মিলাদ মাহফিলে হুজুর(দঃ) উপস্থিত হতে পারেন!!!

Standard

“প্রচলিত জাল হাদিস” বইয়ে মাওলানা জুনাইদ বাবুনগরী ১৭২ পৃঃ  এবং ” হাদিসের নামে জালিয়াতি” বইয়ে ২৮৭পৃঃ, ড. আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর  লিখেছেন, আল্লামা আবদুল হাই লক্ষৌনভীর ” আসরারুল মারফুআ’ ৪৬ পৃষ্ঠায় একটি উদ্ধৃতি এভাবে দেওয়া হয়েছে যে, ” মাওলিদের ওয়াযের মাজালিসে তাঁর মাওলিদ বা জন্মের কথা উল্লেখের সময় তিনি নিজে সেখানে উপস্থিত হন। এ কথার উপরে তারা তাঁর মাওলিদের বা জন্মের কথার সময় সম্মান ও উক্তি প্রদর্শনের জন্য কিয়াম বা দাঁড়ানোর প্রচলন করেছে।”

উক্ত মিথ্যা বক্তব্যের জবাবঃ

কেবল মাওলানা আবদুল হাই লক্ষৌনভীর মন্তব্যে প্রমাণ হয় না যে, মিলাদ মাহফিলে নবিজী উপস্থিত হতে পারেন না। এমনকি তিনি তা লিখেনও নি।শুধু এতটুকুই বলেছেন যে, অনেকেই ভক্তি প্রদর্শন কর থাকে, বিশ্বাস রাখে যে, কিয়ামের সময় রাসুল(সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) উপস্থিত হন। তিনি লিখেননি যে, উপস্থিত হয়না,এই বিশ্বাস পোষণ করা হারাম, নাজায়েজ বা অন্য কিছু।আর তাছাড়া উক্ত দুই বইয়ের লেখক জুনাইদ বাবুনগরী ও আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর আর কোন দলীল পেশ করতে পারেনি।এই বিষয়ে আমরা উভয়কে বলতে চাই যে আপনারা আল্লামা আবদুল হাই এর এ দলীলটি চোখে পড়েছে কিন্তু উক্ত কিতাব ” আল – আসরারুল মারফুআ” এর ৪২ পৃষ্ঠায় হযরত জাবের(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) এর রসুলুল্লাহ(সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নূরের হাদিস প্রসঙ্গে লিখেছেন যে-
” এ হাদিসটি ইমাম আবদুর রাজ্জাক(রহঃ) তাঁর মুসান্নাফ গ্রন্থে বর্ণনা করেছেন। তাহলে এটি কী আপনাদের চোখে পড়েনি, না চোখে কাল চশমা লাগানো ছিল?
তাই আমরা এ বিষয়ে তাদের জবাবে কিছু দলীল উল্লেখ করছি।

★★হাদিসঃ

হযরত আনাস বিন মালিক(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) হতে বর্নিত, রাসুল(সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এরশাদ করেন, নিশ্চয় আম্বিয়ায়ে কিরাম(আঃ) তাদের নিজ নিজ কবরে জীবিত এবং তারা সেখানে নামায আদায় করেন”।
★কঃইমাম আবু ইয়ালাঃআল মুসনাদঃ৬/১৪৭পৃঃ,হাদিসঃ৩৪২৫
★খঃইমাম বায়হাকীঃহায়াতুল আম্বিয়াঃ৬৯-৭০পৃঃ।
★গঃইমাম হায়তামীঃমাযমাউদ যাওয়াইদঃ৮/২১১পৃঃ,হাদিসঃ১৩৮১২।
★ঘঃইমাম আবু নঈম ইস্পাহানীঃ তবকাতে ইস্পাহানীঃ২/৪৪পৃঃ।
★ঙঃইমাম আদিঃ আল কামিলঃ২/৭৩৯পৃঃ।
★চঃইমাম সৈয়ুতিঃআল জামেউস  সগীরঃ১/২৩০পৃঃ, হাদিসঃ৩০৮৯।
★ছঃ ইমাম সৈয়ুতিঃ শরহুস সুদুরঃ২৩৭পৃঃ।
★জঃইমাম দায়লামীঃআল – ফিরদাউসঃ১/১১৯পৃঃ,হাদিসঃ৪০৩।

