ্দাস মসজিদ সম্পর্কে আমাদের নির্দেশ দিন।” তিনি উত্তরে বলেন, “সেখানে যেয়ে সালাত আদায় করো।” ওই সময় সেখানে একটি যুদ্ধ চলছিল। এই কারণে মহানবী (দ:) বলেন, “তোমরা যদি মসজিদে পৌঁছুতে না পারো এবং নামায পড়তে না পারো, তবে সেখানে তেল প্রেরণ করো, যাতে তা মসজিদের প্রদীপ জ্বালাতে ব্যবহৃত হয়।” [সুনানে আবি দাউদ]
  
ওপরের এই রেওয়ায়াত থেকে চারটি বিষয় উপলুব্ধ হয়:

১/ বায়তুল মোকাদ্দাস মসজিদে সালাত আদায়ের জন্যে ভ্রমণ করা স্বয়ং একটি সুন্নাত। সাইয়্যেদুনা রাসূলুল্লাহ (দ:) মে’রাজ রাতে অন্যান্য সকল পয়গম্বর (আ:)-এর ইমাম হয়ে সেখানে নামায পড়িয়েছিলেন। এই কারণেই তিনি সেখানে ভ্রমণ করে গিয়েছিলেন।

২/ মসজিদে বায়তুল মোকাদ্দাসে অনেক প্রদীপ জ্বালানো হতো; এ কথা হাদীসটিতে ব্যবহৃত ‘ক্কানাদীল’ শব্দটি থেকে বোঝা যায়।

৩/ মসজিদটিকে আলোকিত করাটা সেখানে নামায পড়ার সওয়াবের সাথে তুলনীয়। আরেক কথায়, এটি এক মহা সওয়াবদায়ক এবাদত।

৪/ মসজিদ আলোকিত করার জন্যে দূর-দূরান্ত থেকে তেল প্রেরণ করা সাহাবা (রা:)-বৃন্দের সুন্নাত।

মোহাদ্দীস ইবনে শাহীন উদ্ধৃত করেন হযরত আবূ এসহাক হামদানী (রা:)-কে, যিনি বলেন: প্রতি রমযান মাসের প্রথম রাতে খলীফা আলী (ক:) মসজিদে নববীতে প্রবেশ করতেন। ওতে হারিকেন/প্রদীপ জ্বলতো এবং কুরআন তেলাওয়াত করা হতো। তিনি সম্ভাষণ জানাতেন, “হে উমর ইবনে খাত্তাব (রা:)! আল্লাহ আপনার মাযার আলোকিত করুন, যেমনটি আপনি মসজিদকে আলোকিত করেছেন কুরআন তেলাওয়াতের সময়।” [ইবনে শাহীন]

এতে প্রমাণিত হয় যে রমযান মাসে মসজিদ আলোকিত করার প্রথা খলীফা উমর (রা:)-এর শাসনামল হতেই অনুশীলিত হয়ে এসেছিল। আরো লক্ষণীয় যে অন্যান্য সাহাবী (রা:)-বৃন্দ এতে আপত্তি উত্থাপন করেননি। যদি আল্লাহর আশীর্বাদরূপী পবিত্র কুরঅান মজীদ অবতীর্ণ হওয়ার মাস উদযাপনে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ ও মসজিদ আলোকিত করার আয়োজন জায়েয হয়, তাহলে আল্লাহতা’লার সর্ববৃহৎ আশীর্বাদ ও করুণা আমাদের প্রিয় মহানবী (দ:)-কে ধরাধামে পাওয়ার মাস (রবিউল আউয়াল) উদযাপনে মসজিদগুলো আলোকিত করায় কোনো আপত্তি থাকতে পারে না।

কিছু কিছু মোহাদ্দেসীন (হাদীস-শাস্ত্র বিশারদ) হযরত আলী (ক:)-এর কথা উদ্ধৃত করেন, যিনি বলেন: “আল্লাহ পাক খলীফা হযরত উমর (রা:)-এর মাযারকে আলোকিত করেন, যেভাবে তিনি আমাদের মসজিদকে আলোকিত করেছিলেন।” [সহিহুল বিহারী]

অতএব, আমরা জানতে পারলাম যে মসজিদগুলো আলোকিত করার প্রতিদানস্বরূপ আমাদের কবরগুলোকেও ইনশা’আল্লাহ আলোকিত করা হবে। এমতাবস্থায় এই প্রথা অনুশীলনে যে ব্যক্তি বাধা দেবে, সে শুধু তার কবরকেই অন্ধকারাচ্ছন্ন করবে না, বরং সাহাবা-এ-কেরাম (রা:)-এর সুন্নাহর বিরোধিতাও করবে। আল-কুরআন এসব লোক সম্পর্কে সতর্কবাণী উচ্চারণ করে: “এবং তার চেয়ে অধিকতর যালেম কে, যে ব্যক্তি আল্লাহর মসজিদগুলোতে বাধা দেয় সেগুলোতে আল্লাহর নামের চর্চা হওয়া থেকে, আর সেগুলোর ধ্বংস সাধনে প্রয়াসী হয়?” [আল-কুরঅান, ২:১১৪; তাফসীরে নূরুল এরফান]

যারা মসজিদে সালাত আদায়, সর্বশক্তিমান আল্লাহতা’লার যিকর-তাযকেরা, কুরঅান শরীফ তেলাওয়াত বা না’ত/নাশীদ আবৃত্তি করাকে নিষেধ করে এবং এর পাশাপাশি মসজিদের শোভা বর্ধনের উদ্দেশ্যে প্রদীপ জ্বালানো, আলোকসজ্জা করা, ম্যাট/কার্পেট বিছানো ইত্যাদিতে বাধা দেয়, তাদেরকে ওপরোক্ত আয়াতে করীমায় তিরস্কার করা হয়েছে; কেননা তাদের এই নিষেধ করা ও বাধা দেয়া  প্রকৃতপক্ষে আল্লাহতা’লার মসজিদ ধ্বংসে ইন্ধন-ই যুগিয়ে থাকে।

বর্তমান যুগে মসজিদ অলঙ্করণ, তা সর্বদা আলোকোজ্জ্বল রাখা এবং গুরুত্বপূর্ণ তারিখে তাতে বিশেষ আয়োজন করা এমন কি সাধারণ জ্ঞানেও উত্তম বলে বিবেচিত হয়। তা এ কারণে যে আমরা অহরহ আমাদের বাড়িঘর সাজিয়ে রাখি এবং বিয়ে-শাদীর মতো বিশেষ অনুষ্ঠানগুলোতে সাধারণের বাইরে গিয়ে আলোকসজ্জা করে থাকি। আমাদের ঘরবাড়ি যদি সুশোভিত ও আলোকিত হওয়ার যোগ্যতা রাখে, তাহলে অবশ্যঅবশ্য খোদাতা’লার মসজিদ, যা সব ঘরের মধ্যে উত্তম, তা সুশোভিত হওয়ার দাবি রাখে। কেননা, এতে মসজিদের মাহাত্ম্য মানুষের অন্তরে প্রোথিত হবে। এই প্রথা দ্বীন ইসলাম প্রচারের একটি মাধ্যম এবং মুসলমানদের মাঝে ভক্তিশ্রদ্ধার অনুভূতি জাগিয়ে তোলে।

