ক্বিবলা

Standard

নিজ মুরশীদ/পীর
কে মুরশীদ
কেবলা বলার প্রমাণঃ
যারা আউলিয়া কেরাম
মানে ও সম্মান
করে তারা আপন
মুর্শিদের
শানে কেবলা ব্যবহার
করে থাকে | কিন্তু
কিছু বাতিল ফেরকার
মুনাফেকেরা এর ঘোর
আপত্তি করে থাকে এবং হারাম
ও নাজায়েজ
বলে | এই সকল
বাতিলদের ফতুয়ার
জবাব :
বিশ্ববিখ্যাত
ফতোয়ার
কিতাব
ফতোয়ায়ে শামী’র
কেবলা অধ্যায়ে ৫
টি অর্থে কেবলা শব্দটি ব্যবহার
করা হয়েছে,
যথাঃ
#১. দুনিয়ার সৃষ্ট সব
কিছুর কেবলাহ
হচ্ছেন আল্লাহ
রাব্বুল আলামিন |
#২. আল্লাহ
ছাড়া সকল
মাখলুকাতের কেবলাহ
হচ্ছেন নূর
নবীজি রাসুল
সাল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম

#৩. নামাজের কেবলাহ
হচ্ছে বায়তুল্লাহ |
#৪. দোয়ার কেবলাহ
হচ্ছে আসমান |
৫#. মুর্শিদের অন্তর
হচ্ছে তার মুরিদের
জন্য কেবলা |
তাছাড়া
” দুররুল
মুখতারের ” ২৫৯
নং পৃষ্ঠায় একইরকম
আলোচনা করা হয়েছে |
সুতরাং দলিল
দ্বারা প্রমান
হয়ে গেল
মুর্শিদকে কেবলা বলা জায়েজ

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s