★ ইমাম সৈয়ুতি(রহঃ) বলেন, হাদিসটি “হাসান”।আল্লামা ইবনে হাজর হাইতামী(রহঃ) বলেন, সনদের সকল বর্ণনাকারী রাবী বিশ্বস্থ।

★ নাসিরুদ্দিন আলবানী তার দু’টি গ্রন্থে হাদিসটিকে সহীহ বলে মত প্রকাশ করেছেন
কঃআলবানীঃ সিলসিলাতুল সহীহাঃহাদিসঃ৬২২
খঃ আলবানীঃসহীহুল জামেঃহাদিস নংঃ২৭৯০।

উপরের আলোচনা থেকে প্রমাণিত হল যে সমস্ত নবীরা তাদের নিজ নিজ রওজা  শরীফে জীবিত রয়েছেন।এ প্রসঙ্গে সহীহ মুসলিম শরীফে হাদিস রয়েছে,
“হযরত আনাস(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) হতে বর্নিত,  মি’রাজে হযরত মূসা(আঃ) এর কবরের পাশ দিয়ে যেতে গিয়ে রাসুল(সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) দেখেন-“তিনি মূসা(আঃ) তাঁর কবরের মাঝে দাঁড়িয়ে নামাজ পড়ছেন”।
★মুসলীমঃ৪/১৮৪৫পৃঃ হাদিসঃ২৩৭৫
★নাসাঈঃ৩/১৫১পৃঃ হাদিসঃ১৬৩৭
★মুসনাদে আহমদঃ৩/১২০পৃঃ
★শরহে সুন্নাহঃ১৩/১৫১পৃঃ হাদিসঃ৩৭৬০
★সহীহ হিব্বানঃ১/২৪১পৃঃ,হাদিসঃ৪৯
ইত্যাদি………

অনুরুপভাবে হযরত আবু হুরায়রা(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) হতে বর্নিত, রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এরশাদ করেন, মি’রাজের রাত্রে আম্বিয়া(আঃ) এর এক বিরাট জামাতকে দেখেছি, মুসা(আঃ) কে তাঁর কবরে নামাজ পড়তে দেখেছি।তাকে দেখতে মধ্য আকৃতির চুল কোকরানো সানওয়া দেশের লোকের মত।আমি ঈসা(আঃ)কে দন্ডায়মান অবস্থায় নামাজ পড়তে দেখেছি, তিনি ওরওয়া ইবনে মাসউস(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুর) মত।তার পরে সময় আসল আমি সকল নবী(আঃ) এর ইমামতি করলাম।
★ মুসলীমঃ৪/১৮৪৫পৃঃ,হাদিসঃ২৩৭৫
★মুসনাদে আহমদঃ৩/১৪৮পৃঃ
★দালায়েলুন নবুয়ত লিল বায়হাকীঃ২/৩৮৭পৃঃ
★ফয়জুল কাদীরঃ৫/৫১৯পৃঃ (ইমাম মানাবী)
ইত্যাদি…………..

উপরের আলোচনা থেকে বুঝা গেল, মূসা(আঃ) নিজ কবর থেকে বায়তুল মোকাদ্দাসে রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর পিছনে  নামাজ পড়ার জন্য গেলেন।
আবার রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যখন ৬ষ্ঠ আসমানে গেলেন তখন দেখেন মূসা(আঃ) সেখানে উপস্থিত হয়ে রয়েছেন এমনকি আখেরী নবীর উম্মতের উপর ৫০ ওয়াক্ত নামাজই তারই ওসিলাতে কমে ৫ ওয়াক্ত রুপান্তরিত হল।(মিশকাতঃ মিরাজ অধ্যায়,বুখারী, মুসলিম সুত্রে)

তাহলে বুঝা গেল মূসা(আঃ) কবরে, বায়তুল মোকাদ্দাসে ও ৬ষ্ঠ আসমানে গিয়েছেন সহীহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত।
তাহলে সব নবীদের শ্রেষ্ঠ নবী যার কারণে আল্লাহ তাআলা সব কিছু সৃষ্টি করেছেন তিনি কেন মিলাদ মাহফিলে আসতে পারবেন না!!!