এছাড়া, অনেক মানুষ মঞ্চ সজ্জিত ও আলোকিত করার বেলায় সর্বাত্মক ব্যবস্থা নেয় এবং একে ‘শান্তি সভা’ বা ‘সীরাহ (সীরাতুন্নবী) সেমিনার’ বলে ডাকে। আল-হামদুলিল্লাহ! আমরা আমাদের অনুষ্ঠানকে মীলাদুন্নবী (দ:) বলে থাকি।

                                                           *সমাপ্ত*  

ঈদে মিলাদুন্নবী সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সম্পর্কিত ভ্রান্ত ধারণা ও ভুল বোঝাবুঝি

Standard

মূল: ইমাম সাঈদ সোহরাওয়ার্দী, ইসলামিক সুপ্রিম কাউন্সিল কানাডা
অনুবাদ: কাজী সাইফুদ্দীন হোসেন

[Bengali translation of Islamic Supreme Council Canada’s Online article “Misconceptions and Misunderstandings about Eid Milad-un-Nabi”]

মহান প্রভু আল্লাহর নামে আরম্ভ, যিনি দয়ালু ও দাতা।

ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-সম্পর্কিত ভ্রান্ত ধারণা ও ভুল বোঝাবুঝি 

বেশ কিছুদিন যাবত ইসলাম-আতঙ্কে আক্রান্ত একটি গোষ্ঠী ইসলাম সম্পর্কে নেতিবাচক এক ধারণা তৈরির অপচেষ্টায় সক্রিয় রয়েছে। তারা আমাদের মহানবী (দ:) ও কুরআন মজীদকে গালমন্দ করে থাকে এবং মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চায়। মহানবী (দ:)-এর প্রতি মিথ্যে অপবাদ দিয়ে তাঁকে আক্রমণ করে থাকে এই চক্র। তাই এসময় মুসলমানদের জন্যে একতাবদ্ধ হওয়া এবং বিদ্বেষ প্রচারকারীদেরকে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রত্যুত্তর দেয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক বাস্তবতা হলো, বর্তমানে মুসলমান সমাজ বহুধা বিভক্ত, এমন কি সেসব আকীদা-বিশ্বাস ও আচার-অনুষ্ঠান অনুশীলনের ব্যাপারেও, যেগুলো নিয়ে বিগত ১৩ শতকেরও অধিক সময়ে সমগ্র মুসলিম বিশ্বের কেউই বিরোধিতা করেননি। মুসলিম উম্মাহ’র মৌলিক বিষয়গুলো নিয়ে ভাবার পরিবর্তে আমরা সেসব বিষয় নিয়ে একে অপরের বিরুদ্ধে সময় ও সম্পদ অপচয় করছি, যেগুলো কখনোই কোনো বিতর্কের বিষয় ছিল না। প্রতি বছর রবিউল আউয়াল মাস এলে রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর পবিত্র বেলাদত তথা ধরাধামে শুভাগমন দিবস ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর বিরুদ্ধে সবচেয়ে অনর্থক ও বিভ্রান্তিকর একটি অপপ্রচার অভিযানের সূচনা হয়। কী পণ্ডশ্রম!

বেদআত (ধর্মে নতুন প্রথা প্রবর্তন)

মীলাদুন্নবী (দ:)-এর বিরোধীরা অপযুক্তি প্রদর্শন করে থাকে যে মহানবী (দ:) নিজে এবং তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) তাঁর মীলাদ দিবস পালন করেননি। তাদের মতে, এটি ইসলামে একটি নতুন সংযোজন এবং রাসূল (দ:) ইসলামে নতুন কিছু পরিবেশন নিষেধ করেছেন। ইসলামে নতুন কোনো কিছু সন্নিবেশিত করাই বেদআত। বিরোধীদের মতানুযায়ী, হুযূর পাক (দ:) কিংবা তাঁর সাহাবী (রা:)-বৃন্দ মীলাদ দিবস পালন করেননি; তাই এই বেদআত বর্জনীয়। তাদের দৃষ্টিতে এটি পাপও।

ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর বিরুদ্ধে ফতোওয়ার প্রকৃতি 

বস্তুতঃ ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপনকে নিষেধকারী কোনো কুরআনের আয়াত কিংবা হাদীস শরীফ নেই। কিন্তু এর বিরোধিতাকারী লোকেরা উক্ত দুটি শরীয়তের উৎস থেকে অনেক উদ্ধৃতি দেয়; স্বল্প জ্ঞানী মুসলমানদের সামনে ভাবখানা যেন এই যে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপন প্রকৃতপ্রস্তাবেই নিষিদ্ধ। তারা কুরঅান-হাদীসের অর্থ বিকৃত করে নিজেদের একপেশে মতামত তাতে সন্নিবেশিত করে থাকে। কয়েক সপ্তাহ আগে এক দ্বীনী ভাই মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধী একটি ফতোওয়া-ইশ্তেহার আমাকে দিয়ে বলেন, “মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধী কুরআন-হাদীসের অনেক দলিল এতে দেয়া আছে।”

আপনারা এ ধরনের ফতোওয়া-ইশ্তেহার পাঠ করলে কখনোই তাতে একটিও কুরআনের আয়াত বা হাদীস শরীফ দেখতে পাবেন না, যেটিতে আল্লাহতা’লা কিংবা রাসূলুল্লাহ (দ:) মীলাদুন্নবী (দ:) পালনকে নিষেধ করেছেন। ওইসব আয়াত ও হাদীসের বিকৃত ব্যাখ্যাই সব সময় করা হয়, যেগুলো এমন কি বিষয়টির সাথে সম্পৃক্ত-ও নয়। এটি-ই হলো ধোকাবাজি, যা মুসলমান সর্বসাধারণ বুঝতে পারেন না। তাঁরা দেখেন কেবল কুরআন-হাদীসের দলিলের সংখ্যা, এ কথা তাঁরা জানেন না যে এর সাথে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর কোনো সম্পর্ক-ই নেই। মীলাদ-বিরোধীরা উদ্দেশ্যমূলকভাবে এসব দলিল বিকৃতভাবে উদ্ধৃত করে, যাতে মুসলমানদেরকে বিভ্রান্ত করা যায়। এক্ষেত্রে তাদের আচরণটি কাদিয়ানী সম্প্রদায়ের মতোই, যারা নিজেদের ভণ্ড নবীকে বৈধতা দেয়ার জন্যে কুরআনের আয়াত ও হাদীস শরীফের বিকৃত ব্যাখ্যা দেয়।

ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) কী?

মহানবী (দ:)-এর ধরাধামে শুভাগমন দিবসকে ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) বলে। মুসলমান সমাজ কর্তৃক এ দিনটির উদযাপন খৃষ্টানদের ক্রিসমাস (ঈসা আলাইহিস সালামের জন্মদিন) পালন হতে একেবারেই ভিন্ন প্রকৃতির। মুসলমানবৃন্দ এই দিনে কী করেন? তাঁরা মহানবী (দ:)-এর বেলাদত, জীবন ও কর্ম এবং তাঁর ঐশীবাণী প্রচারের মিশন নিয়ে আলোচনা (যিকর-তাযকেরা) করেন; গরিব ও মেহমানদের খাবার পরিবেশন করেন; কুরআন তেলাওয়াত করেন এবং আলেম-উলেমার কাছ থেকে কুরআন শিক্ষা করেন; মহানবী (দ:)-এর প্রশংসায় না’ত-নাশীদ পরিবেশন করেন; আর অ-মুসলমানদের কাছে ধর্মের বাণী পৌঁছে দেন। এই দিনটি ইসলামী জিন্দেগীর খাঁটি ধর্মীয় ও আধ্যাত্মিক দিকগুলো চর্চার মাধ্যমেই পালিত হয়ে থাকে। এই শুভলগ্নে মুসলমান সমাজ দৈনন্দিন জীবনে রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর প্রতি মহব্বত এবং তাঁকে অনুসরণ-অনুকরণের কথা স্মরণ করেন। ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) হচ্ছে আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (দ:)-কে স্মরণ করার উদ্দেশ্যে মুসলমানদের জন্যে অন্য যে কোনো ধর্মীয় সমাবেশের মতোই একটি অনুষ্ঠান।

ইসলাম ধর্মের পয়গম্বর (দ:)-এর বেলাদত (ধরাধামে শুভাগমন), সীরাহ (জীবনচরিত) ও ঐশীবাণী প্রচার মিশন সম্পর্কে আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন স্বয়ং তিনি এবং তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) করেননি বা অন্যদেরও তা আয়োজন করতে বলেননি বিধায় এটি বেদআত বলে অজুহাত দেখানো হলে আমাদেরও ওই সব কাজ করা মোটেই উচিত হবে না, যেগুলো মহানবী (দ:) কিংবা তাঁর সাহাবী (রা:)-বৃন্দ আদৌ করেননি। তাহলে মুসলমান সমাজ সেগুলোর আয়োজন ও চর্চা করেন কেন? নিম্নে উল্লেখিত প্রথা ও উৎসবগুলো মহানবী (দ:) বা তাঁর মহান সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) অথবা ইসলামী ইতিহাসে কোনো আলেম কখনোই করেননি; অতি সম্প্রতি এগুলো চালু হয়েছে। কিন্তু ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর চর্চা হয়ে আসছে গত চৌদ্দ’শ বছর যাবত এবং এটি নিয়ে কখনোই কোনো ইসলামী আলেম দ্বিমত পোষণ করেননি, যতোদিন পর্যন্ত না ইহুদী গোত্রবাদী গোষ্ঠী ও খৃষ্টান ক্রুসেডার চক্র মুসলমান রাজ্যগুলো জবরদখল করে ১৮০০/১৯০০ খৃষ্টাব্দে ঔপনিবেশিক শাসন প্রতিষ্ঠা করেছিল। গত শতাব্দীতেই ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-কে বিতর্কিত করা হয়। যারা এই ধর্মীয় প্রথাকে বেদআত বলেন, তাদের পালিত বেদআতগুলো আমরা এক্ষণে আপনাদের সামনে তুলে ধরবো। তাহলে তাদের এসব কাজ ও প্রথাগুলো বেদআত নয় কেন?

ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর বিরোধীদের সংঘটিত বেদআত

বেদআত নং – ১/ আল্লাহতা’লার আদিষ্ট ও মহানবী (দ:)-এর চর্চাকৃত একমাত্র মুসলিম সমাবেশ হলো হজ্জ্ব। ইসলামে অন্য কোনো আন্তর্জাতিক সমাবেশ নেই। এমতাবস্থায় তাবলীগের নামে বিশ্বব্যাপী মুসলিম সমাবেশের পক্ষে কুরঅান-হাদীসের দলিল কোথায় খুঁজে পাবেন? পাকিস্তান ও বাংলাদেশে বার্ষিক তাবলীগী এজতেমা’য় এমন কি হজ্জ্বের চেয়েও বেশি মুসলমান যোগ দেয়। এটি কি বেদআত নয়? রাসূলুল্লাহ (দ:) অথবা তাঁর সাহাবী (রা:)-বৃন্দ কিংবা মুসলিম আলেম-উলেমা কবে এরকম বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের সমাবেশের আয়োজন করেছিলেন? বিশ্ব তাবলীগী এজতেমা’ শুরু হয়েছে মাত্র কয়েক দশক আগে; ভারতের গুজরাটের মৌলোভী ইলিয়াস তাবলীগ জামা’আত প্রতিষ্ঠা করে। কিন্তু ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর ইতিহাস গত চৌদ্দ’শ বছরের। এর যেমন নির্দিষ্ট দিন-তারিখ ধার্য করা আছে, তেমনি তাবলীগ জামা’আতের এজতেমা’রও দিন-তারিখ নির্দিষ্টকৃত। উভয় অনুষ্ঠানেই মানুষ যোগ দেয়, দোয়া-খায়র করে এবং দ্বীন সম্পর্কে জানতে চেষ্টা করে [যদিও তাবলীগে তা শেখার সুযোগ নেই, কারণ তাতে সহীহ আকীদা-বিশ্বাসের কোনো আলেম-উলেমা নেই – অনুবাদক]। এমতাবস্থায় তাবলীগ জামা’আতের কার্যক্রম বেদআত না হলেও ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর চর্চা বেদআত হবে কেন?