এই পর্যায়ে আমরা কিছু দলীল গ্রহণ করব, ইনশাআল্লাহ!
দলীল নং-১
আবদুল হাই লক্ষৌনভী ধুমপনের উপর লিখিত ছোট রিসালায় লিখেছেন,
তিনি উক্ত পুস্তকে একটি ঘটনা লিখেন-
” জৈনক ব্যক্তি নাত পাঠ করতো এবং হুক্কাও পান করতো। সে একদিন স্বপ্নে দেখল যে, নবী করীম (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) তাকে বলেছেন – তুমি যখন মিলাদ শরীফ পাঠ কর,তখন আমি মাহফিলে উপস্থিত হই।কিন্তু যখনই হুক্কা আনা হয়,তখন আমি কালবিলম্ব না করে মাহফিল থেকে ফিরে যাই।
★জা’আল হকঃ১/১৪৭পৃঃ(উর্দু)

দলীল নং-২
ইমাম সৈয়ুতি “শরহুস সুদুরে” লিখেন-
” যদি কেউ বিশ্বাস পোষণ করে যে, হুজুর (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)এর পবিত্র রুহ মুবারক ও তাঁর জিসিমে মিছালী মিলাদ পাঠের সময়, রমযানে খতমে কুরআনের সময় এবং নাত পাঠ করার সময় উপস্থিত হয়, তবে  এ বিশ্বাস পোষণ করা জায়েজ।”

দলীল নং-৩
শুধু তাই নয়, ইমাম সৈয়ুতি(রহঃ) একটি হাদিসের ব্যাখ্যায় বলেন-
“উম্মতের বিবিধ কর্ম কান্ডের প্রতিদৃষ্টি রাখা, তাদের পাপরাশির জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করা,তাদের বালা মসিবত থেকে রক্ষা করার জন্য দুআ করা, পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে আনাগোনা করা ও বরকত দান করা এবং নিজ উম্মতের কোন নেক বান্দার ওফাত হলে তার জানাজাতে অংশগ্রহণ করা, এগুলো হুজুর (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর সখের কাজ।অন্যান্য হাদিস থেকেও এসব কথার সমর্থন পাওয়া যায়।”

★সৈয়ুতি কৃতঃ আল হাভী লিল ফতওয়াঃ২/১৮৪-১৮৫পৃঃ, দারুল ফিকর ইলমিয়্যাহ, বৈরুত, লেবানন।

দলীল নং-৪
বিশ্ববিখ্যাত মুফাসসির আল্লামা ইসমাইল হক্কী(রহঃ) তাফসিরে রুহুল বয়ানে সূরা মুলূকের ২৯ নং আয়াতের ব্যাখ্যায় উল্লেখ করেনঃ
” সূফী কুল সম্রাট হুজ্জাতুল ইসলাম ইমাম গজ্জালী(রহঃ) বলেছেন,হুজুর (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর সাহবাকেরামের রুহ মুবারক সাথে নিয়ে জগতের বিভিন্ন স্থানে পরিভ্রমণ ইখতিয়ার আছে।তাই অনেক আউলিয়া কিরাম তাদের দেখেছেন।

★তাফসিরে রহুল বয়ানঃ১০/৯৯পৃঃ

দলীল নং-৫
মিশকাতের ব্যাখ্যা গ্রন্থ মিরকাতে মোল্লা আলী ক্বারী(রহঃ) বলেন-
” ওলীগণ একই মুহুর্তে কয়েক জায়গায় বিচরণ করতে পারেন।একই সময়ে তারা একাধিক শরীরের অধিকারীও হতে পারেন।”
★★ মিরকাতঃ৪/১০১পৃঃ,হাদিসঃ১৬৩২

দলীল নং-৬
শিফা শরীফে ইমাম কাজী আয়াজ আল মালেকী(রহঃ) লিখেন,
“যে ঘরে কেউ না থাকে, সে ঘরে(প্রবেশের সময়) বলবেন, হে নবী আপনার প্রতি সালাম,আপনার উপর আল্লাহর অশেষ রহমত ও বরকত বর্ষিত হোক।”
★শিফা শরীফঃ২/৪৩পৃঃ

দলীল নং-৭
এর ব্যাখ্যায় মোল্লা আলী ক্বারী(রহঃ) শরহে শিফা গ্রন্থে লিখেন-
কেননা নবী (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর পবিত্র রুহ মুসলমানদের ঘরে ঘরে বিদ্যমান আছেন।”

শরহে শিফাঃ২/১১৮পৃঃ,দারুল কুতুব ইসলামিয়্যাহ,বৈরুত,লেবানন।

দলীল নং-৮
হযরত আমর ইবনে হাযম(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) বলেন, রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যখন মসজিদে প্রবেশ করতেন তিনি বলতেন আল্লাহর হাবীবের উপর সালাম ও সালাত বর্ষিত হোক।তারপর প্রবেশের দোয়া বলতেন………….।”এটি তিনি আমাদের শিখানোর জন্যই বলতেন।
★ আল-মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাকঃ১/৪২৫পৃঃ হাদিসঃ১৬৬৩

দলীল নং-৯
হযরত কা’বুল আহবার(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) কে হযরত আবু হুরায়রা(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) বলেছিলেন, তুমি ২ টি জিনিস হেফাজত কর।যখন মসজিদে প্রবেশ করবে রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে সালাম দিবে তখন বলবে যে……………………… ”
★আল মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাকঃ১/৪২৭পৃঃ,হাদিসঃ১৬৭০
★নাসাঈঃসুনানে কোবরাঃ৯/৪০পৃঃ হাদিসঃ৯৮৩৯
★ নাসাঈঃআমালুল ইউয়াম ওয়াল লাইলাঃ১/১৭৮পৃঃ হাদিসঃ৯১.

দলীল নং-১০
হযরত আবদুল্লাহ বিন সালাম(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) তিনি যখন কোন মসজিদে প্রবেশ করতেন তিনি প্রথমে নবিয়ে দুজাহানকে সালাম দিতেন তারপর প্রবেশের দুআ বলতেন।
★ইমাম আবি শায়বাহঃআল- মুসান্নাফঃ ৬/৯৭পৃঃ হাদিসঃ২৯৭৬৮

দলীল নং-১১
” হযরত আবু হুমাইদ সায়েদী(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) হতে বর্নিত তিনি বলেন, রসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন যখন কোন ব্যক্তি মসজিদে প্রবেশ করবে অতঃপর সে যেন তাঁর রসুলের প্রতি সালাম দেয়।তারপর বলবে এই দুআ আল্লাহুম মাফতাহলি আবওয়াবা রাহমাতিক।
★ সুনানে দারেমীঃ২/৮৭৬পৃঃ,হাদিসঃ১৪৩৪
★ সুনানে ইবনে মাজাহঃ১/২৫৪পৃঃ,হাদিসঃ৭৭২। আলবানী এ হাদিসের তাহক্বীকে সনদকে সহীহ বলেছেন।
★বায়হাকী আস সুনান কোবরাঃ২/৬১৯পৃঃ হাদিসঃ৪৩১৭ ও ৪৩১৯
★ আবু দাুউদ আস সুনানঃ১/১২৬পৃঃহাদিসঃ৪৬৫
★বাযযার আল মুসনাদঃ৯/১৬৯পৃঃহাদিসঃ৩৭২০
★নাসাঈ আস সুনানে কোবরাঃ১/৪০৪পৃঃ,হাদিসঃ৮১০
★নাসাঈ, আমালুল ইউয়াম ওয়াল লাইলাঃ১/১২০পৃঃহাদিসঃ১৭৭
★সহীহ ইবনে হিব্বানঃ৫/৩৯৭পৃঃহাদিসঃ২০৪৮
★তাবরানি,কিতাবুদ দোয়াঃ১/১৫০পৃঃহাদিসঃ৪২৬
★ইমাম নববী,আল মুখাল্লিসিয়্যাতেঃ২/৩৯১পৃঃহাদিসঃ১৮২৪
★বায়হাকীঃদাওয়াতুল কবীরঃ১/১২৬পৃঃহাদিসঃ৬৬