বেদআত নং – ২/ পাকিস্তানে ১৯৭০-এর দশকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টো সাহেব কা’বা শরীফের ইমামকে পাকিস্তান সফরে অামন্ত্রণ করেন। ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর ঘোর বিরোধী ওই সৌদি ইমাম পাকিস্তান এলে মুসলমান সর্বসাধারণ সমস্ত মসজিদ ত্যাগ করে তার ইমামতিতে বড় স্টেডিয়ামে জুম’আর নামায পড়েন। ইসলামে কি এমন ধর্মীয় সমাবেশের কোনো পূর্ব-নজির আছে? মহানবী (দ:) ও তাঁর সাহাবা (রা:)-বৃন্দ কখনোই এ রকম করেননি। মুসলমানদের ইতিহাসে এরকম ঘটনা কখনোই ঘটেনি যে মুসলমান সাধারণ নিজেদের মসজিদগুলো ত্যাগ করে স্রেফ সৌদি আরব থেকে আগত হওয়ার কারণে কোনো ইমামের পেছনে নামায আদায় করেছিলেন। এটি নিঃসন্দেহে এক বড় বেদআত। কেন তাহলে কা’বা শরীফের ইমাম ও তার ইমামতিতে নামায আদায়কারী মুসূল্লীদের বিরুদ্ধে কোনো ফতোওয়া জারি করা হয়নি?

বেদআত নং – ৩/ ভারতের অন্যতম পুরোনো মাদ্রাসা দারুল উলূম দেওবন্দের আলেম-উলেমাবর্গ ও শিক্ষার্থীরা (কিছু বছর আগে) প্রতিষ্ঠানটির ১০০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করেছিল। আর তা উদযাপিত হয়েছিল ওই রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী ও হিন্দু ধর্মাবলম্বী শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীর সভাপতিত্বে। আমাদের প্রিয়নবী (দ:) কিংবা তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) কি কখনো মসজিদে কুবা অথবা মসজিদে নববীর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করেছিলেন? তাও আবার এক ভিন্ন ধর্মাবলম্বীকে দিয়ে উলামা-এ-ইসলামের সমাবেশে সভাপতিত্ব করিয়ে? এটি নিশ্চিত যে ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিদ্বেষী চক্রটি মহানবী (দ;)-এর বেলাদত দিবসের চেয়ে নিজেদের দারুল উলূম ও ভিন্ন ধর্মাবলম্বী সভাপতির প্রতি বেশি ভক্তিশ্রদ্ধা রাখে।

বেদআত নং – ৪/ কিছু বছর আগে যুক্তরাজ্যে অবস্থিত আহলে হাদীস দলটি ‘তাওহীদে সুন্নাত’ শিরোনামে এক সভার আয়োজন করেছিল এবং তাতে কা’বা শরীফের ইমাম ও অন্যান্য আলেম-উলেমাকে দাওয়াত করে এনেছিল। তারা বর্তমানে প্রতি বছরই এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। রাসূলুল্লাহ (দ:) বা তাঁর সাহাবী (রা:)-বৃন্দ কি কখনো ‘তাওহীদে সুন্নাত’ শিরোনামে কোনো কর্মসূচির আয়োজন করেছিলেন এবং তাতে বক্তব্য রাখতে সফর করে গিয়েছিলেন? তাহলে একে বেদআত বলা হবে না কেন? ‘সালাফী’ চক্র (স্বঘোষিত আহলে হাদীস সম্প্রদায়) দ্বীন ইসলামের অন্তর্ভুক্ত অন্য যে কোনো (ভ্রান্ত) ফেরকাহ হতে বেশি পরিমাণ বেদআত সংঘটন করে এবং হাদীস-ও বেশি বেশি অস্বীকার করে।

বেদআত নং – ৫/ মুসলমান সাধারণ যখন কোনো বিষয় বা দ্বন্দ্ব-সংঘাতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন, তখন তারা রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ সমাবেশ করে থাকেন। মুসলমান (রাজনৈতিক) নেতৃবৃন্দ ও (রাজনৈতিক দলের) আলেম-উলেমা তাতে ভাষণ দেন। ওই সব র‌্যালীর আয়োজক ও নেতৃবৃন্দের মধ্যে অনেকে ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-কে বেদআত মনে করেন। আমি তাদেরকে একটি অত্যন্ত সহজ প্রশ্ন করতে চাই। এ ধরনের দ্বন্দ্ব-সংঘাত বা আগ্রাসন অথবা (রাজনৈতিক) ইস্যূতে কি কখনো আমাদের মহানবী (দ:), তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) কিংবা ইসলামের মহান আলেম-উলেমা প্রতিবাদ সমাবেশ করতে রাস্তায় র‌্যালী বা ব্যানার ব্যবহার করেছিলেন? ক্রুসেডার গোষ্ঠী যখন আল-কুদস্ দখল করে নেয়, তখন কি মুসলমানবৃন্দ কোনো র‌্যালীর আয়োজন করেছিলেন? কুরআন, হাদীস বা ইসলামী ইতিহাসে এসব র‌্যালীর ভিত্তি কোথায়? [মওদূদীবাদী জামা’আত ও হেফাযতীদের এ প্রশ্ন করা উচিত – অনুবাদক]। এসব র‌্যালী কি বেদআত নয়? ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিদ্বেষীরা মুসলমানদের প্রতি তাদের র‌্যালীতে যোগ দেয়ার জন্যে আমন্ত্রণ জানিয়ে থাকে। তারা মুখে বলে, “এসব র‌্যালীতে অংশগ্রহণ করাটা জ্বেহাদ এবং অংশগ্রহণকারীদেরকে আল্লাহতা’লা পুরস্কৃত করবেন।” অথচ প্রিয়নবী (দ:)-এর বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির জন্যে কোনো সমাবেশের আয়োজন করা হলে তা হয়ে যায় (তাদের দৃষ্টিতে) একটি বেদআত। হায় লজ্জা!

বেদআত নং – ৬/ পাকিস্তানে ১৯৭০ সালের নির্বাচনে জামা’আতে ইসলামী নামের রাজনৈতিক দলটি ‘এয়াওমে শওকতে ইসলাম’ নামে বড় বড় মিছিল সমাবেশ করেছিল। এই নামটি খোদ দ্বীন-ইসলামকে খাটো করেছে। জামা’আতে ইসলামী যখন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে না, তখনো প্রতিদিনই এয়াওমে শওকতে ইসলাম (ইসলাম ধর্মের শান-শওকতের দিবস) বিরাজমান। এমন ‘এয়াওমে শওকতে ইসলাম’ কবে মহানবী (দ:) ও সাহাবা (রা:)-মণ্ডলী আয়োজন করেছিলেন? তাহলে জামা’আতের এই আয়োজন কি বেদআত নয়? ওই সব বড় মিছিলের বিরুদ্ধে (তাদের) কেউ কি ফতোওয়া জারি করেছিল? এগুলোর সবই ইসলামের নামে করা হয়েছিল। অথচ ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর জুলূসে (ধর্মীয় মিছিলে) অংশগ্রহণ করা হলে তা বেদআত বলে সাব্যস্ত হয়! সত্যি, (মোনাফেক) আবদুল্লাহ ইবনে উবাইয়ের অনুসারীরা (না-কি প্রেতাত্মা?) আমাদের যুগেও অস্তিত্বশীল!

বেদআত নং – ৭/ সৌদি আরব রাজ্যটি ‘এয়াওম-উল-ওয়াতানী’ (জাতীয় দিবস) উদযাপন করে থাকে। টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বিশেষ অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে; খবরের কাগজগুলো বিশেষ সংখ্যা (ক্রোড়পত্র) প্রকাশ করে; আর বেসরকারি কোম্পানিগুলো নিজেদের কর্মীদের একদিনের ছুটি মঞ্জুর করে। সৌদি জাতীয় দিবস পালনের বিরুদ্ধে তাদের কোনো রাষ্ট্রীয় মৌলোভীকে ফতোওয়া দিতে আমি কখনোই দেখিনি। কিন্তু তারা ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর বিরুদ্ধে ফতোওয়া জারি করতে এক মুহূর্ত-ও দেরি করে না। রাসূলুল্লাহ (দ:) বা তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) মদীনায় প্রতিষ্ঠিত ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী কি কখনো পালন করেছিলেন? সৌদি মোল্লা-পুরোহিতবর্গ যারা ঈদে মীলাদুন্নবী (দ;)-এর বিরোধিতা করে, তারা সৌদি আরবে মার্কিন বাহিনীর অবস্থানের ন্যায্যতা প্রতিপাদন করার জন্যে (ইতিপূর্বে) ফতোওয়া জারি করেছিল; কিন্তু তারা নিজেদের সরকারের সংঘটিত বেদআত সম্পর্কে কোনো ফতোওয়াই বর্তমানে দিতে পারছে না। এটি-ই হচ্ছে ইসলাম ধর্মের মৌলিক বিকৃতি সাধন।

বেদআত নং – ৮/ উত্তর আমেরিকায় ISNA, ICNA. CAIR-সহ আরো অনেক মুসলমান সংস্থা নিজেদের বার্ষিক সভার আয়োজন করে থাকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মানুষদেরকে বিভিন্ন পণ্ডিতের ভাষণ শোনার জন্যে টিকেট কিনতে হয়। এই পুরো ব্যবস্থাটি কি বেদআত নয়? রাসূলুল্লাহ (দ:) অথবা তাঁর সাহাবা (রা:)-বৃন্দ কিংবা তৎপরবর্তী ইসলামী উলেমা-মণ্ডলী কবে এ ধরনের সভা আয়োজন করেছিলেন? ইসলামী জ্ঞান বিশারদদের ভাষণ শোনার জন্যে মানুষজনকে অর্থ পরিশোধ করতে হবে কেন? এর ভিত্তি কোথায় আছে? মহানবী (দ:) কি তাঁর ধর্মীয় উপদেশমূলক ভাষণ শোনার জন্যে কোনো চার্জ নিতেন? তাঁর কোনো সাহাবী (রা:) কি নিজের ভাষণ দানের আগে মানুষদেরকে কোনো নেক আমল তথা পুণ্যদায়ক কর্মের জন্যে অর্থ পরিশোধ করতে বলতেন? অবশ্যই না! ওই পুণ্যাত্মাবৃন্দ কখনোই এরকম কিছু করতেন না। তবে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীদের জন্যে এ কাজ সিদ্ধ। সত্য বটে, এটি এক বড় বেদআত। কিন্তু তারা এটিকে বেদআত বলতে রাজি নয়; নতুবা তাদেরকে তাদের দোকান (ব্যবসা) গুটাতে হবে।

বেদআত নং – ৯/ জামা’আতে আহলে হাদীস, সালাফী দল, জামা’আতে ইসলামী, WAMY, রাবেতা-এ-আলম-এ-ইসলামী, ISNA, ICNA, CAIR ইত্যাদি (ফিতনা সৃষ্টিকর) সংস্থা গঠনের ধারণাটাই একটা বেদআত। মহানবী (দ:) বা তাঁর সাহাবা (রা:)-বৃন্দ কখনোই এরকম সংস্থা গঠন করে সেগুলোর নাম দেননি। সারা বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের যে প্রতিষ্ঠান থাকা বাঞ্ছনীয়, তা হলো “মুসলিম”। কেবল আল্লাহ পাকই মানুষদেরকে গোত্র ও জাতিগোষ্ঠীতে বিভক্ত করেছেন। ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর এসব বিরোধিতাকারীরা উম্মাহকে বিভক্ত করেছে। কতোই না নিকৃষ্ট বেদআত তারা সংঘটন করেছে! [অনুবাদকের নোট: মুসলিম উম্মাহকে বিভক্ত করে এমন সংস্থা-সংগঠন অবৈধ হলেও ইসলামে মানবকল্যাণমূলক সংস্থা-সংগঠন জায়েয। যেমন – মহানবী (দ:) নিজেই ‘হিলফুল ফুযূল’ নামের একটি সংগঠন করেছিলেন]

বেদআত নং – ১০/ জনৈকা পাকিস্তানী মহিলা বর্তমানে কানাডায় বসবাস আরম্ভ করেছেন, যদিও তিনি পাকিস্তানেও কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকেন। তিনি নিজেকে ইসলামী জ্ঞান বিশারদ বিবেচনা করেন। শুধু ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর বিরুদ্ধে ফতোওয়া-ই তিনি দেন না, কুরআন-খানী (সমবেতভাবে কিতাবুল্লাহ পাঠ) ইত্যাদির মতো ঐতিহ্যবাহী ইসলামী রসম-রেওয়াজের বিরুদ্ধেও তিনি ফতোওয়া জারি করেন। তিনি শুধুমাত্র মহিলাদের জন্যে নামাযের জামাতের আয়োজন করেন; এতে সালাতুত্ তাসবীহ ও তারাবীহ নামায-ও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তিনি নিজে ইসলামের মধ্যে কেবল মহিলাদের জন্যে অনেক নতুন প্রথা প্রবর্তন করেছেন, কিন্তু ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) তার মতে বেদআত। তার প্রবর্তিত ধারায় ইসলাম প্রচার করার ভিত্তি কোথায় বিদ্যমান? মহানবী (দ:)-এর শিক্ষার পরিপন্থী মহিলা সমাবেশের আয়োজন তিনি করে থাকেন, যেটি সবচেয়ে নিকৃষ্ট ধরনের বেদআত। তিনি মুসলিম মহিলাদের উগ্রপন্থায় দীক্ষা দিয়ে ইসলামের নামে অনেক পরিবারের ধ্বংস সাধনও করেছেন। বস্তুতঃ তার পুরো সংগঠন-ই একটি বেদআত।