দলীল নং-১২

“হযরত আবু হুরায়রা(রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) হতে বর্নিত তিনি বলেন রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নিশ্চয় বলেছেন যখন কোন ব্যক্তি মসজিদে প্রবেশ করবে অতঃপর সে যেন তাঁর রাসুলের প্রতি সালাম দেয়।তারপর এই দোয়া পড়বে……(মসজিদে প্রবেশের দোয়া)….. এবং আবার যখন মসজিদ থেকে বের হবে তখনও রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)কে সালাম দিয়ে বের হবে”।
★সুনানে ইবনে মাজাহঃ১/২৫৪পৃঃহাদিসঃ৭৭৩; আলবানী এই হাদিসের তাহক্বীকে সনদকে সহীহ বলেছেন।
★বাযযার আল মুসনাদঃ১৫/১৬৮পৃঃহাদিসঃ৮৫২৩
★নাসাঈ আস সুনানে কোবরাঃ৯/৪০পৃঃহাদিসঃ৯৮৩৮
★ইবনে খুযাইমা, আস সহীহঃ১/২৩১পৃঃহাদিসঃ৪৫২; আলবানী বলেন এটি মুসলিমের শর্ত অনুযায়ী সহীহ।
★ সহীহ হিব্বানঃ৫/৩৯৫পৃঃহাদিসঃ২০৪৭ ও ৫/৩৯৯পৃঃ হাদিসঃ২০৫০;
★বায়হাকী আস সুনানে কোবরাঃ২/৬২০পৃঃ, হাদিসঃ৪৩২১
★ হাইতামী, মাওয়ারিদুয যমানঃ১/১০১পৃঃহাদিসঃ৩২১

দলীল নং-১৩
মোল্লা আলী ক্বারী রহঃ  মিরকাতে লিখেন-
” হুজ্জাতুল ইসলাম ইমাম গজ্জালী(রহঃ) বলেছেন,আপনি যখন মসজিদে প্রবেশ করবেন,তখন হুজুর (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)কে সশ্রদ্ধ সালাম দিবেন।কারণ তিনি মসজিদ সমুহে বিদ্যমান আছেন।”
★ মিরকাতঃ২য়খন্ড, মসজিদ অধ্যায়

দলীল নং-১৪
উপমহাদেশের শ্রেষ্ঠতম মোহাদ্দেস শাহ ওয়ালী উল্লাহ মোহাদ্দেস দেহলভী(রহঃ) বলেন-
“আমি রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)কে অধিকাংশ দ্বীনি ব্যাপারে তার নিজ আকৃতিতে আমার সম্মুখে বার বার দেখেছি।এতে আমি উপলব্দি করলাম যে, তার রুহ মুবারকের এমন বিশেষ শক্তি রয়েছে যে, তা তার আকৃতি ধারণ করতে পারে। এটা রাসুল (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর ঐ উক্তির ইঙ্গিত যে, নবীগণ মরে না, তারা নিজ নিজ কবরে নামাজ পড়ে থাকেন, তারা হজ্জ্ব করে থাকেন এবং তাঁরা জীবিত আছেন।
★ফয়জুল হারামাঈনঃ২৪৫পৃঃ

দলীল নং-১৫
দেওবন্দীদের পীর ও গুরু এবং পীরানে পীর হাজী এমদাদুল্লাহ মুহাজেরি মক্কী (রহঃ) থেকে মীলাদে নবীজী হাজির নাজির দলীল পেশ করছি।
তিনি তার গ্রন্থ ” শামায়েলে এমদাদীয়া” এর মধ্যে বলেন,
” মিলাদ শরীফে  কিয়াম করার সময় হুজুর (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এখন ভূমিষ্ট হচ্ছেন এ ধরনের বিশ্বাস না রাখা উচিৎ।আর যদি মাহফিলে তাশরীফ আনেন এমন বিশ্বাস রাখে, তাহলে অসুবিধা নেই, কারণ এ নশ্বর জগতে কাল ও স্থানের সাথে সম্পৃক্ত।আর পরকাল স্থান – কালের সম্পর্ক থেকে মুক্ত।

★ শামায়েলে এমদাদীয়াঃ১০৩পৃঃ,মাকতাবাতে থানবী, দেওবন্দ।

দলীল নং-১৬
মুহাজেরি মক্কী আরো বলেন
“এ আক্বিদা ও বিশ্বাস রাখা যে, মিলাদ মাহফিলে হুজুর (সলল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) উপস্থিত হন, এটা কুফর বা শিরক নয়,বরং এমন বলা সীমা লঙ্গন ছাড়া কিছুই নয়।কেননা এ বিষয়টি যুক্তিভিত্তিক ও শরীয়তের দলীলের আলোকে সম্ভব।এমনকি অনেকক্ষেত্রে বাস্তবে তা ঘটেও থাকে।”
★কুল্লীয়াতে এমদাদীয়াঃ১০৩ পৃঃ, মাকতুবাতে থানবী,দেওবন্দ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s