বেদআত নং – ১১/ আজকে উত্তর আমেরিকায় মুসলিম সংস্থাগুলো মসজিদ, ইসলামী বিদ্যালয় বা মানবকল্যাণমূলক কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে তহবিল গঠনমূলক নৈশভোজের আয়োজন করে থাকে। তারা টিকেট বিক্রি করে এবং বক্তাদের আমন্ত্রণ জানায়। তহবিল গঠনের জন্যে নৈশভোজের আয়োজন মহানবী (দ:) বা তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) কবে করেছিলেন? কোনো একটি লক্ষ্যে তাঁরা কবে ৫, ২৫, ১০০ ডলার মূল্যের খাবারভর্তি প্লেট বিক্রি করেছিলেন? এগুলোর সবই কি বেদআত নয়? এই তহবিল গঠনমূলক নৈশভোজ দিয়ে তাদের ফায়দা হয় বলে তারা এর আয়োজন করে, কিন্তু মীলাদুন্নবী (দ:)-এর আয়োজন তাদের মর্মপীড়ার কারণ হয়ে দাঁড়ায়! কী অদ্ভূত!

জনৈক উর্দু কবি বলেন:

“হাম আহ্ ভী কারতে হ্যায় তো হোজাতে হ্যায় বাদনাম
উয়ো ক্কাতল ভী কারদেয় তো চার্চা নাহী হোতা।”

অর্থাৎ, আমি বেদনার্ত হয়ে ‘উফ’ শব্দটি করলেও আমার বদনাম হয়; আর তারা খুন-খারাবী করলেও কেউ আপত্তি উত্থাপন করে না।

মহানবী (দ:)-এর বেলাদত দিবস যদি তাঁর বা তাঁর সাহাবী (রা:)-দের দ্বারা উদযাপিত না হওয়ার কারণে বেদআত বলে ধরা হয়, তাহলে নিম্নোক্ত বেদআতগুলো কেন বহু শতাব্দী আগে প্রবর্তন করা হয়েছিল এবং সেগুলো কেন আজো চর্চা করা হয়? কেন ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীরা সেগুলোকে নিন্দা করে না এবং অবিলম্বে সেগুলোর অনুশীলন পরিত্যাগ করে না?

বেদআত নং – ১২/ রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর প্রতি যখন কুরআন মজীদ অবতীর্ণ হয়, তখন তা ত্রিশ সিপারা ছিল না। তিনি বা তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) এই ত্রিশ সিপারা প্রবর্তন করেননি। এটি কয়েক শতাব্দী পরে শাসক ও আলেম-উলেমাদের দ্বারা প্রবর্তন করা হয়, যাতে ঐশীগ্রন্থ মুখস্থ করতে হুফফায (কুরঅানে হাফেয)-দের সুবিধা হয়। রমযান মাসে তারাবীহ নামায আদায়ের সময় কুরআন তেলাওয়াতে হাফেযদের জন্যে এই পদ্ধতি সহায়ক হয়েছে।

বেদআত নং – ১৩/ নবী করীম (দ:) কিংবা তাঁর মহান সাহাবা-এ-কেরাম (রা:)-এর কেউই পবিত্র কুরআন শরীফে রুকূ বা সেগুলোর সংখ্যা বসাননি। এগুলো বহু শতাব্দী পরে শাসকবৃন্দ ও আলেম-উলেমা যুক্ত করেছিলেন, যাতে মসজিদের ইমাম ও কুরআনে হাফেযদের পবিত্র কুরআন মুখস্থ করতে সুবিধা হয়; এতে তারা প্রাত্যহিক ৫ ওয়াক্ত নামায ও সালাতে তারাবীহ পড়ানোর সময় শুদ্ধভাবে কুরআন তেলাওয়াত করতে সক্ষম হন।

বেদআত নং – ১৪/ রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর যুগে পবিত্র কুরঅান মজীদে কোনো এ’রাব (ফাতা/কাসরা/দাম্মা, অর্থাৎ, জের/জবর/পেশ) যুক্ত ছিল না। এগুলো নিষ্ঠুর মুসলমান শাসক হাজ্জাজ বিন ইউসূফের নির্দেশে যুক্ত করা হয়। অনারব মুসলমান সমাজ যাতে শুদ্ধভাবে কুরআন তেলাওয়াত করতে পারেন, সে জন্যে এগুলো সন্নিবেশিত হয়েছিল। এসব এ’রাব হচ্ছে বেদআত। কিন্তু এগুলো যদি কুরঅান মজীদ থেকে অপসারণ করা হয়, তাহলে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীরা আল্লাহতা’লার কেতাব শুদ্ধভাবে পড়তে পারবে না। তাই তাদের এই বেদআতের বড়ই প্রয়োজন, কিন্তু ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-কে তাদের প্রয়োজন নেই!

বেদআত নং – ১৫/ ইসলামী বিধানানুযায়ী, কোনো মুসলমান নর বা নারীর জন্যে শুধু তিনটি পরিস্থিতিতে অ-মুসলিম রাজ্যে বসবাসের অনুমতি রয়েছে: (১) যখন তিনি তাঁর স্বদেশ মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যে জুলুম-অত্যাচারের মুখোমুখি হন এবং তাঁর প্রাণনাশের হুমকি দেখা দেয়; (২) যখন তিনি অ-মুসলিম অধ্যুষিত রাজ্যে ধর্মপ্রচার করতে চান। আরেক কথায়, অমুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যে বসতি স্থাপনের জন্যে ইসলামের ধর্মপ্রচারক হওয়া শর্ত; এবং (৩) যখন তাঁর মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ স্বদেশে তাঁরই অন্বেষণকৃত উচ্চতর শিক্ষা লভ্য হয় না। ওপরোক্ত এই তিনটি শর্ত ছাড়া অ-মুসলিম-প্রধান রাজ্যে বসতি স্থাপনের অনুমতি আমাদের ধর্ম আমাদেরকে দেয় না। “শ্রেয়তর অথনৈতিক সুবিধাগুলো গ্রহণের” উদ্দেশ্যে মহানবী (দ:) বা তাঁর সাহাবা-এ-কেরাম (রা:) অমুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যে বসবাসের জন্যে যাননি। তাঁরা শুধু ওই তিনটি কারণেই গিয়েছিলেন। তবে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীদের কাঙ্ক্ষিত এবং তাদের মাঝে  প্রসার লাভকৃত অন্যতম বেদআত হচ্ছে অ-মুসলিম অধ্যুষিত রাজ্যগুলোতে উন্নততর জীবনযাত্রার অন্বেষণ। বস্তুতঃ এটি এতোই কাঙ্ক্ষিত ও মরিয়া হওয়ার মতো বেদআত যে তারা এটি সংঘটনের জন্যে এমন কি আল্লাহর দরবারেও ফরিয়াদ করে থাকে। আর আল্লাহ ভালোই চেনেন-জানেন মোনাফেকদের।

সবচেয়ে বড় ধোকাবাজি  

আমাদের যুগের মুসলমানদের মধ্যে প্রচলিত অন্যতম বিভ্রান্তি হলো তারা মক্কা মোয়াযযমা ও মদীনা মোনাওয়ারার আলেম-উলেমাকে ইসলামের প্রকৃত জ্ঞান বিশারদ মনে করেন। তারা বিশ্বাস করেন যে মসজিদে হারাম ও মসজিদে নববী শরীফের ইমামবর্গ যা কিছু বলে, তা ‘কোনোক্রমেই ভুল হতে পারে না।’ এরা সারা জাহানের মধ্যে সবচেয়ে পবিত্র মসজিদগুলোর ইমাম। যেহেতু এই ইমামেরা ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-কে বেদআত ফতোওয়া দেয়, তাই এটি বেদআত-ই হবে নিশ্চয়! সৌদি আরবের মুফতী সাহেব নিশ্চয় সবচেয়ে জ্ঞানী আলেম; তার ফতোওয়া-ই সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য হতে বাধ্য!

এ-ই যদি হয় মাপকাঠি বা মানদণ্ড, তাহলে ইতিহাসের দিকে আমি আপনাদের মনোযোগ আকর্ষণ করবো:

উসমানীয় তুর্কী সালতানাত (শাসকবৃন্দ) সাত শতাব্দী যাবত মক্কা ও মদীনা শরীফ শাসন করেন। ওই সাতটি শতাব্দীতে মসজিদে হারাম ও মসজিদে নববীর ইমামবৃন্দ পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপন করতেন (বলে প্রামাণ্য দলিলে সাব্যস্ত)। সৌদি আরবীয় রাজতন্ত্র ক্ষমতায় আসীন হওয়ার আগে হারামাঈন শরীফাইনসহ পুরো আরব উপদ্বীপেই ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর অনুশীলন ছিল। বস্তুতঃ ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর সর্ববৃহৎ সমাবেশ হতো মক্কার মসজিদে হারামে। অতঃপর সৌদি ওহাবীদের ক্ষমতা দখলের পর এই প্রথা বন্ধ করে দেয়া হয়। আপনারা যদি উসমানীয় তুর্কী শাসনামলে জন্মগ্রহণ করতেন, তাহলে আপনারা হারামাঈন শরীফাইনে সর্ববৃহৎ মীলাদ অনুষ্ঠান প্রত্যক্ষ করতে পারতেন।

সরকার পরিবর্তন হলেও আমাদের (মুসলমানদের) ধর্মীয় ঐতিহ্য ও রীতি-নীতি পরিবর্তন করা আমাদের মোটেও উচিত নয়। আমাদের এই ঐতিহ্য ও রীতি-নীতি পবিত্র কুরঅান, মহানবী (দ:)-এর সুন্নাহ ও উলামা-এ-ইসলামের ‘এজমা’র ওপর দৃঢ় প্রতিষ্ঠিত। আজকে যদি সৌদি সরকারের বদলে অন্য কোনো সরকার ক্ষমতাসীন হয়, তাহলে ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীদের কী অবস্থা হবে? তারা কি মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপন আরম্ভ করবে?

ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) মুসলমানদেরকে ঐক্যবদ্ধ করে, আর এর অস্বীকার তাদেরকে বিভক্ত করে। গত চৌদ্দ’শ বছরের ইতিহাস-ই সাক্ষী। মহানবী (দ;)-এর বেলাদত দিবস যখন তাঁরা উদযাপন করতেন, তখন তাঁরা ছিলেন একতাবদ্ধ; আর যখন থেকে এ বিষয়ে মুসলমান সমাজ বিতর্কে জড়িয়েছেন, তখন-ই অনৈক্য দেখা দিয়েছে। মুসলমানদের যা বিভক্ত করেছে তা ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) পালন নয়, বরং ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর অস্বীকার-ই তাদেরকে বিভক্ত করেছে।

ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীদের প্রদর্শিত একটি ধোকাপূর্ণ যুক্তি হচ্ছে এই যে, জাতীয় দিবস পালন, সংস্থা-সংগঠন প্রতিষ্ঠাকরণ এবং নির্বাচনে অংশগ্রহণ দুনিয়াবী তথা পার্থিব বিষয়। এগুলো ইসলামী শরীয়তের অংশ নয়; কিন্তু যারা মহানবী (দ:)-এর বেলাদত দিবস পালন করেন তাঁরা এটিকে ইসলাম ও ইসলামী শরীয়তের অংশ হিসেবেই উদযাপন করেন। অতএব, ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) বেদআত, কেননা মহানবী (দ:) এটিকে ইসলামের অংশ বানাননি। মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীদের প্রদর্শিত এটি কতোই না অদ্ভূত ও ধোকাবাজিপূর্ণ এবং অনৈসলামী যুক্তি!

আল্লাহতা’লা এরশাদ ফরমান: “হে ঈমানদার সকল! (তোমরা) ইসলামে পূর্ণাঙ্গভাবে প্রবেশ করো এবং শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করো না। নিঃসন্দেহে সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু।” [আল-কুরঅান, ২:২০৮; তাফসীরে নূরুল এরফান]

অর্থাৎ, একজন ঈমানদার মুসলমানের জীবনে কখনোই এমন একটি মুহূর্ত নেই, যখন তিনি ইসলাম বা ইসলামী শরীয়তের বাইরে অবস্থান করেন। আমরা মুসলমান সর্বসাধারণ বিশ্বাস করি যে, কোনো ঈমানদারের যাবতীয় আমল তথা কাজ-কর্ম, পরিবারকে সময় দেয়া, বন্ধু-বান্ধবের সাথে সময় কাটানো, স্বামী-স্ত্রী সম্পর্ক, ঘুমোনো, এমন কি শরীরচর্চাও এবাদতের অংশবিশেষ – যতোক্ষণ পর্যন্ত ওই ঈমানদার ব্যক্তি আল্লাহরই খাতিরে, তাঁরই রেযামন্দির উদ্দেশ্যে তা করে থাকেন।

আল্লাহতা’লা আরো এরশাদ ফরমান: “হে রাসূল আপনি বলুন, নিঃসন্দেহে আমার নামায, আমার সমস্ত কোরবানী, আমার জীবন এবং আমার মরণ – সবই আল্লাহ জন্যে, যিনি রব সমগ্র জাহানের।” [আল-কুরআন, ৬:১৬২]

এর মানে হলো, প্রত্যেক মুসলমানের জন্যে তার সমস্ত পার্থিব বা অপার্থিব কর্ম আল্লাহরই উদ্দেশ্যে নিবেদিত। তার মানে কি মীলাদুন্নবী (দ:)-বিদ্বেষী চক্র যখন তাদের ‘পার্থিব কর্ম’ সম্পাদন করে তখন তা নিজেদের খাতিরেই করে এবং আল্লাহর ওয়াস্তে করে না? এতে তারা ইসলাম ধর্ম থেকে খারিজ হয়ে যাবে, যদি তারা ‘পার্থিব কর্ম’-গুলোকে শরীয়তের অংশ হিসেবে গণ্য করতে না চায়; কেননা তা শরীয়তেরই আওতাধীন। আমি মনে করি না তারা এই বিশ্বাস অন্তরে পোষণ করে। এমতাবস্থায় ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীদের ওপরোক্ত সমস্ত বেদআত-ই তারা আল্লাহর ওয়াস্তে করে থাকে। তাই তারা এসব অনুশীলনকে (যেগুলো বাস্তবিকই বেদআত) “শর’ঈ” (ইসলামে বৈধ) বিবেচনা করে। তাহলে মীলাদুন্নবী (দ:)-কে “শর’ঈ” (ইসলামে বৈধ) বিবেচনা করা হবে না কেন? 

উপসংহার

এই গোটা বিশৃঙ্খলা আরম্ভ হয়েছিল সৌদি আরব রাজ্যে ওহাবী বিপ্লবের ফলে। ওই বিপ্লবের আগে মুসলমান সমাজ কোনো দ্বিধা অথবা বাধা ছাড়াই ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপন করতেন। বর্তমানে মুসলমান সর্বসাধারণ হজ্জ্ব ও উমরাহ’র জন্যে সৌদি আরব সফর করছেন এবং বিশ্বের নানা অঞ্চলের অনেক মুসলমান সেখানে কর্মরত আছেন। তারা মনে করেন ওই দেশে যা কিছু অনুশীলিত হয়, তা-ই বুঝি সঠিক। ভেবে দেখুন, আপনারা যদি ওহাবী বিপ্লবের আগে জন্মাতেন, তাহলে এমন কি মক্কা মোয়াযযমা ও মদীনা মোনাওয়ারায়ও ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-এর উদযাপন প্রত্যক্ষ করতে সক্ষম হতেন। আব্বাসীয়, ফাতেমীয়, উসমানীয় ও অন্যান্য শাসকবৃন্দ হারামাঈন শরীফাইন এবং মুসলিম বিশ্বের অধিকাংশ এলাকা শাসন করেছেন বিগত ১৩’শ বছর ধরে। এই তেরো’শ বছরে কোনো ইসলামী আলেমই ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করেননি; এদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সৌদি ওহাবীদের কাছে গ্রহণযোগ্য ফেকাহবিদ ইবনে তাইমিয়াও।

ইসলাম ধর্মে যদি সকল বেদআত-ই পাপ হতো, তাহলে আমীরুল মো’মেনীন সাইয়্যেদুনা উমর ইবনে আল-খাত্তাব (রা:) কখনোই তারাবীহ নামায জামাআতে আদায়ের ক্ষেত্রে “নে’মাতুল বিদ’আ” (সুন্দর নতুন প্রথা) শব্দটি ব্যবহার করতেন না।

ইসলামী খেলাফতের পতনের অন্যতম কারণ ছিল ওহাবী বিপ্লব। সারা মুসলিম বিশ্বে একমাত্র সৌদি আরবেই পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-কে রাষ্ট্রীয়ভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে [কাতার-ও সৌদি ওহাবীদের জ্ঞাতি-গোষ্ঠী হওয়ার দরুন একে নিষিদ্ধ করেছে – অনুবাদক]। তবে লক্ষ লক্ষ সৌদি মুসলমান মুতাওওয়া’ তথা ওহাবী মতবাদী পুলিশের দ্বারা হয়রানির আশঙ্কায় নিজেদের ঘর-বাড়িতে (গোপনে) ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) পালন করে থাকেন। আপনারা যদি মহানবী (দ:)-এর সহস্র সহস্র আহলে বায়ত (রা:) ও আসহাবে কেরাম (রা:)-এর হন্তা খাওয়ারিজ (খারেজী) চক্রের আকীদা ও ধর্ম অনুশীলনের দিকে লক্ষ্য করেন, তাহলে তাদের সাথে ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:)-বিরোধীদের হুবহু মিল দেখতে পাবেন।

অনুগ্রহ করে ইবনে বতুতার ভ্রমণ কাহিনী (সফরনামা-এ-ইবনে বতুতা) পাঠ করুন। তিনি তাতে মক্কা মোয়াযযমায় অবস্থিত হারাম শরীফের অভ্যন্তরে এবং শহরের অন্যত্র পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপনের প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে এক বিবরণ লিপিবদ্ধ করেছেন। তিনি স্রেফ একজন ভ্রমণকারী ছিলেন। তিনি মক্কায় যা ঘটেছিল তা-ই লিখেছিলেন।

পথভ্রষ্ট ও উগ্রবাদীদের সৃষ্ট ফিতনা’র প্রতি আমাদের মনোযোগ দেয়া উচিত নয়। চলুন, ইসলামী ঐতিহ্যপূর্ণ সেসব প্রথাগুলোর দিকে আমরা ফিরে যাই, যেগুলো মুসলমান সমাজ আগে চর্চা করতেন; এর ব্যতিক্রম শুধু ইহুদীবাদী গোত্র ও ক্রুসেডার-চক্রের দালাল গোষ্ঠী, যারা তা অনুশীলন করে না।

আমি আপনাদের প্রতি সর্বান্তঃকরণে পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপনের উদাত্ত আহ্বান জানাই।

[এই পর্যায়ে লেখকের প্রদত্ত কিছু রেফারেন্স আর অনুবাদ করা হলো না। কেননা, এগুলো আমরা ইতিপূর্বে “ইসলামী উলামাবৃন্দের দৃষ্টিতে মীলাদুন্নবী (দ:)” শীর্ষক অনূদিত প্রবন্ধে প্রকাশ করেছিলাম। দেখুন – http://www.rodelaanubad800.blog.com]   
 
                                                                 *সমাপ্ত*